Warning: Creating default object from empty value in /home/genocidebangladesh/genocidebangladesh.org/wp-content/themes/canvas/functions/admin-hooks.php on line 160

বাংলায় মহামারি

দি টাইমস, ৬ জুন, ১৯৭১

অনুবাদ: ফাহমিদুল হক

দিনাজপুর সীমান্তে একটি উদ্বাস্তু-শিশু কলেরায় মারা গেল। সীমান্ত-শিবিরগুলোতে এর সংখ্যা ইতোমধ্যে পাঁচ হাজারে উন্নীত হয়েছে। মানচিত্রে প্রদর্শিত উদ্বাস্তুর সংখ্যা থেকে বোঝা যায় আক্রান্তের সংখ্যা মহামারি আকারে অচিন্তনীয় পর্যায়ে পৌঁছে যাবে। কলকাতার লাখ লাখ উদ্বাস্তুকে আঘাত করার জন্য কলেরা খুব দূরে অবস্থান করছে না। গডফ্রে হসন-এর রিপোর্ট।

এক সপ্তাহ আগে বাংলায় নিযুক্ত অক্সফ্যাম-এর মাঠপরিচালক ফরাসী-কানাডীয় রেমন্ড করনইয়ার একটি বার্তা পেয়ে খুব হতোদ্যম হয়ে পড়েন। বার্তাটি আসে ভারতীয় নান মাদার টেরিজার কাছ থেকে কলকাতার দরিদ্রদের নিয়ে যার সেবামূলক কর্মকাণ্ড ইতোমধ্যে কিংবদন্তীতে পরিণত হয়েছে; মাদার পূর্ব পাকিস্তানের উদ্বাস্তুদের জন্য কলকাতা থেকে ৭০ মাইল উত্তরে ও বাংলার সীমান্ত-শহর কৃষ্ণনগরে একটি মেডিকেল টিম পাঠিয়েছেন।

বার্তায় বলা হয়েছিল, “প্লিজ, স্যালাইন পাঠান; শিবিরে কলেরার প্রাদুর্ভাব দেখা গেছে”। বাংলায় এক শতাব্দী জুড়ে কলেরা রয়েছে। কলকাতায় প্রতি বছরে কলেরায় ২,০০০ লোক মারা যায়। কিন্তু স্বাস্থ্য-বিশেষজ্ঞরা পুরোপুরি বুঝতে পারেন না, স্বাভাবিক সময়ে এটা কেন ঘাপটি মেরে থাকে। মাদার টেরিজার বার্তার অর্থ হলো সবচেয়ে বিপজ্জনক সময়ে এটা আবির্ভূত হয়েছে। শিবিরগুলোতে জড়ো হওয়া মানুষগুলোর অনেকেরই অস্বাস্থ্যকর অবস্থায় রয়েছে, দূষিত পানি ব্যবহার করছে এবং চিকিৎসা-সুবিধা বঞ্চিত। দেশত্যাগ করে আসা উদ্বাস্তুদের বেশিরভাগেরই পানিবাহিত ব্যাক্টেরিয়ার-মাধ্যমে-ছড়িয়ে-পড়া রোগ প্রতিরোধ করার মতা নেই। গত সপ্তাহের শেষে দেখা দেয়া কলেরার মহামারি আকারে রূপলাভ করাটা নিশ্চিতই ছিল।

কলেরায় আক্রান্তের ভয়াবহ পাতলা পায়খানা হয় ও বমি হয়, যার ফলে মারাত্মক পানিশূন্যতা দেখা দেয়। বমির ফলে তরল খাবার খাওয়া যায় না, তাই স্যালাইন-পানি দেহে ঢোকানোর মাধ্যমে পানিশূন্যতা রোধ করতে হয়। যদি এই পদ্ধতি দ্রুত প্রয়োগ করা যায়, এমনকি এন্টিবায়োটিক ছাড়াই, একজন সবল দেহের লোকের বেঁচে যাবার সম্ভাবনা থাকে।

মাদার টেরিজার বার্তা পাবার তারা এক ঘণ্টা মধ্যেই করনোইয়ার ও তার সহকারীরা কলকাতা থেকে ৩৫০ বোতল স্যালাইন সংগ্রহ করতে সম হন, এবং কৃষ্ণনগরের উদ্দেশে ট্রাক বোঝাই করে পাঠান। পরের দিন পশ্চিমবঙ্গের স্বাস্থ্যমন্ত্রি ডাঃ আবেদিন জানান, প্রতিদিন ১,০০০ বোতল স্যালাইন দরকার কিন্তু সংগ্রহ হয়েছে মাত্র ৮০০ বোতল। এ-পরিসংখ্যান থেকে বোঝা যায়, প্রয়োজনের তুলনায় সরবরহ কমই রয়েছে।

খাদ্য, ওষুধ ও প্রতিষেধক-এর ঘাটতি

সোমবার পশ্চিম-বাংলার স্বাস্থ্য বিষয়ক পরিচালক ডাঃ সাহার নদীয়া ও কৃষ্ণনগর জেলার ‘ব্যাপক’ মহামারির কথা বলছিলেন। সপ্তাহান্তে কলেরায় তিনশ পঞ্চাশ জন মারা গেছে বলে সরকারি হিসেব পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার সারা বাংলায় ৯০০ জন মারা গেছে ও বুধবার এই সংখ্যা ১৩০০-তে গিয়ে দাঁড়িয়েছে। এবং এই সংখ্যা কেবল ক্যাম্পসমূহের হিসাব। অর্ধেকে মানুষ ক্যাম্পের বাইরে রয়েছে; এবং যখন ক্যাম্পে এই অসুখ দেখা দেয় তখন ক্যাম্পের বাইরের হাজার হাজার মানুষ ভয়ে ক্যাম্প এলাকা থেকে পালিয়ে যায়, আর সঙ্গে নিয়ে যায় কলেরার জীবাণু।

ভৌগোলিকভাবে রোগজীবাণু যেভাবে ছড়াচ্ছে, তাতে ভারতীয় সরকার বলতে চাইছে যে, পূর্ব-পাকিস্তানের ভেতর থেকে রোগটি বাইরে ছড়িয়ে পড়ছে। বুধবার ইউনিসেফ জানিয়েছে ভারতীয় রাজ্য আসাম ও ত্রিপুরাতেও কলেরার প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। রাজ্য দু-টি নদীয়া থেকে বহু দূরে অবস্থিত এবং পূর্ব-পাকিস্তানের ভূখণ্ড দ্বারা প্রায় বিচ্ছিন্ন। বৃহস্পতিবার পশ্চিমবঙ্গ সরকার অক্সফ্যামের কাছে জানতে চাইছিল ৪০ লাখ কলেরা-প্রতিষেধক দিয়ে কত ভাগ রোগীর চিকিৎসা করানো যাবে। শুক্রবার ভারত-সরকার জেনেভায় অবস্থিত ক্যাথোলিক রিলিফ সার্ভিসেস-এর কাছে আশি টন বিভিন্ন ওষুধ চেয়ে পাঠিয়েছে এবং কলকাতার অক্সফ্যাম-অফিস অক্সফোর্ডে টেলেক্স করেছে প্লেন ভর্তি করে স্যালাইন পাঠানোর জন্য।

স্যালাইন ইঞ্জেকশন ও এন্টিবায়োটিক দিয়েই কেবল কলেরা নিয়ন্ত্রণ করা যায়, যদি তা সময়মতো ধরা পড়ে ও পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা-পরিস্থিতি ন্যূনতমভাবে নিরাপদ থাকে। প্রতিষেধক দিয়েও একে নিয়ন্ত্রণ করা যায়, অবশ্য এ-পদ্ধতি শতকরা ষাট ভাগ ক্ষেত্রে কার্যকর। সুকো ইন্টারন্যাশনালের তৈরী নতুন জেট ইঞ্জেকশন প্রতিষেধক-যন্ত্র দিয়ে গণহারে প্রতিষেধক প্রয়োগ করা সম্ভব। যন্ত্রটি দিয়ে এক ঘণ্টায় একজন চিকিৎসাকর্মী ৪০০ জনকে ভ্যাক্সিন দিতে পারবেন, যেেেত্র যন্ত্রটি ছাড়া একজন ডাক্তারের ঐ পরিমাণ কাজ করতে সারাদিন লেগে যাবে।

বাংলায় এখন বিপুল পরিমাণ চিকিৎসা-যন্ত্রপাতি পাঠানো হয়েছে। অবশ্য ত্রাণকর্মীরা জানেন যতই বিপুল শোনাক না কেন, প্রয়োজনের তুলনায় তা নগন্য এবং কিছু কিছু এসেছে খুব দেরীতে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায় ৩০টি জেট ইঞ্জেকশন মেশিন সামনে আসছে; কিন্তু তাতে একটি মাত্র মেশিন দিয়ে দশটি ক্যাম্পের কাজ সারতে হবে। বেশিরভাগ কলেরা-প্রতিষেধক ব্রিটিশদের কাছে রয়েছে যা গতকাল পাঠানো হয়েছে; এই সংখ্যা হলো ৯০৩,০০০। এই সংখ্যার পরও চারজন উদ্বাস্তুর জন্য একটি মাত্র ভ্যাক্সিন বরাদ্দ হবে। আর উদ্বাস্তুরাই কেবল কলেরায় আক্রান্ত হয়েছে, ব্যাপারটা এমনও নয়।

ভারতীয় কর্তৃপক্ষ সব উদ্বাস্তুদের জন্য ন্যূনতম গ্রহণযোগ্য রেশনের ব্যবস্থা করেছে। কিন্তু তার পরিমাণ অবশ্যই বেশি নয়: প্রতি লোকের জন্য প্রতিদিন এক রুপি বা এক শিলিং-এরও কম। প্রায় ৫৫ পয়সা যায় চাল ও ডালের জন্য এবং বাকিটা দিয়ে রান্নার তেল ও জ্বালানি কিনতে। সীমান্ত পার হবার সময় অনেক উদ্বাস্তুই পাঁচ বা ছয়দিন খেতে পায় নি; উপোস করা লোকজনের জন্য এই রেশন ন্যূনতম কিন্তু বাঙালিদের জন্য অনেক। এরকম ঘটনাও ঘটেছে যে ভারতীয় জনগণ অভিযোগ করেছে, সরকার দেশবাসীর চাইতে উদ্বাস্তুদের সবকিছু বেশি দিচ্ছে।

উদ্বাস্তুদের রেশন-গ্রহণের পূর্বে তালিকাভুক্ত হতে হয়। ভারতীয় সরকার তাই জানে উদ্বাস্তুর সংখ্যা কত এবং তারা কোথায় অবস্থান করছে। ত্রাণকার্য বিঘ্নিত হবার পেছনে একটা বাধা হলো উদ্বাস্তুরা পূর্ব পাকিস্তানের আশপাশে বিস্তৃত এলাকায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে। কলকাতার নিচের গাঙ্গেয় সমতল থেকে এক হাজার মাইল উত্তরে, হিমালয় পাদদেশের ভারী বর্ষণের এলাকা আসামী পাহাড়াঞ্চল হয়ে, আবার নিচে বার্মা সীমান্তের বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত উদ্বাস্তুদের অবস্থান।

উদ্বাস্তুরা এই সীমান্ত এলাকা জুড়ে সমানভাবে রয়েছে। জেলা ও রাজ্যসমূহকে ঘড়ির কাঁটার দিকে বিচার করলে গত সপ্তাহের শেষে যেরকম হিসেব পাওয়া গেছে তা হলো, দক্ষিণ-পূর্বের চব্বিশ পরগণা জেলায় ৪২০,০০০ জন; উত্তরের নদীয়া জেলায় ৪৫০,০০০ জন; মুর্শিদাবাদে ১,২০০,০০০ জন, যেখানে গঙ্গাই সীমান্ত হিসেবে কাজ করছে এবং যেখানে পার হওয়া কঠিন; মাদলদহে ৩০০,০০০; এবং পশ্চিম দিনাজপুরের সমতলে ১,২০০,০০০ জন। পূর্ব-পাকিস্তানের উত্তরে কুচবিহারে অন্তঃত ৭০০,০০০ জন উদ্বাস্তু রয়েছে; হিমালয়ের রেলস্টেশন দার্জিলিং থেকে বহু দূরে পূর্ব পাকিস্তানের উত্তর-পূর্বের ভারতীয় রাজ্য আসামে ৩০০,০০০ জন উদ্বাস্তু রয়েছে; মেঘালয়ে আছে ৪৫০,০০০ জন; এবং ভারতীয় রাজ্যসমূহের মধ্যে সবচেয়ে দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত রাজ্য ত্রিপুরায় রয়েছে ৭০০,০০০ উদ্বাস্তু, যে-রাজ্যের নিজস্ব লোকসংখ্যাই ছিল ১,৫০০,০০০ জন।

উদ্বাস্তুদের মোট সংখ্যা এভাবে দাঁড়াচ্ছে অন্তঃত ৪,৬৬০,০০০ জন: কারণ কিছু সচ্ছল লোক কলকাতা বা ছোট শহরগুলোতে প্রবেশ করতে পেরেছে যাদের রেশনের জন্য তালিকাভুক্তির প্রয়োজন নেই। এবং উদ্বাস্তুর সংখ্যা প্রতিদিন ১০০,০০০ করে বাড়ছে। কিন্তু এই বিশাল সংখ্যা পুরো সমস্যার অর্ধেকও নির্দেশ করে না। অনেক পশ্চিমা ত্রাণ-কর্মকর্তা মনে করেন, পূর্ব-পাকিস্তানে একজন হিন্দু অবশিষ্ট থাকা পর্যন্ত এই দেশত্যাগের প্রক্রিয়া চলবে। এই প্রকিয়া শুরু হবার পূর্বে, পূর্ব-পাকিস্তানে মোট হিন্দুর সংখ্যা ছিল এক কোটি।

পূর্ব-পাকিস্তানে সমস্যা শুরু হবার পর থেকে উদ্বাস্তুদের তিনটি ঢেউ সীমান্তে এসে পড়ে। ২৫ মার্চে পশ্চিম-পাকিস্তানের সেনাবাহিনী আক্রমণ করার পরপরই এক দফায় প্রধানত হিন্দুরা (এবং বাঙালিরাও) উদ্বাস্তু হয়ে পড়ে। তাৎপর্যপূর্ণভাবে এই প্রথম দফায় কিছু মুসলমানও উদ্বাস্তু হয়। দ্বিতীয় ঢেউটি আসে মে মাসের প্রথম সপ্তাহের শেষ দিকে; এবং তৃতীয় ঢেউটি আসে গত সপ্তাহান্তে। উভয় ক্ষেত্রেই উদ্বাস্তুদের বেশিরভাগই ছিল হিন্দু। উদ্বাস্তুদের চোখে-মুখে ভয়-ভীতির সব চিহ্নই রয়েছে। দি সানডে টাইমস্ হিন্দুস্তান স্ট্যান্ডার্ড-এর বাংলাভাষী রিপোর্টারদের মাধ্যমে অনেক উদ্বাস্তুর সাক্ষাৎকারের আয়োজন করে।

বর্ষা শুরু হবার পর নতুন বিপদ

সংবাদপত্রের ব্যবস্থাপনা-সম্পাদক অভীক সরকার বললেন, উদ্বাস্তুরা “ব্যর্থ বিপ্লবের নিষ্ঠুর স্মৃতি” নিয়ে এসেছে―যে বিপ্লব ছিল স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার জন্য―এবং পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর সহিংসতার জন্যও। দুঃখজনক ব্যাপার হলো, ভারতীয় সাংবাদিকরা যেমন বলে থাকে, গণহত্যার এই ব্যাপারটা ইচ্ছাকৃতভাবে করা হয়েছে। মি. সরকার লিখছেন, “একটি ভারত-বিরোধী পরিকল্পিত প্রচারণা এখানে চালানো হয়েছে এবং সীমান্ত অতিক্রম করে পালিয়ে না-যাবার কোনো পথ সেনাবাহিনী রাখে নি। নিষ্ঠুরতার একটি বড়ো অংশ হলো হিন্দুদের উদ্বাস্তুতে পরিণত করা”।

প্রতিবেদকরা যা বারবার লিখছেন তার দুটো উদাহরণ পাওয়া গেল। ৮০ বছরের শরৎ দাস বললেন, একদিন তার চল্লিশ বছর বয়েসী ছেলে, যে পেশায় মুচি, কাজ থেকে বাড়ি ফেরে নি। তিনি বললেন তার সন্তানকে গুলি করে মেরে ফেলা হয়েছে। সুধারানি ঘোষ বললেন তার স্বামীকে মুসলিম লিগের কর্মীরা বাড়ি থেকে ডেকে রাস্তায় নিয়ে গিয়ে মেরে ফেলে। এই কাহিনীগুলো অভিযোগ পুরোপুরিভাবে প্রমাণিত করে না। কিন্তু এগুলো এটা অন্তঃত প্রমাণ করে উদ্বাস্তুরা ভয় পেয়ে পালিয়ে এসেছে এবং যতদিন পাকিস্তানি সেনাবাহিনী পূর্ব বাংলায় থাকবে ততদিন তারা দেশে ফিরে যাবে না। একজন উদ্বাস্তুকে জিজ্ঞেস করা হলো সে কেন ফিরে যাবে না। সে বলল “আমি তখনই ফিরে যাবো যখন বাংলাদেশের অভ্যুদয় হবে।” কোনো সন্দেহ নেই, সে সংখ্যাগরিষ্ঠ উদ্বাস্তুর কথাই বলেছে।

ভারতীয় সরকার সরকারীভাবে তাদের ‘উদ্বাস্তু’ বলার পরিবর্তে ‘স্থানান্তরকারী’ বললেও পুরো ব্যাপারটা থেকে উদ্ভূত সমস্যাকে এড়াতে পারছে না। পাঁচ মিলিয়ন উদ্বাস্তুর কারণে ইতোমধ্যেই প্রশাসনিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক বিভিন্ন সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। এরপরও আরো পাঁচ মিলিয়ন উদ্বাস্ত সীমান্ত অতিক্রম করবে বলে আশংকা করা হচ্ছে। কিন্তু ভারতীয় সরকারের মনোভাব বাস্তবানুগ না হলেও তা সহজেই বোধগম্য। উদ্বাস্তুরা যে দলে দলে এসেছে তা ভারতের অপরাধ নয়। এসবকিছুর কারণ হলো, পূর্ব পাকিস্তানে যা ঘটেছে তার কারণেই সমস্যাগুলোর সৃষ্টি হয়েছে। তার চাইতেও বড়ো কথা হলো, পাকিস্তানি সরকার এবং সেনাবাহিনীই এসবকিছুর জন্য দায়ী।

কিন্তু, ভারত-সরকারের ওপরেও নানা দিক থেকে উদ্বাস্তু-সমস্যা নিয়ে নানা ধরনের চাপ রয়েছে, এবং যদি সম্ভব হয়, ভারত-সরকারকে এসমস্যা থেকে মুক্ত হতে হবে। স্থানীয় ভারতীয় জনগণ ইতোমধ্যে অভিযোগ করেছে যে, উদ্বাস্তুরা কাজকর্ম খোঁজা শুরু করে দিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিবিদরা ইতোমধ্যে সতর্ক হয়ে গেছেন যে, উদ্বাস্তু-শিবিরগুলো হয়ত নকশালপন্থীদের আখড়া হয়ে যাবে; নকশালপন্থীদের কর্মকাণ্ডের নিদর্শনও এরমধ্যে দেখা গেছে― ক্যাম্পগুলোতে রাজনৈতিক খুনোখুনি হয়েছে।

ভারতীয় সরকার এই জনবিস্ফোরণকে মোকাবেলা করার জন্য ব্যাপক পদপে নিয়েছে, যদিও কেন্দ্রীয় বা রাজ্য-সরকারের হাতে সম্পদ খুব সীমিত। বিশেষ করে ত্রিপুরা সরকার বিরাট সব পদপে নিয়েছে: ২৬টি স্থায়ী শিবিরে তারা কাজ করা শুরু করে দিয়েছেন। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, বেসরকারী ঠিকাদার নিয়োগ করা হয়েছে যারা ট্রাকের বহর দিয়ে সীমান্ত-শিবিরগুলোতে খাদ্য পৌঁছে দেবে। অক্সফ্যাম ছাড়াও বেশ কিছু বেসরকারী ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন নিজ নিজ পদ্ধতিতে কাজ করে যাচ্ছে: পশ্চিমবঙ্গ রেডক্রস, ইউনিসেফ, ওয়ার অন ওয়ান্ট, সেভ দ্য চিলড্রেন ফান্ড, ক্যাথোলিক রিলিফ সার্ভিসেস, দি ক্রিশ্চিয়ান এজেন্সি ফর সোশ্যাল এইড, ক্রিশ্চিয়ান এইড, কেয়ার এবং চার্চসমূহ। কিন্তু বেশিরভাগ স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের কর্মকর্তারা সম্ভবত রেমন্ড কোরনয়ারের গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্যকে মেনে নেবেন, “স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলো যা করছে, তা হলো, একটি বালতিতে এক ফোঁটা পানি”। সংস্থাগুলোর অবদানকে এভাবে হিসেব করা যাবে যে, যখন শত শত ডাক্তারের প্রয়োজন তখন তিনজন এখানে, চারজন ওখানে কাজ করছে; আর যেখানে লাখ লাখ লোক ক্ষুধার্ত, তখন হাজার লোককে খাওয়ানো যাচ্ছে।

দুর্ভাগ্যবশত, বিশ্বের সরকারগুলো সময়মতো সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয় নি। তিন সপ্তাহ আগেই উ থান্ট জাতিসংঘের উদ্বাস্তু-কমিটিতে জরুরিভিত্তিতে বিশেষ সাহায্য প্রদানের জন্য আবেদন জানিয়েছিলেন। জাতিসংঘের দেয় তথ্যানুসারে কেবল চারটি দেশ সাহায্য দিয়েছে বা প্রতিশ্র“তি প্রদান করেছে। আবেদনটির পরপরই ব্রিটেন প্রাথমিক সাহায্য হিসেবে এক মিলিয়ন পাউন্ড প্রদান করেছে। যুক্তরাষ্ট্র ২.৫ মিলিয়ন ডলার প্রদান করেছে যার মধ্যে ৫০০,০০০ ডলার ইতোমধ্যে জাতিসংঘ-কমিটিকে দিয়ে দেয়া হয়েছে। কানাডা ২ মিলিয়ন ডলার প্রদান করার প্রতিশ্র“তি দিয়েছে খাদ্য- ও স্বাস্থ্য- সংক্রান্ত সাহায্য হিসেবে, এবং পশ্চিম-জার্মানি ১ মিলিয়ন ডয়েস মার্ক দিয়ে শুরু করতে চেয়েছে। জাতিসংঘের অন্য ১৫০টি দেশের কেউই সাড়া দেয় নি― যদিও, সত্যি কথা বললে, সুইডেন সাহায্য দিয়েছে কিন্তু তা দিয়েছে রেড ক্রিসেন্টের মাধ্যমে।

রেমন্ড কোরনেয়ার বলেন, “যদি বর্ষা শুরু হয়, আপনি আশা করতে পারেন না যে লোকজন বাইরে খোলা আকাশের নিচে দু-দিন ধরে থাকবে”। লাখ লাখ লোকই খোলা আকাশে নিচে ঘুমায়। উদ্বাস্তুদের মাত্র অর্ধেকই ক্যাম্পের ভেতরে থাকতে পারে। ভরা বর্ষা শুরু হবার আগে আশ্রয়-কেন্দ্র নির্মাণের জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র, সম্ভবত, কেবল ভারতীয় সেনাবাহিনীরই আছে। কিন্তু আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি উত্তেজনাপূর্ণ হবার কারণে সেনাবাহিনী সীমান্তগুলো পাহারা দিতে ব্যস্ত রয়েছে। বর্ষা আসার আগে যদি কলেরাকে নিয়ন্ত্রণ করা না যায়, মহামারি শুরু হয়ে যাবে; বন্যা হলে বা জলভাগের উচ্চতা বেড়ে গেলে ব্যাক্টেরিয়া দ্রুত বিস্তার লাভ করবে। এভাবে বর্ষা নতুন একটি বিপদ ডেকে নিয়ে আসবে: সেটা হলো টাইফয়েড। খুব সামান্যই টাইফয়েডবিরোধী সিরাম পাঠানো হয়েছে। বাংলার দুর্ভোগ কেবল বর্ষাতেই থেমে থাকবে না। পূর্ব পাকিস্তানে বর্ষার পূর্বেই ধানের বীজ রোপন করা হয়ে থাকে। কিন্তু যুদ্ধ ও দেশত্যাগের কারণে লাখ লাখ কৃষক এই বসন্তে কোনো কোনো ধান চাষ করতে পারে নি। আক্রমণ, নিপীড়ন এবং মৃত্যুর পর চতুর্থ যে অশুভ শক্তি পূর্ব বাংলায় আসবে, তা হলো, দুর্ভিক্ষ।

ত্রাণকর্মীরা অপোকৃত নিকবর্তী বিপদ মোকাবেলায় ব্যস্ত রয়েছে। কলকাতায় কলেরা ছড়িয়ে পড়ছে। এই মারি এমন একটি শহরে ছড়িয়ে পড়তে যাচ্ছে যার জনসংখ্যা কতো তা কেউ জানে না― এবছরে সম্ভবত আট মিলিয়িন এবং এদশকের শেষে ১২ মিলিয়ন। শহরটির তিন-চতুর্থাংশেই সুয়ারেজ বা চলমান পানি-ব্যবস্থায় ঘাটতি আছে। প্রতি বর্ষায় এখানে জলাবদ্ধতা হয়। ভারতীয় সরকার শহরটিতে কলেরার অনুপ্রবেশে খুবই উদ্বিগ্ন। দমদম এয়ারপোর্টের একেবারে শেষ মাথায় অন্তঃত ৩০,০০০ উদ্বাস্তু এসে আসন গেড়েছে। শহরের আরও কাছাকাছি, উত্তরাংশে অবস্থিত শান্তি-শহরে আরেকটি উদ্বাস্তু-কলোনি আছে যেখানে আরো কয়েক হাজার বেশি উদ্বাস্ত আছে।

শহর থেকে খুব সম্প্রতি ঘুরে আসা অক্সফ্যামের দুর্যোগ-ব্যস্থাপনা-কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার মাইকেল ব্ল্যাকম্যান বলেন, “আমি মনে করি কলকাতায় যদি কলেরার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়, তবে খোদা না করুক, এটা লন্ডনের মহা-প্লেগ হয়ে দেখা দিবে। রেমন্ড করোনেয়ার বলেন, “সে’স্ট উন ফিউ দি ফরেস্ট (এটা হবে দাবানলের মতো)। এটা কতটা ভয়ংকর হবে তা বলার মতো কোনো যথার্থ ভাষা আমার জানা নেই। কলকাতায় ঘিরে যদি এটা একবার ছড়িয়ে পড়ে, উভয় বাংলার গোটা জনগোষ্ঠীই ধ্বংস হবার মুখে পড়বে”। উভয় বাংলায় ১১০ মিলিয়ন মানুষ রয়েছে, যা গোটা মানবগোষ্ঠীর শতকরা তিন ভাগের সমান।

, , , , ,

Comments are closed.