Warning: Creating default object from empty value in /home/genocidebangladesh/genocidebangladesh.org/wp-content/themes/canvas/functions/admin-hooks.php on line 160

মুজিব ইয়াহিয়ার সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজি

দি গার্ডিয়ান, ১৩ মার্চ, ১৯৭১

মার্টিন এডনে

অনুবাদ: ফাহমিদুল হক

ঢাকা, মার্চ ১২। শেখ মুজিব আজ ঘোষণা দিয়েছেন যে পূর্ব পাকিস্তান সম্পর্কে একবার ও শেষবারের মতো প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়ার সঙ্গে আলোচনায় বসতে ইচ্ছুক। যে-দলটি পূর্ব বাংলার সত্যিকারের সরকার হিসেবে কাজ করছে সেই আওয়ামী লীগের প্রেসিডেন্ট শেখ মুজিব আমাকে বললেন: ‘আমি ব্যাপারটা সমাধা করতে আলোচনায় বসতে রাজি আছি। আমি যা বলেছি, পষ্ট করেই বলেছি। আমার নাগরিকেরা স্বাধীন নাগরিক হিসেবে একটি স্বাধীন দেশে বাস করতে চায়।’ ব্যাপারগুলো বিস্তারিতভাবে জানতে চাইলে, যেমন প্রতিরক্ষা বাজেটের ব্যাপারটা — যা আলোচনার একটি বিষয় হতে যাচ্ছে, তিনি বলেন: ‘দ্বিধাগ্রস্ত হবার আর কোনো সুযোগ নেই, আমি আমার জনগণের রক্তের বিশ্বাসঘাতকতা করতে পারি না।’ তিনি পাকিস্তানের সঙ্গে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হতে চান কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন: ‘তারা যদি আমাদের অংশ হিসেবে থাকতে বলে, তবে ভাইয়ের মতো একসঙ্গে থাকাই ভালো হবে।’

মুজিব বাঙালিদের ঐক্যের কথা জোর দিয়ে বলেন — যে-ঐক্য গত সপ্তাহজুড়ে প্রদর্শিত হয়েছে। তিনি দাবি করেন তাদের মগ্নতা ও নিয়মানুবর্তিতা দীর্ঘমেয়াদী অর্থনৈতিক সমস্যাগুলো মোকাবেলা করতে তাদের সাহায্য করবে। তিনি অভিযোগ করেন পূর্ব বাংলার সঙ্গে বছরের পর বছর ধরে উপনিবেশের মতো ব্যবহার করা হয়েছে। সৌদি আরব ও চেকাস্লাভিকিয়া থেকে পাঠানো হেলিকপ্টার বাঙালিরা কখনো দেখে নি। বন্যা নিয়ন্ত্রণে আন্তর্জাতিক সহায়তার সঙ্গে লাখ লাখ মানুষ ‘রাতদিন কাজ করেছে এমনকি কোনো খাবার ছাড়াই’ এবং তিনি যদি বলেন তো ছাত্ররাও মাঠ পর্যায়ে যাবে। তিনি বলেন: ‘আমরা একটি নিয়মানুবর্তী জাতি; আপনি কি তা লক্ষ করেন নি?’

তিনি জোরারোপ করেন যে যদি রোববারের জনসভায় সেনাবাহিনী তাদের বিপে নামতো তবে জনগণ তা প্রতিহত করতে প্রস্তুত ছিল। ‘আমাদের জনগণ মৃত্যুকে বরণ করে নেবে। তারা প্রতিদিন ঘুর্ণিঝড়ে, বন্যায়, কলেরায়, অনাহারে মারা যায়। আমরা আরেক বার মরবো এবং সবার জন্য মরবো।’ পূর্ব পাকিস্তানের মর্যাদা যদি পরিবর্তিত হয় তবে তার পররাষ্ট্রনীতিতে কোনো পরিবর্তন আসবে কিনা জিজ্ঞেস করা হলে তিনি তার উত্তর দিতে অস্বীকৃতি জানান, তবে বর্তমান পরিস্থিতিতে বিশ্বমতের গুরুত্ব সম্পর্কে তিনি স্পষ্টতই সচেতন।

পাকিস্তানের অখণ্ডতা রায় সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধাবস্থান নেয়া ‘ডেইলি টেলিগ্রাফ’ পত্রিকায় ছাপা হওয়া একটি প্রতিবেদনের উল্লেখযোগ্য অংশ এখানকার একটি পত্রিকায় গুরুত্বসহকারে ছাপা হয়েছে। এখানকার অর্থনীতি সংকটে পতিত হবার পরিপ্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগ বাণিজ্যিক বিনিময়ের ওপরে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা খানিকটা শিথিল করেছে। দীর্ঘণ ব্যাংক খোলা রাখা অনুমোদন করা হয়েছে, অর্থ বিনিময় ও মাল খালাসের সীমা বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে ও পশ্চিম পাকিস্তান থেকে পণ্য পরিবহণের অনুমতি দেয়া হয়েছে। ব্যবসায়ীদের জন্য সপ্তাহে ১০,০০০ রুপি পর্যন্ত অর্থ গ্রহণের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। বন্দর কর্তৃপকে সব ধরনের কাজ চালিয়ে যাবার জন্য বলা হয়েছে। শিল্পোন্নয়ন কর্পোরেশনের কারখানাগুলো চালু হয়েছে এবং কৃষিজ উন্নয়ন কর্মকাণ্ড কাজ চালিয়ে যাবার জন্য বলা হয়েছে।

রয়টার্স-এর সংযুক্তি: প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া আজ মুজিবের সঙ্গে আলোচনার জন্য ঢাকার পথে করাচিতে আসছেন। প্রেসিডেন্ট তার যাত্রা গোপন রেখেছেন। ওদিকে ঢাকার ১৭২ মাইল পশ্চিমে একটি জেলখানায় দাঙ্গা বেধে গেলে রীদের গুলিতে দু-জন বন্দি মারা গেছে এবং ২২ জন আহত হয়েছে। লোহার রড ও অন্য অস্ত্রের আঘাতে ৩০ জন পুলিশও আহত হয়েছে। গতকাল রাতে বরিশাল জেলে ২০০ জন বন্দি রীদের ওপরে চড়াও হলে দাঙ্গা বেধে যায়। পুলিশ বলেছে বন্দিদের জেলখানার মূল গেট ভেঙ্গে ফেলার উদ্যোগ ব্যর্থ হয়েছে, কিন্তু তাদের মধ্য থেকে ২২ জন জেলখানার উঁচু দেয়াল অতিক্রম করে পালিয়েছে। বর্তমান আন্দোলন চলাকালে পূর্ব পাকিস্তানের জেলখানা থেকে প্রায় ৩৮৫ জন বন্দি পালিয়েছে।

, , , ,

Comments are closed.