A khaki dissident on 1971

by Colonel Nadir Ali, retired Army Officer , Punjabi poet and short story writer

“It is Mujib’s home district. Kill as many bastards as you can and make sure there is no Hindu left alive,” I was ordered. I frequently met Mr Fazlul Qadir Chaudhry, Maulana Farid Ahmed and many other Muslim League and Jamaat leaders. In the Army, you wear no separate uniform. We all share the guilt. We may not have killed. But we connived and were part of the same force

During the fateful months preceding the dismemberment of Pakistan, I served as a young Captain, meantime promoted to the rank of the Major, in Dhaka as well as Chittagong. In my position as second-in-command and later as commander, I served with 3 Commando Battalion.

My first action was in mid April 1971. “It is Mujib-ur-Rahman’s home district. It is a hard area. Kill as many bastards as you can and make sure there is no Hindu left alive,” I was ordered.

“Sir, I do not kill unarmed civilians who do not fire at me,” I replied.

“Kill the Hindus. It is an order for everyone. Don’t show me your commando finesse!”.

I flew in for my first action. I was dropped behind Farid Pur. I made a fire base and we fired all around. Luckily there was nobody to shoot at. Then suddenly I saw some civilians running towards us. They appeared unarmed. I ordered “Stop firing!” and shouted at villagers, questioning them what did they want. “Sir we have brought you some water to drink!”, was the brisk reply.

I ordered my subordinates to put the weapons away and ordered a tea-break. We remained there for hours. Somebody brought and hoisted a Pakistani flag. “Yesterday I saw all Awami League flags over your village” I told the villagers. That was indeed the fact. I didn’t know whether to laugh or cry. Later the main army column caught up to make contact. They arrived firing with machine guns all around and I saw smoke columns rising in villages behind them. “What’s the score?” the Colonel asked.

“There was no resistance so we didn’t kill anyone,” he was informed.

He fired from his machine gun and some of the villagers who had brought us water, fell dead. “That is the way my boy,” the Colonel told this poor Major.

I was posted there from early April to early October. We were at the heart of events. A team from my unit had picked up Sheikh Mujib Ur Rehman from his residence on 25th March, 1971. We were directly under the command of Eastern Command. As SSG battalion commander, I received direct orders from General Niazi, General Rahim and later Gen Qazi Majid of 14 Div Dhaka.

Ironically, the resistance was led by General Zia Ur Rehman (later to become Bangladesh’s military ruler) was a fellow instructor at Pakistan Military Academy. Similarly, General Khalid Musharaf, who overthrew Zia in a counter-coup, was my course mate as well as a room-mate at the Pakistan Military Academy (PMA). He was also a fellow officer in SSG. Brig Abu Tahir, who brought General Zia back to power in a counter-counter coup, was also a friend and fellow officer in SSG. He was a leftist, jailed and later hanged by Gen Zia Ur Rehman whom he brought back to power in the fateful months in Bangladesh’s history, after the murder of founding father, Sheikh Mujib Ur Rehman.

Another leftist friend was Major Zia Ud Din. He was a freedom fighter and as Naxalite remained under ground from 1971 to1989 when a general amnesty was declared.

I came back to West Pakistan for getting my promotion to Lt. Colonel, in my parent corp, Ordnance, in October 1971.From December 1971 onwards, I began to suffer memory loss till my retirement on medical grounds in 1973. I remained in the nut house for six months in 1973. As a Punjabi writer, I regained my memory and rebuilt my life. I remember every moment from the year 1971.

For operations and visits to my sub units, I travelled all over East Pakistan. I never killed anybody nor ever ordered any killing. I was fortunately not even witness to any massacre. But I knew what was going on in every sector. Thousands were killed and millions rendered homeless. Over nine million went as refugees to India. An order was given to kill the Hindus. I received the same order many times and was reminded of it . The West Pakistani soldiery considered that Kosher. The Hamood Ur Rehman Commission Report mentions this order. Of the ninety-three lakh (9.3 million) refugees in India, ninety lakh were Hindus .That gave us, world-wide, a bad press and morally destroyed us. Military defeat was easy due to feckless military leader ship. Only couple of battalions in the north offered some resistance. For example, the unit of Major Akram, who was awarded highest military medal, Nishan-e-Haider, resisted and he lost his life.

East Pakistan, part of the country a thousand miles away, was “a geographical and political absurdity” as John Gunther said in “Inside Asia Today”.

With federal capital in Islamabad, dominated by West Pakistani civil servants and what they called a Punjabi Army, East Pakistanis felt like subjects of a colony. They never liked it ever since 1947. In early sixties, my fellow Bengali officers called each other general, a rank they would have in an independent East Pakistan. We all took it in good humour. But 1971 was not a joke. Every single Bengali felt oppressed. Their life and death was now in the hands of what they called “Shala Punjabies”.

I granted a long interview, recounting what I saw and felt in 1971, to BBC Urdu Service in December 2007. The Bangladesh Liberation Museum asked for a copy of the interview. It was too lengthy for me to transcribe, translate and type. Here, I attempt to re-collect bits and pieces yet again.

What drove me mad? Well I felt the collective guilt of the Army action which at worst should have stopped by late April 1971. Moreover, when I returned to West Pakistan, here nobody was pushed about what had happened or was happening in East Pakistan. Thousands of innocent fellow citizens had been killed, women were raped and millions were ejected from their homes in East Pakistan but West Pakistan was calm. It went on and on .The world outside did not know very much either. This owes to the fact that reporters were not there. General Tikka was branded as “Butcher Of Bengal”. He hardly commanded for two weeks. Even during those two weeks, the real command was in the hands of General Mitha, his second-in-command. General Mitha literally knew every inch of Bengal. He personally took charge of every operation till General Niazi reached at the helm. At this juncture, General Mitha returned to GHQ. General Tikka, as governor, was a good administrator and made sure that all services ran. Trains, ferries, postal services, telephone lines were functioning and offices were open. There was no shortage of food, anywhere by May 1971. All in all, a better administrative situation than Pakistan of today ! But like Pakistan of today, nobody gave a damn about what happens to the poor and the minorities. My worry today is whether my granddaughter goes to Wisconsin University or Harvard. That nobody gets any education in my very large village or in the Urdu-medium schools of Lahore, where I have lived as for forty years so called concerned citizen, does not worry me or anyone else.

In Dhaka, where I served most of the time, there was a ghostly feeling until about mid April 1971. But gradually life returned to normal in the little circuit I moved: Cantonment, Dacca Club, Hotel Intercontinental, the Chinese restaurant near New Market. Like most human beings, I was not looking beyond my nose. I moved around a lot in the city. My brother-in-law, Riaz Ahmed Sipra was serving as SSP Dhaka. We met almost daily. But the site of rendezvous were officers’ mess, some club or a friend’s house in Dhan Mandi. Even if I could move everywhere, I did not peep into the hearts of the Bengalis. They were silent but felt oppressed and aware of the fact that the men in uniforms were masters of their lives and properties. I frequently met Mr Fazlul Qadir Chaudhry, Maulana Farid Ahmed and many other Muslim League and Jamaat leaders in one government office or the other. Prof. Ghulam Azam and Ch Rehmat Elahi also used to meet me to provide me volunteers to carry out sabotage across the Indian Border.

Dr Yasmin Sakia, an Indian scholar teaching in America, told me once an anecdote. When she asked why in the 1990s she could not find any cooperation in tracing rape-victims of 1971, she was told by a victim,” Those who offered us to the Army are rulers now.”

One can tell and twist the tale. The untold part also matters in history. Two Bengali soldiers whom I released from custody, were issued weapons and put back in uniform. They became POWs along 90 thousand Pakistani soldiers and spent three years in Indian jails. I discovered one of them serving as a cook in 1976 in Lahore. I had regained my memory. “Kamal –ud-Din you?” I exclaimed on sighting him. “Sir you got me into this!”

The Pakistani Army had thrown them out. The other guy teaches in Dhaka now.

The untold part of the story is that one day I enquired about one soldier from Cammandos unit. He used to be my favourite in 1962. “Sir, Aziz-ul –Haq was killed”, the Subedar told me rather sheepishly.

“How?” was not a relevant question in those days. Still I did ask.

“Sir! first they were put in a cell, later shot in the cell”.

My worst nightmare even forty years later is the sight of fellow soldiers being shot in a cell. “How many ?” was my next question. “There were six sir, but two survived. They pretended to be dead but were alive,” came the reply.

“Where are they ?”

“In Cammilla sir, under custody”.

I flew from Dacca to Commilla. I saw two barely recognizable wraiths. Only if you know what that means to a fellow soldier! It is worse than suffering or causing a thousand deaths. I got them out, ordered their uniforms and weapons. “Go, take your salary and weapons and come back after ten days.” They came back and fought alongside, were prisoners and then were with difficulty, repatriated in 1976. Such stories differ, depending on who reports.

All these incidents, often gone unreported, are not meant to boast about my innocence. I was guilty of having volunteered to go to East Pakistan. My brother-in-law Justice Sajjad Sipra was the only one who criticized my choice of posting. “You surely have no shame,” he said to my disconcert. My army friends celebrated my march from Kakul to Lahore. We drank and sang! None of us were in two minds. We were single-mindedly murderous! In the Air Force Mess at Dacca, over Scotch, a friend who later rose to a high rank said, “ I saw a gathering of Mukti Bahini in thousands. I made a few runs and let them have it. A few hundred bastards must have been killed” My heart sank. “Dear! it is the weekly Haath (Market) day and villagers gather there,” I informed him in horror. “ Surely they were all Bingo Bastards!,” he added. There were friends who boasted about their score. I had gone on a visit to Commilla. I met my old friend, then Lt. Col. Mirza Aslam Beg and my teacher, Gen. Shaukat Raza. Both expressed their distaste for what was happening. Tony, a journalist working with state-owned news agency APP, escaped to London. He wrote about these atrocities that officers had committed and boasted about. It was all published by the ‘Times of London’. The reading made me feel guilty as if I had been caught doing it myself! In the Army, you wear no separate uniform. We all share the guilt. We may not have killed. But we connived and were part of the same force. History does not forgive!

Source: Viewpoint, a Pakistani a non-profit venture having a long history of struggle for democracy, human rights and justice in Pakistan.

http://www.viewpointonline.net/a-khaki-dissident-on-1971.html

Bangladesh War of Independence: West Pakistani Soldiers Kill Catholic Priests

Photo Courtesy: Father Evans (Holy Cross Church, Luxmibazar, Dhaka),
Father Veronesi (Bishop’s House Archives, Khulna), Father Marandi
(Catholic Beginnings in North Bengal by by Luigi Pinos, P.I.M.E.)
Layout and Design: Joachim Romeo D’Costa

The Pakistani ruling elite always considered the Hindus in East Pakistan as enemies and agents of India. During their nine-month long deadly crackdown in 1971, West Pakistani soldiers not only demolished many Hindu temples, but also killed a sizable number of Hindu priests, besides Hindu intellectuals, influential persons and common folks in different parts of the eastern wing of the country.

Comparatively, Christians did not suffer that much death and destruction as suffered by the Hindus. Yet, they were not totally spared. In certain pockets of East Pakistan, death and destruction visited them as well. In many mission church and school compounds, internal refugees –Hindus, Muslims and Christians — fleeing West Pakistani military crackdown and barbarity had taken shelter. They were fed and clothed. In this process, a good number of local priests and foreign missionaries — both Catholic and Protestant — faced threats and harassment from the West Pakistani military personnel.

Three Catholic priests — two foreign and one East Pakistani — were brutally killed, too. They were:

  • Father William P. Evans, C.S.C. (1919 – 1971):

Father William P. Evans, C.S.C., killed on November 23, 1971, was an American priest and missionary, belonging to the Congregation of Holy Cross. After coming to East Pakistan, he served at different capacities in various Catholic parish churches and, one time, at the Bandura Little Flower Seminary. Finally, he was the parish priest of Golla Catholic Church in Nawabganj Upazilla of Dhaka District.

Although he was a foreigner, he loved the Bangalis dearly and empathized with them and their aspirations. He aided many internal refugees and gave moral support to the muktijuddhas (fredom fighters) of the locality. West Pakistani army personnel in that area was aware of his support of the freedom fighters.

On November 13, 1971, as usual once a week, he was going by a boat to offer Mass at Bakshanagar Village, a mission station a few kilometres away from Golla. As his boat was passing by the army camp at Nawabganj, the soldiers signaled the boat to make a stoppage at the camp. When the boat reached the shore, soldiers grabbed Father Evans and struck him so hard with the rifle butt that he fell on the ground. His body was bayonated several times and ultimately he was killed with two bullets. Then they threw his corpse into the river that carried it several kilometres downstream.

Ordinary people recovered his body and brought it to Golla Church compound. Thousands of Catholics, Muslims and Hindus of the area came to pay their last respect to this holy man before his burial at the church graveyard.

Father Evans’ innate smiling face, love of people, humility, humour, and empathy drew people of all faiths to him. He was called a “holy man.” Till now, many people visit his grave.

In the Little Flower Seminary at Bandura in the early 60’s, he was our rector. From time to time, he used to give us writing assignments in English and after checking them would give his comments. On my assignment sheets, he would often remark: “Short sentences, but complete thought. Keep up the good work.” My later journalism and writing career in life was the result of his inspiration.

Father Evans has been honoured in different ways in Bangladesh. The Tribeni Chhatra Kallyan Sangha (youth organization) in 1972 started to give “Father Evans Scholarship” to poor but excelling students. In 1973, this organization had also started “Father Evans Memorial Football Tournament”. Later Shurid Sangha (another youth organization) in old Dhaka started its annual “Shaheed Father Evans Memorial Basketball Competition” among different youth organizations.

Source: Bangladeshey Catholic Mondoli (The Catholic Church in Bangladesh)
by Jerome D’Costa (Dhaka: Pratibeshi Prakashani, 1986), pp.302-303

  • Father Mario Veronesi, S.X. (1912 – 1971):

After West Pakistani military started their crackdown on the East Pakistanis (now Bangladesh) from March 25, 1971 onwards, many people of all faiths began to take refuge in church compounds — both Catholic and Protestant. In Jessore town, a number of such people took shelter in the church compound where Father Mario Veronesi, an Italian Xaverian priest and missionary, was the parish priest.

On April 4, 1971 it was the Palm Sunday. Father was taking care of the internal refugees who had taken shelter in his church compound. When the soldiers with their rifles and sub-machine guns entered the compound and were proceeding towards the building, Father Veronesi came out to meet them with his raised hands. He had a large red cross badge on his chest because there was also the Fatima Hospital adjacent to the place. The soldiers immediately started to fire at him and the building. He got bullets in his chest and died there. The soldiers then entered the church and shot and killed four of the refugees.

Initially, he was buried in Jessore. Later his body was taken to Shimulia Catholic Church compound and re-buried near the grave of another Italian Xaverian missionary Father Valerian Cobbe, S.X., who was killed on October 14, 1974 by robbers.

After the independence of Bangladesh in December, 1971, a Muslim student, named Ismail Hossain, wrote a letter to Father Valerian Cobbe and paid tribute to Father Mario Veronesi: “At last we have achieved independence and freedom! We rejoice and thank God and ask him to help our nation progress and live in tranquility. The memory of so many victims is the thing that saddens us most and gives us great pain. The best members of our society have died. Father Mario Veronesi is among these martyrs of our independence. We feel very proud of him: he paid the highest price for our independence!”

This 58-year-old Italian was a priest for 28 years, 19 of which he spent in East Pakistan. He worked in various capacity in different parish churches under the Diocese of Khulna. He is best remembered for working for the upliftment of the poor.

Source: www.xaviermissionaries.org/M_Stories/Martyrs/Vern7.htm

  • Father Lucas Marandi (1922 – 1971):

Father Lucas Marandi, belonging to the local Santal ethnic group, was a diocesan priest for 18 years under the Diocese of Dinajpur, East Pakistan (now Bangladesh). In 1971, he was the parish priest of the Immaculate Heart of Mary Catholic Church at Ruhea in Thakurgaon District. He had a strong patriotic feeling for his country when the West Pakistani army began their bloody crackdown on the East Pakistani on March 25, 1971.

Thousands upon thousands of East Pakistanis in various districts and localities were fleeing the merciless attacks of the West Pakistani soldiers. Many were taking refuge in different border districts of India.

Father Marandi received the news that four Catholic mission centres of the Diocese of Dinajpur were abandoned after the military plunderings. In the Ruhea area itself, most of the members of the minority groups and many Muslims left their abodes and fled to nearby India. His parishoners, through messengers, were appealing him time and again to leave Ruhea and join them in India.

Finally, Father Marandi decided to move. He got the church bullock cart loaded with the parish archives and his personal belongings. He told the cart driver to move towards the border that was marked by the shallow Nagor River, six miles ( kilometres) away. He then reached the riverbank on his motor cycle.

When the cart reached the designated spot, the cart and he himself on the motor cycle crossed the river together. On reaching the Indian side of the river bank, he turned toward the Ruhea Church and kept on looking intently for quite some time. His companions could realize that something ominous was going on in his mind. When someone told him to make a move towards India, Father Marandi turned toward him and said gravely: “No, it has all been a mistake! Let’s go back to Ruhea!” He then crossed the river and started to return to his church.

Father Lucas Marandi was all alone in the Ruhea church compound except a few Catholics living nearby. After three days, on April 21, 1971, a West Pakistani army jeep pulled up at the priest’s residence. Father greeted them and offered them tea and biscuits. They then left for the north. He felt quite relieved of his tension, but temporarily. After three hours the jeep returned.

Father Marandi came out again, but the soldiers pushed him inside his residence and started to torture him for the next 15 minutes or so. They bayoneted his face beyond recognition. Blood splattered all over the walls. When they left the compound, mortally wounded Father was dying.

A few Catholics who lived nearby rushed in to see what had happened. Seeing his grave condition, they decided to take him to India by the very bullock cart that Father had used earlier. Before reaching the destination, Father Lucas Marandi expired. His corpse was taken to the Catholic Church at Islampur on the Indian side of the border where he is still buried.

Sooner they left the church compound then a bunch of local looters appeared and ransacked the church and priest’s residence and carried away everything available.

Source: Catholic Beginnings in North Bengal by Father Luigi Pinos, P.I.M.E.
(Saidpur: Catholic Church, 1984), pp.26-27)

These three priests are the testimonies of the crimes against humanity perpetrated by the ferocious and brutal West Pakistani soldiers.

Used with permission from Jerome D’Costa:

http://bangladeshcanadaandbeyond.blogspot.com/2009/03/bangladesh-war-of-independence-west.html

A Tribute to My Father – Dr. Peter D’Costa, B.H.

By Jerome D’Costa

Photo Courtesy: Studio ‘H’ (Nawabpur, Dhaka)

My father, Dr. Peter D’Costa, B.H. (Bachelor of Homeopathy), also known as ‘P. D’Costa Sir’ to the students of St. Gregory’s High School in Dhaka, was born at Rangamatia Village of the then Dhaka District (now Gazipur District) on January 5, 1904.

After passing Class (Grade) 3 from Kaliganj Pilot School, Dt. Dhaka, he was semt to study at St. Anthony’s High School in Calcutta. After the Entrance Examinations, he taught at the same school and studied Homeopathy at night at the Dunham College of Homeopathy, Calcutta. After four years, he received his B.H. degree and was awarded the ‘Ratimanjari Dassi Memorial Medal’ for scholastic achievement.

After one year of independence of Pakistan, he returned to his village and practised homeopathy medicines. As the financial condition of the newly-independent country was not strong, he could not do well financially in his practice. In 1951, he left for Dhaka and joined St. Gregory’s High School (English Medium) as a teacher in the primary section. In 1968, he retired from teaching after suffering a stroke.

He was spending his retired life in the village when on November 26, 1971, the West Pakistani armed forces attacked the village and killed 14 persons including him and burnt down about 90% of the houses.

When we received the news that the military started wading thigh-deep water in the beel (marsh) to come to attack the village, men sent their womenfolk and children away to another village on the other side of the small canal. We did the same with my mother Agnes D’Costa, a teacher of Rangamatia Catholic Primary School, and my adopted sister.

In the weekend I had come from work with the Pratibeshi weekly in Dhaka and could not return due to military and mukti bahini (freedom forces) confrontations in different places, including Kaliganj). So on this Friday, November 26, with fright, my father and I were watching the fires at the far end of the village in the west as well as hearing wheezing bullet sounds over the trees. I tried to coax my father, who could walk with some difficulty with the help of a cane, to go with me as far away as possible, but he refused and said: “If they see me old and sick and still kill me, let them do so. I would rather die at home than in the fields and jungles.”

When the bullet sounds became louder, I asked my father to go away with me and again he refused. Then I said that “I have to leave because if they find a young person, they would capture or kill him instantly.” He told me to leave immediately. I touched his hand for the last time and left home and ran towards the other village in the north. As I neared the canal, one bullet wheezed past a few inches by me and struck one of the bamboo trees and divided it in the middle. It scared the hell out of me and I shouted: “Jesus, save me!” and jumped over a cane bush and fell into the canal. I waded knee-deep water and climbed over the side of the canal and reached the other side.

Behind the houses in the field I find about three hundred villagers — men, women and children — huddled on the ground. My future wife and members of her family were also there. A few minutes later, we see two muktijuddas (freedom fighters) running past us away to the east. I shouted and asked them whether they had fired at the soldiers. When they said “yes”, my common sense told me that the soldiers would definitely come to the other side of the canal and search for the freedom fighters.

I told my future father-in-law, Joachim Costa, a teacher of St. Joseph’s High School in Dhaka, that the army would definitely come and, if they find us, would finish us all. He told me to take my engaged finance, her mother and others and walk further up towards the east. As we started to move, others also followed us. We first went to the villages of Deolia and Baktarpur and then finally, just before evening, reached Kapashia village, about three miles north-east. It was a Muslim village where we never set foot in our life. They received us with such care and empathy that we immediately felt at home. They immediately began to offer us water and muri (puffed rice) followed by emptying of some of their rooms for our stay! We will never forget this sacrificing hospitality.

Those who did not move from near the canal, that we left earlier, were ultimately killed by the army.

Please read the rest of the article here.

Pakistani Army Desecrated Churches in 1971

They even desecrated the church
They even desecrated the church

Jerome D’Costa

I had written the above report in early 1972 narrating the attack of the West Pakistani soldiers in late November of 1971 on our Rangamatia Village in the then Dhaka District (now Gazipur District). Fourteen persons, including my father Dr. Peter D’Costa, B.H., were killed on that day and about 90% of the houses of the village were set on fire and burnt down by the enemy.

Later they also returned and entered the Rangamatia Catholic church compound and desecrated and looted the Sacred Heart Church and pillaged the adjoining parish priest’s house and the nuns’ convent after breaking their locks.

During the deadly crackdown of March 25, 1971 night, the West Pakistani forces also fired indiscriminately in old Dhaka hitting St. Thomas Anglican Church’s belfry with a canon shell. The shell and bullet marks on the front wall were visible for sometime after that infamous day.

West Pakistani soldiers also had forcibly occupied a Protestant church at Akhaura in Brahmanbaria District and turned it into a war prison where captured Bangalis were tortured. Indian photojournalist Robin Sengupta, who covered the war between India and East Pakistan in December, 1971, gave a photo of that church in his April 2000 book (page 57) in Bengali Chitra-Shangbadiker Cameraye Muktijuddha (The Liberation War Through the Lens of a Photojournalist).

The Original Report on Attack on Rangamatia Village

Since the double-clicking of the above image does not give good enough enlarged version of the report for easy reading, I am reproducing below the report that had appeared in The Nation, the first English daily from the free soil of Bangladesh, dated February 4, 1972 (I took the liberty to add some commas, add meanings or explanations in the first bracket for easy understanding of present-day readers, and break a few longer paragraphs into shorter ones):

They Even Desecrated the Church
By Jerome D’Costa

It was black Friday, November 26, 1971. On that fateful day, the blood-thirsty army men of General Yahya had let loose a reign of terror in the village of Rangamatia, three miles north-west of Kaliganj in the district of Dacca [now written as ‘Dhaka’].

The killers of the Bengalees [Bangalis] reached Doripara, which was between Arikhola and Pubail railway stations, where earlier the railway line was destroyed by the Mukti Bahini [freedom fighters] in cooperation with the villagers, and began to barrage the village of Rangamatia with rifle and submachine gun shots in order to make further advance.

When the army men began to wade the beel [marsh] through knee-deep water, a few Mukti Bahini boys, who were guarding the village, fired at them and wounded three invaders. As the fighting young men were outnumbered by the invaders, they could not defend the village as was expected earlier. The hordes of Yahya entered the village with all the fury and set fire to the whole Christian village and machine-gunned fourteen villagers of all ages.

Rev. Father Houser, C.S.C., an American priest residing in the Mission, along with the Sisters from the convent had to take refuge in a paddy field in order to save themselves from the gruesome barbarity of the Pak forces.

Later the aggressors pitched a camp near the damaged railway bridge [half-a-mile away]. When the priest used to go to visit his people in the far-flung villages, where they had fled earlier, the army men would come to the church compound and loot the valuables. They broke open the priest’s house and took away everything worthwhile and made a mess of the church records and files. For safety’s sake earlier, many Christians had kept their valuables in the priest’s house. All of them had been stolen.

They forcibly opened the church door and broke the tabernacle on the altar, which is considered most holy by the Christians, and took away all the holy articles used in the religious ceremonies. One large statue of Christ, which was kept above the altar, was thrown down from there and broken into pieces. They also looted the nuns’ convent.

This way, the homiciders gave vent to their anger which was caused by the heroic Mukti Bahini, when a few days ago, they had killed 30 Pakistani soldiers and gained control of and flew Bangladesh flag on Kaliganj. The army tried in various ways to recapture this vital place but failed. They even used a tank to crush our valiant young men but could not succeed. As a last resort, they airraided Kaliganj, heinously attacked Rangamatia and regained control of the area after much effort.

The brave and ever hopeful people, who lost their houses and some members of their families, did not despair at all. Their will power had hardened like steel and they were ready to make any sacrifice for the independence of Bangladesh which came into reality a few days later [on December 16, 1971].

An eye witness to surrender – Mazher Saeed, Pakistani naval officer

Mazher saeed, a Pakistani naval officer on merchant ship “Karnaphuli” expressed his feelings and accounts on 71 war:

“I am an honorary naval officer recruited in the mid of august by an scheme of navy to recruit the officers and seamans. Because most of the naval crew left the merchant and naval vessels due to being Bengalis as it was an operation going on in East Pakistan.

After the training me and some of my batch mates signed on the merchant ship “Karnaphuli” whose main task is to supply arms and ammunition to East Pakistan forces from West Pakistan. We were determined to perform our duties against the rebels who were fighting against Pakistan sovereignty. As it was commonly being said on those days that Bengalis are gaddars etc. etc.

In mid of October our ship was ready to sail across the Indian ocean for the supply of ammunition and food for army. And we were successful in doing that and return to Karachi with out any difficulties. In a period of a month we are given another task to again supply the arms from west to East Pakistan but this time it was really a hard job for us to sail safely across Indian ocean. There was rumors and news all around that hostilities with India is about to commence. So we were given strict orders to sail as far as from Indian coast to avoid detection. Our ship safely reached the Chittagong port on 9 December and unloaded the ammunition quickly and in a carefull manner but due to intense air raids from Indian air force we failed to unload some assets. Then we went back to sea to avoid attack from air. This thing continued till 12 Dec when our ship was again back to port to unload our cargo suddenly two IAF planes approached from the heights of sky and fired two missiles on our ship. One of those missiles exploded in our engine room entering from the top deck and in a few minutes our captain gave us the orders to quit the ship and ran for the safety of there lives.

After the sinking of “Karnaphuli” the whole crew of the ship decided to fight along with the army to save motherland from Indian aggression. We got some ammunition and our orders was to join the company fighting outside the city. When we enter in the city it was shocking for all of us. We didn’t believe on our eyes that what has suddenly happened to all the city. A total destruction of humanity and Islamic values were going on. Our army was busy in fighting with the common people. The mentally of soldiers and there morale was completely destroyed. The company major told us that its all happened by the orders of our “great leaders” we did not get a chance to fight with Indians but we got a chance to see the destruction in East Pakistan.”

Afterwards Eastern Command surrendered and we all become POWs. In the Jail i asked the question of That mass killings of people we saw in the cities and villages to the army officers and soldiers and then they told us that by the orders of some Generals the authority was given to officers to shoot any one they sight and do any thing they want to suppress these Benglais. And those officers who are present in the city and villages were responsible for these whole picture.

We also witnessed that the soldiers and officers who should prefer suicide then doing all these things in the end surrendering to Indian army. After 2 years of imprisonment we were finally released from Indian jails and reached our homes. We were all completely mentally disturbed and ashamed for what we see in this ruthless and brutal war against our brothers and sisters.

After some days news were came that about 3 million peoples were killed and 200,000 women were raped by the army in the Eastern Theater. In the end I just want to say to my Bengali brothers that mass killings and raping of women were surly done by some officers and soldiers from the orders of their superiors to do what ever they want to suppress the uprising “but not in such numbers”.

Islam teaches us that the sin to kill one human is equal to kill thousand and also the sin to rape a women also regarded in such manner and such people should be killed in front of a people by crushing their evil heads. But we should also not forget that some officers and soldiers did not perform these ruthless things and they would prefer suicide instead to perform such things and to face surrender. Allah will surely not forgive those who did these unislamic things whether it was Pakistan army or the freedom fighters.”

Retrieved from here

পাকিস্তানে গণহত্যা

দি সানডে টাইমস ২০ জুন, ১৯৭১

অনুবাদ: ফাহমিদুল হক

[গত সপ্তাহে সানডে টাইমস পূর্ব-পাকিস্তানে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর নিপীড়ন সম্পর্কিত এন্থনি ম্যাসকারেনহাসের প্রতিবেদন ছাপিয়েছিল। এখন আমাদের হাতে পূর্ব-পাকিস্তান সংশ্লিষ্ট আরও সাম্প্রতিক ও সম্ভবত আরও ভয়ংকর তথ্য রয়েছে। এই তথ্যগুলো এন্থনি ম্যাসকারেনহাসের দেয়া নয়, কিন্তু এসব তথ্য আমরা পেয়েছি শিক্ষায়তনিক ও প্রফেশনাল সূত্র থেকে যাদের দেয়া তথ্যের সত্যতা সম্পর্কে সংশয় থাকার কোনো সম্ভাবনা নেই।]

পূর্ব-পাকিস্তানে সহিংসতার নতুন অভিযান শুরু হয়েছে। রাষ্ট্রীয় অখণ্ডতার জন্য হানিকর যেকোনো বিচ্ছিন্নতাবাদী শক্তি বা যেকোনো রাজনৈতিক চ্যালেঞ্জের অস্তিত্বকে পুরোপুরিভাবে নির্মূল করার জন্যই এই অভিযান। ঢাকায় সেনা সরকার বাংলাদেশী শক্তিকে পরাজতি করার জন্য দুই দফার আদেশ জারি করেছে। প্রথমত, সব সরকারী চাকুরে শিক্ষক লেখক সাংবাদিক ও শিল্পপতিদের চিহ্নিত করা হয়েছে। দ্বিতীয়ত, সম্ভাব্য বিপজ্জনক ব্যক্তিকে ‘নির্মূল’ করে দেয়া হয়েছে। সেনাবাহিনীর গোয়েন্দা বিভাগ ইতোমধ্যে শিক্ষক, সাংবাদিক ও অন্যান্য প্রভাবশালী বাঙালিদের ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করা শুরু করেছে। সন্দেহভাজন ও বিচ্ছিন্নতাবাদী আওয়ামী লীগের প্রতি সহানুভূতিশীলদের একটি তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। তাদের তিনটি ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে — সাদা, ধূসর ও কালো। সাদাদের কিছু বলা হবে না। ধূসররা তাদের চাকরি হারাবেন বা তাদের জেলে পাঠানো হতে পারে এবং কালোদের হত্যা করা হবে।

সিভিল সার্ভিসের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যেই পদক্ষেপ গ্রহণ শুরু হয়েছে। ৩৬ জন বাঙালি ম্যাজিস্ট্রেটকে হয় হত্যা করা হয়েছে অথবা তারা ভারতে পালিয়ে গেছে। কুমিল্লা, রংপুর, কুষ্টিয়া, নোয়াখালী, ফরিদপুর ও সিরাজগঞ্জে যখন সেনাবাহিনী প্রবেশ করে তখন কর্মরত ম্যাজিস্ট্রেট ও এসপিকে তৎক্ষণাৎ হত্যা করা হয়েছে। ধূসর তালিকার সরকারী কর্মকর্তাদের পশ্চিম পাকিস্তানে বদলী করা হয়েছে। এদের মধ্যে আছেন পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল তসলিম আহমেদ। ২৫ মার্চের রাতে যখন পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ঢাকায় আক্রমণ করে তখন পুলিশ বাহিনী বিদ্রোহ ঘোষণা করে এবং ১৮ ঘণ্টাব্যাপী এক যুদ্ধে লিপ্ত হয়।

সন্ত্রাসী শাসনব্যবস্থায় একটি নতুন উপাদান হলো গেস্টাপো-স্টাইলের ধরপাকড়। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য যাদের দরকার তাদের সবার সামনে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যদের ক্যান্টনমেন্টে ডেকে পাঠানো হয়েছে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য। তাদের বেশিরভাগই আরে ফিরে আসেন নি। যেসব গোপন এজেন্টরা এই ধরপাকড়ে সহায়তা করে থাকে তারা ‘রাজাকার’ নামে পরিচিত। রাজাকার প্রত্যয়টি সর্বপ্রথম ব্যবহৃত হয় হায়দ্রাবাদের নিজামের স্বেচ্ছাসেবকদের সম্পর্কে, ভারত ১৯৪৮ সালে রাজ্যটিকে অধিগ্রহণ করতে চাইলে যারা বাধাপ্রদান করে। রাজাকার শব্দের অর্থ হলো রাজার বা রাষ্ট্রের আদেশ পালন করা। ঢাকার রাত ও দিনের বিভিন্ন অংশে এখন সৈন্যরাই রাজত্ব কায়েম করেছে এবং তাদের কাজ হলো “হিন্দু, আওয়ামী লীগার ও ছাত্র”-দের খুঁজে বের করা। সবাইকে একটি পরিচয়পত্র বহন করতে হচ্ছে। যত্রতত্র বসানো চেকপোস্টে গাড়িকে থামানো হচ্ছে।

যদি চেকপোস্টে কারো পরিচয়পত্র না পাওয়া যায়, ও কেউ যদি জওয়ানদের কথা শুনছে না বলে মনে হয় তবে তাকে ক্যান্টনমেন্টে ধরে নিয়ে যাওয়া হতে পারে। ঢাকায় মাঝে মাঝেই বোমা বিস্ফোরিত হচ্ছে এবং তার পর থেকে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। সেনাবাহিনীর লোকজন নিরাপত্তাব্যবস্থা কড়াকড়ি করে মূলত ‘দুস্কৃতিকারী’-দের খুঁজে বেড়াচ্ছে, যাদের তারা নাম দিয়েছে মুক্তি ফৌজ (মুক্তিযোদ্ধা)। সেনাবাহিনী যে-এলাকা ‘দুস্কৃতিকারী’-মুক্ত করে ফেলছে সেখানে তাদের পরিবর্তে মিলিশিয়ারা স্থান দখল করছে। এরা সেনাবাহিনীর লোকজনের চাইতেও নিষ্ঠুর, কিন্তু তাদের চাইতে কম নিয়মনিষ্ঠ। তাদের দৈনিক তিন রুপি করে দেয়া হচ্ছে এবং পূর্ব পাকিস্তানে লোভ দেখিয়ে আনা হয়েছে যে, লুটের ভাগ তাদের দেয়া হবে।

পূর্ব পাকিস্তানের হিন্দু সংখ্যালঘু ও বেঁচে-যাওয়া বাঙালি জাতীয়তাবাদীদের ওপর নিষ্ঠুর অত্যাচার চালানো হয়েছে। জগন্নাথ কলেজের তরুণ ছাত্র শংকর ২৭ মার্চ কাছাকাছি একটি গ্রামে লুকিয়ে ছিল। তার ঠাটারি বাজারের বাড়িচি কী অবস্থায় আছে তা দেখার জন্য সে দু-মাস পরে একাই ফিরে আসে। অবাঙালিরা তাকে চিহ্নিত করে এবং “হিন্দু, হিন্দু” বলে চিৎকার করে তাড়া করে এবং তাকে ধরে দল বেঁধে মসজিদে নিয়ে গিয়ে তার জিহ্বা কেটে ফেলে। ভোলার ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল আওয়ালের অনুগত সরকারী কর্মকর্তা বলে খ্যাতি ছিল। যখন আওয়ামী লীগের লোকজন বিক্ষুব্ধ হয়ে আক্রমণ করে তখন তিনি অবাঙালিদের তাদের হাত থেকে রক্ষা করেছিলেন এবং মুক্তিফৌজ পুলিশ স্টেশনে হামলা করলে স্টেশনের অস্ত্র-শস্ত্র তাদের হাত থেকে রক্ষা করেন। সেনাবাহিনী যখন পহেলা মে আক্রমণ করে তখন তিনি তাদের অভ্যর্থনা জানাতে গিয়েছিলেন। এ-অভিযানে দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার তাকে তার দায়িত্ব আবার বুঝে নেবার জন্য নির্দেশ করেন, কিন্তু নির্দেশ পেয়ে তিনি পেছনে ঘুরতে না ঘুরতেই সেপাইয়ের গুলিতে মারা যান।

ডজন খানেক বাঙালি অফিসারকে পশ্চিম-পাকিস্তানে বদলি করা হয়েছে। তারা তাদের পরিবারকে বিদায় জানিয়েছিলেন এবং করাচির উদ্দেশে পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে ওঠেন বলে জানা গিয়েছিল। কিন্তু তাদের পরিবারের সদস্যরা সেনাসদরে জানতে গেলে তাদের বলা হয় অফিসাররা চলে গেছে। কিন্তু একজন মেজরের ছিন্নভিন্ন লাশ তার পরিবারকে দিয়ে দেয়া হয় এবং বলা হয় তিনি আত্মহত্যা করেছেন।

ব্রিগেডিয়ার মজুমদার ছিলেন একজন বিখ্যাত বাঙালি অফিসার। কিন্তু তার কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। চট্টগ্রামে বাঙালি সৈন্যরা যখন বিদ্রোহ করে, তখন তিনি তার পাঞ্জাবি সহকর্মীদের সঙ্গে অবস্থান করছিলেন। তার পরিবার তার সম্মন্ধে জানতে চাইলে তাদের বলা হয়, যেকোনো ধরনের জিজ্ঞাসা বিপদ নিয়ে আসতে পারে। ২ জুন রাতে ঢাকার ধানমন্ডি আবাসিক এলাকায় সেনাবাহিনীর জিপ প্রবেশ করে। হক নামের একজন সরকারী কর্মকর্তাকে বাড়ি থেকে বের করে নিয়ে আসা হয় এবং কুর্মিটোলা ক্যান্টনমেন্টের উদ্দেশে তাকে নিয়ে যাওয়া হয়। তার স্ত্রী পূর্ব পাকিস্তান সরকারের বেসরকারী প্রধান শফিউল আজমকে ফোন করেন। তিনি সেনাবাহিনী সদরদপ্তরে ফোন করলে তাকে জানানো হয় হক নামের কাউকে নিয়ে আসা হয়নি।

রণদা সাহা নামের একজন শিল্পপতিকে বলা হলো তার মির্জাপুরের গ্রামের বাড়িতে সেনা অফিসারদের জন্য উৎসব-সন্ধ্যার আয়োজন করতে। তিনি আয়োজনের ব্যাপারে আলাপ করতে গিয়ে আর ফিরে আসেন নি। সৈন্যরা আমিন নামের একজন বেসামরিক কর্মকর্তার বাড়ি ঘিরে ফেলে। তাকে বৃদ্ধ বাবা-মা, স্ত্রী ও তিন সন্তানসহ সৈন্যদের একটি ট্রাকে করে নিয়ে যাওয়া হয়। তার আর্মি অফিসার ভাই বেঙ্গল রেজিমেন্টে ছিলেন। বেঙ্গল রেজিমেন্ট বিদ্রোহ ঘোষণা করেছিল এবং বর্তমানে তিনি কুমিল্লার কাছে বাংলাদেশের জন্য প্রতিরোধ-যুদ্ধে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। আমিন-পরিবার দুই দিন পরে ফিরে আসে আমিনকে ছাড়াই।

১৫ নভেম্বর একজন ক্যাপ্টেন ঢাকা মিটফোর্ড হাসপাতালে দু’জন সৈন্য নিয়ে আসলেন এবং দুই নম্বর ওয়ার্ডে গিয়ে ডাঃ রহমান ও তার সহকর্মীকে নিয়ে গেলেন। তাকে বলা হলো ময়মনসিংহে তাকে কাজ করতে হবে। তাদের খবরাখবর এখন আর জানা যায় না। অন্য সৈন্যরা আমেরিকা পরিচালিত হলিফ্যামিলি হাসপাতালে গেল, কিন্তু সেখানে কোনো শল্যচিকিৎসক ছিলেন না। হাসপাতালটি বন্ধ করে দেয়া হবে বলে এখন ভাবা হচ্ছে। কারণ বিখ্যাত শিশু বিশেষজ্ঞ ডাঃ এম এন হকসহ অনেকেই পালিয়েছেন।

সিলেট শহরে যখন সেনাবাহিনী প্রবেশ করে তখন প্রধান শল্য-চিকিৎসক ডাঃ শামসুদ্দিন ছাড়া সকলেই সীমান্ত অতিক্রম করে পালিয়ে গেছেন। ডাঃ শামসুদ্দিনকে অপারেশন থিয়েটারে পাওয়া যায় এবং একজন মেজর তাকে গুলি করে হত্যা করেন। পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের অনেক অনেক সিনিয়র বাঙালি অফিসারকেই পাওয়া যাচ্ছে না। এদের মধ্যে আছেন উপমহাব্যবস্থাপক ফজলুল হক এবং প্রধান সেক্টর পাইলট ক্যাপ্টেন সেকেন্দার আলি। সেনাবাহিনী ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে এয়ারলাইনটি ২,০০০ বাঙালিকে বরখাস্ত করেছে। রাজাকাররা মেজর খালেদ মোশাররফের দুই সন্তানকে আটকে রাখে। বাচ্চা দু-টির বয়স ছিল ছয় ও চার। তাদের মা রক্ষা পেয়েছিলেন এবং এখন ভারতে অবস্থান করছেন। বাচ্চা দু-টিকে ছেড়ে দেয়া হয় এবং তাদের এরপর গ্রহণ করা হয়।

নিখোঁজ লোকজনের আত্মীয়রা মনে করেন রাজাকার এবং জুনিয়র সেনা অফিসাররা অবাঙালিদের নিয়ে স্বাধীনভাবে কাজ করছে। কিছু পরিবারের কাছে মুক্তিপণ দাবি করা হচ্ছে কিন্তু টাকা দেবার পরও ফলাফল পাওয়া যাচ্ছে না। রাজাকাররা তাদের কর্মকাণ্ড হত্যাকাণ্ড থেকে পতিতা-সরবরাহ পর্যন্ত বি¯তৃত করেছে। চট্টগ্রামের আগ্রাবাদে তারা একটি ক্যাম্প চালাচ্ছে যেখান থেকে রাতে কমবয়েসী মেয়েদের সিনিয়র অফিসারদের পাঠানো হয়। তারা তাদের কাজের জন্য মেয়েদের অপহরণও করছে। কেউ কেউ ফিরে আসে নি। একজন প্রথম সারির গায়িকা ফেরদৌসীর বাসায় অফিসাররা প্রবেশ করে, তিনি অল্পের জন্য বেঁচে যান। তার মা একজন পরিচিত জেনারেলের কাছে ফোন করেন এবং তার নিরাপত্তার জন্য মিলিটারি পুলিশ নিয়োগ করা হয়।

সাম্প্রতিক সময়ে কিছুটা উন্নতি হলো যুক্ত সরকারের বিরুদ্ধে মার্চের প্রথম দিকে শেখ মুজিবের অসহযোগ আন্দোলনে যোগ দিয়ে কর্মক্ষেত্রে অনুপস্থিত থাকা গোয়েন্দা বিভাগের কিছু কর্মকর্তা কাজে ফিরে এসেছেন। এখন তারা সেনাবাহিনীর জন্য ‘অনাকাঙ্ক্ষিত’ লোকদের নাম বলে দিতে বাধ্য। এভাবে ২৫ ও ২৬ মার্চের মতো ভুল লোককে ধরার ব্যাপারাটি আর থাকছে না। ঐ দুই রাতে সেনাবাহিনী ২০ জনেরও বেশি বিশ্ববিদ্যালয়-শিক্ষককে হত্যা করেছিল। এদের মধ্যে বাংলা বিভাগের মনিরুজ্জামানের পরিবর্তে পদার্থবিদ্যা বিভাগের মনিরুজ্জামানকে হত্যা করা হয়েছে। বাংলা বিভাগের মুনীর চৌধুরীর পরিবর্তে ইংরেজি বিভাগের মি. মোনায়েমকে হত্যা করা হয়েছে। সামরিক আইন প্রশাসক জেনারেল টিক্কা খানের প্ররোচনায় কিছু শিক্ষক পহেলা জুন কর্মক্ষেত্রে যোগ দেন কিন্তু তাদের মধ্যে কেউ কেউ রাজাকারদের হাতে পড়েন।

সেনা-প্রশাসন খোলাখুলি অনুমোদিত না হলেও রাজাকারদের কর্মকাণ্ড তাদের সবই জানা। কখনো কখনো তারা ভাবনার বিষয়। সম্প্রতি ঢাকার কয়েকশ’ পাটশ্রমিককে কাজে যোগ দিয়ে উৎপাদন শুরুর ব্যাপারে রাজি করানো হয়েছিল। ২৯ মে তাদের তিনজন ট্রেড ইউনিয়নের নেতাকে সেনাবাহিনীর জিপে তোলা হয়। পরের দিন শ্রমিকরা পালিয়ে যায়।

৬০ লাখ শরণার্থীর ফিরে আসার সমস্যাটির সমাধান খুবই কঠিন। ঢাকা, যশোর, রংপুর, ঈশ্বরদী, খুলনা ও চট্টগ্রামে তাদের ঘরবাড়ি ও দোকানপাট অবাঙালিরা দখল করে নিয়েছে। সেনাবাহিনীর সাহায্য নিয়ে তারা মিরপুর ও মোহাম্মদপুর এলাকা পরিস্কার করে ফেলেছে। তাদের চলে যাবার জন্য সতর্ক করে দেয়া হয়েছিল। কিন্তু যারা থেকে গিয়েছে তাদের প্রত্যেককে হত্যা করা হয়েছে। এই দুটি আবাসিক এলাকা ঢাকার ১৫ বর্গ কিলেমিটার জায়গা জুড়ে বি¯তৃত। যশোরে আওয়ামী লীগের নেতা ও জাতীয় পরিষদের সদস্য মশিউর রহমানের বাড়ি সেনাবাহিনী ঘিরে ফেলেছিল এবং অবাঙালি বেসামরিক লোকরা গিয়ে প্রত্যেককে হত্যা করেছে। দোতলার জানালা দিয়ে ১০ বছর বয়সী এক কিশোর লাফ দিয়েছিল এবং শূন্যে থাকা অবস্থায়ই একজন সেপাই তাকে হত্যা করে।

দেশবিভাগের সময় পূর্ব পাকিস্তানে আসা শরণার্থীদের জন্য কাজ করে এরকম সংগঠন হলো ‘শান্তি কমিটি’, যারা রাজাকার সমর্থিত। তারা বাঙালিদের রেখে যাওয়া বাড়ি ও দোকানপাট ‘বরাদ্দ’ নেয়ার জন্য আবেদনপত্রের আহ্বান জানিয়ে সংবাদপত্রে নোটিশ দিচ্ছে। চট্টগ্রামে লালদীঘি ও রিয়াজউদ্দিন বাজারের দোকানপাটের তালা ভেঙ্গে সেনাবাহিনী সেগুলো অবাঙালিদের হাতে তুলে দিয়েছে। দখল নেয়া সকল সম্পত্তিতে এখন পশ্চিম পাকিস্তানের ভাষা উর্দুতে সাইনবোর্ড ঝুলছে।

গ্রামে বাড়িগুলো বিতরণ করা হয়েছে ডানপন্থী দল জামাতে ইসলামী ও মুসলিম লীগের সদস্যদের মধ্যে, যারা গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের কাছে শোচনীয়ভাবে পরাজিত হয়েছিল। সন্দেহভাজন আওয়ামী লীগের সমর্থক ও হিন্দুদের ব্যাংক একাউন্ট জব্দ করা হয়েছে। ঢাকাস্থ ব্রিটিশ ন্যাশনাল ও গ্রিন্ডলেজ ব্যাংকের ব্যবস্থাপক ছিলেন একমাত্র ব্যক্তি যারা এআদেশের ব্যাপারে প্রশ্ন তুলেছিলেন।

প্রধান রেলওয়ে, বন্দর ও ডকগুলোতে বাঙালিদের কাজ করা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। পহেলা মে তারিখে যখন চট্টগ্রামের ৫,০০০ ডক শ্রমিক কাজে যোগ দিতে ফিরে আসে তখন তাদের তাড়িয়ে দেয়া হয়। স্থাপনাগুলো এখন সেনাবাহিনীর সদস্য ও অবাঙালিদের দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে। চট্টগ্রামের সিনিয়র রেলওয়ে কর্মকর্তাদের গুলি করে হত্যা করা হয়েছে এবং শ্রমিক-কলোনি জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে। ঢাকা, ঈশ্বরদী ও সৈয়দপুরে কোনো বাঙালি ঢোকার সাহস পাচ্ছে না। ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে বাঙালিদের স্থান পূরণ করতে ২৫০ জন বন্দর-কর্মীকে পশ্চিম পাকিস্তান থেকে আনা হয়েছে। তিন হাজার পাঞ্জাবী পুলিশ এখন ঢাকায় টহল দিচ্ছে এবং ঢাকার বাইরে উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশের খাইবার রাইফেলস্ ও পশ্চিম পাকিস্তান বর্ডারের রেঞ্জাররা একই কাজ করছে।

পূর্ব পাকিস্তান রাইফেলসের বিদ্রোহী ১০,০০০ আধা-সামরিক সদস্য হয় সীমান্ত অতিক্রম করে চলে গিয়েছে অথবা গ্রামে লুকিয়ে আছে। যারা ১৫ মে একটি সাধারণ ক্ষমার ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকায় আত্মসমর্পন করেছিল, তাদের চোখ ও হাত পিছমোড়া করে বাঁধা অবস্থায় খোলা ট্রাকে করে নিয়ে যেতে দেখা গেছে। কিছুদিন পরে বুড়িগঙ্গা ও শীতলক্ষ্যা নদীতে শত শত শবদেহ ভাসতে দেখা যায় যাদের চোখ হাত বাঁধা ছিল। পূর্ব পাকিস্তান রাইফেলসের নাম পরিবর্তন করে এখন রাখা হয়েছে পাকিস্তান ডিফেন্স ফোর্স এবং শত শত বিহারীকে সেখানে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। তাদের এখন পিলখানায় বন্দুক ও মেশিনগানসহকারে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।

২৮ মে ঢাকার খিলগাঁওয়ে একটি অবাঙালি দোকানো বোমা বিস্ফোরিত হলে ১০০ জন সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়া হয়। মতিঝিলে একজন অবাঙালি তার প্রতিবেশীর কাছ থেকে ১০,০০০ রুপি (প্রায় ৬০০ পাউন্ড) দাবি করে এবং ২৪ ঘন্টার মধ্যে এই অর্থ প্রদান করা না হলে সেনাবাহিনীর কাছে ধরিয়ে দেয়া হবে বলে হুমকি দেয়া হয়। ঢাকার স্টেডিয়াম মার্কেটের একজন রেডিও ও ক্যামেরা বিক্রেতা গত ১২ মে তার দোকানের জিনিসপত্র চুরি হয়ে গেলে সে ঘটনাটি সামরিক আইন সদর-দফতরে জানায়। সেই রাতে কারফিউর সময় তার দোকানে আগুন জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ফেলা হয়।

বেগম মাজেদা নামের একজন গৃহিণী রাস্তার একটি ট্যাপ থেকে পানি নিচ্ছিল। দু’জন পাঞ্জাবি পুলিশ চেষ্টা করছিল তাকে ট্রাকে উঠিয়ে নেয়ার জন্য। গৃহিণীটি চিৎকার দিলে পাঞ্জাবি পুলিশ দু’জনকে লাঠি ও পাথর দিয়ে মারধর করা হয়। সেরাতে পুরো বাসাবো এলাকায় আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। ঢাকার রাস্তায় এখন হাতঘড়ি পরাও ঝুঁকিপূর্ণ এবং রেডিও ও টেলিভিশন এখন সবাই ঘরের কোণায় লুকিয়ে রাখে। সৈন্যরা লুট করা ট্রান্সিসটর, টেলিভিশন সেট ও ঘড়ি রাস্তায় ৩ পাউন্ড থেকে ৬ পাউন্ডে বিক্রি করছে।

কর্নেল বারী নামের একজন অফিসার পাকিস্তান স্টেট ব্যাংকে এক কোটি টাকা (৮৩৩,০০০ পাউন্ড) জমা করেছেন। এখন শহরগুলোকে সাফ করার জন্য উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। কারণ মে মাসে বিদেশী সাংবাদিকদের একটি ছোট দল ঢাকা সফর করার কথা। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের জগন্নাথ ও ইকবাল হল থেকে মৃতদেহ সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এছাড়া শাঁখারিপট্টি, ঠাঁটারিবাজার, শান্তিনগর ও রাজারবাগে শেল নিক্ষেপের কারণে সৃষ্ট গর্তগুলোকে পূরণ করা হয়েছে। স্কুল ও কলেজগুলোকে আবার খুলে দেয়া হয়েছে কিন্তু খুব কম ছাত্রই সেখানে রয়েছে। যুদ্ধের পূর্বে একটি স্কুলের ছাত্রসংখ্যা ছিল ৮০০ জন, কিন্ত আবার খুলে দেবার পর সেখানে ছাত্র আছে মাত্র ১০ জন। ১৬ থেকে ২৬ বছরের বেশিরভাগ তরুণ জনগণ সীমান্ত অতিক্রম করে চলে গেছে মুক্তিফৌজ প্রশিক্ষণ-শিবিরে যোগ দেবার জন্য। তাদের মধ্যে এই ভয় ব্যাপকভাবে কাজ করছে যে পূর্ব পাকিস্তানে তরুণ অবস্থায় থাকা অর্থ মৃত্যুবরণ করা …।

উত্তাপ থেকে বেরিয়ে আসা সত্যবক্তা

এন্থনি মাসকারেনহাস
দি টাইমস, ১৩ই জুন, ১৯৭১(?)

অনুবাদ: ফাহমিদুল হক

এন্থনি মাসকারেনহাসকে গ্রানাডা টেলিভিশন (পত্রিকাগুলো এনামেই ডাকে) গত সপ্তাহে সাহসী সাংবাদিকতার জন্য বিশেষ পুরস্কার প্রদান করেছে। করাচির একটি পত্রিকার সহকারী সম্পাদক এবং সানডে টাইমসের প্রতিনিধি মাসকারেনহাস পাকিস্তানের গৃহযুদ্ধ সম্পর্কে রিপোর্ট লিখেছেন। তিনি জানতেন তিনি যা দেখেছিলেন তা তার দেশে ছাপানোর অনুমতি পাওয়া যাবে না। তিনি ইংল্যান্ড থেকে পালিয়ে আসেন এবং সানডে টাইমসে যে রিপোর্ট লেখেন, তা পূর্ব পাকস্তানে কী হচ্ছে সে-সম্পর্কে বিশ্ববাসীর ধারণা পাল্টে দেয়।

স্থান: কুমিল্লা সার্কিট হাউস, পূর্ব পাকিস্তান।
তারিখ: এপ্রিল ১৯, ১৯৭১।
সময়: সন্ধ্যা ৬.১৮।

এটা হলো সেই মুহূর্ত যা আমার জীবন পরিবর্তন করে দিল। কারফিউ ছয়টার সময়ে শেষ হয়েছে। কয়েক মিনিট আগে আমি সেবাস্টিয়ান এবং তার চারজন সহযোগীকে রাস্তা দিয়ে স্থানীয় সামরিক আইন প্রশাসক পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর মেজর আগার অফিসে আসতে দেখলাম। পুলিশের একজন সাব-ইন্সপেক্টরের পেছনে তারা আসলো, তাদের হাত ও পা একটি দড়িতে আলগা করে বাঁধা। তাদের পরনে যে-ইউনিফর্ম পরা ছিল তা নতুন বলেই মনে হলো।

আমি সেই সাব-ইন্সপেক্টরকে স্মরণ করতে পারি। সে-সকালে মেজর আগার অফিসে নারিকেলের দুধ খেতে খেতে তিনি লক-আপে আটকে রাখা বন্দিদের তালিকা দেখালেন। তিনি তার গ্লাস পাশে সরিয়ে রাখলেন। এরপর চারটি নামের পাশে টিক চিহ্ন দিলেন। তিনি বললেন, “এই চারজনকে নিকেশ করার জন্য আনেন”। এরপর তিনি আবার তার তালিকার দিকে তাকালেন। আবার পেন্সিল দিয়ে খোঁচা দিলেন। “এবং এই চোরকে তাদের সঙ্গে আনেন”। আমাকে জানানো হলো ‘চোর’টি হলো সেবাস্টিয়ান নামের একজন যে তার হিন্দু বন্ধুর জিনিসপত্র নিজের বাড়িতে নিয়ে যাবার সময় ধরা পড়ে। এখন কারিফউয়ের পরে আমাকে জানতে হলো নিকেশ করার অর্থ কী। হঠাৎ আমি মারধরের শব্দ শুনলাম এবং এরপর চিৎকার শুনলাম। আরও জোর-আঘাতের শব্দ এবং আরও বিকট চিৎকার শুনলাম। আমি ব্যালকনির শেষ প্রান্তে ছুটে গেলাম কী হচ্ছে তা দেখার জন্য। যখন আপনি দেখবেন মানুষ মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছে, সেই দৃশ্য এবং সেই শব্দ আপনি আপনার স্মৃতি থেকে কোনোদিনই মুছতে পারবেন না।

আমি হতবাক হয়ে গিয়েছিলাম। আমি চিৎকার করতে চাইলাম কিন্তু কোনো শব্দ মুখ থেকে বেরুলো না। তার পরিবর্তে আমি আমার মাথা ও বুকে বিরাট ভার অনুভব করলাম। অসহায়ভাবে আমি চারিদিকে তাকালাম সাহায্যের জন্য। পূর্ব পাকিস্তানে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী যে-গণহত্যা চালাচ্ছে, তার মুখোমুখি আমি এই প্রথম হলাম, তা নয়। কিন্তু এই প্রথম আমি এতো নিষ্ঠুর কিছু দেখলাম। আমি জানালার পাশের একটি নিচু চেয়ারে বসে পড়লাম এবং মানুষগুলোর চিৎকারের দৃশ্য আর দেখতে চাচ্ছিলাম না। এরপর বিষণ্ণভাবে দেখলাম লেক পার হয়ে অনেকগুলো বাদুড় আমার জানালার দিকে আসছে। তাদের দেখতে ভ্যাম্পায়ারের মতো লাগছিল, কিন্তু তারা আসলে খাদ্যসন্ধানী ‘উড়ন্ত শৃগাল’। মনে পড়ে, আমি নিজেকে বললাম, “সত্যিকারের ভ্যাম্পায়াররা তো নিচের তলায়”।

আমি হিটলার সম্পর্কে যা কিছু পড়েছি, তার চাইতে ভয়াবহ কিছু প্রত্যক্ষ করলাম― এবং আমাদের নিজেদের মধ্যেই এসব ঘটছিল। আমি তখনই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম আমার ভাগ্যে যাই ঘটুক না কেন, এই সত্য আমি সবাইকে জানাবো। কিন্তু আমি যা দেখলাম তা হলো, অন্য সৈন্যরা বন্দুক হাতে পুরো ঘটনাবলী দেখছিল এবং অন্যরা নিরবে রাতের খাবার তৈরি করছিল। আমি জানতাম কোনো আশাই কোথাও নেই। আমি হতাশ হয়ে ঘুরে দাঁড়ালাম এবং খালি ব্যালকনির অপর প্রান্তে আমার রুমে ফিরে আসলাম। আমি আমার জীবনের দীর্ঘতম রাতে জেগে জেগে ঠিক করালাম পরের দিন থেকে ঠাণ্ডা মাথায় কাজ করতে হবে, যতটুকু সম্ভব দেখতে ও শুনতে হবে এবং বিস্তারিতভাবে আমার নিজস্ব সাঁটলিপি পদ্ধতিতে লিখে রাখতে হবে যাতে কেউ তা বুঝতে না পারে। এভাবে আমি হাজীগঞ্জের হত্যা ও পোড়ানোর দৃশ্য ও কোনো মানুষকে খুঁজে না পাওয়া, অফিসার্স মেসে ‘টপ স্কোর’-এর প্রতিযোগিতা, এবং ১৬ ডিভিশন হেডকোয়ার্টারে লক্ষ্যের প্রকারভেদ সম্পর্কে আমাকে দেয়া সংজ্ঞা প্রভৃতি জিনিস লিপিবিদ্ধ করি।

আমি করাচিতে ২৫ এপ্রিল এসব নোট নিয়ে ফিরে যাই এবং বাড়ি পৌঁছি ভোর সাড়ে তিনটায়। সেদিন ছিল আমার স্ত্রীর জন্মদিন। সে তার কানের দুলের জন্য গোলাপী মুক্তো চেয়েছিল, কিন্তু আমি তার জন্য সে-উপহার না নিয়ে একটি সিদ্ধান্ত নিয়ে ফিরলাম যা ছিল আমার পরিবারের জন্য বিরাট পরিবর্তনের একটা ব্যাপার। যতক্ষণ না পাচকটি এসে ব্রেকফাস্ট তৈরি করল, স্ত্রী ইভন ও বড়ো দুই ছেলে অ্যালান ও কিথের সঙ্গে আলোচনা করলাম। আমি তাদের বললাম আমি কী দেখেছি এবং কী করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ইভন হতবিহ্বল হয়ে পড়লো। এই সিদ্ধান্তের ফল কী হবে তা তার চাইতে আর কেইবা ভালো বুঝবে। এর ফলে আমাদের সবকিছু পরিত্যাগ করতে হবে, কারণ সামরিক শাসনের পরিস্থিতিতে আমরা কোনো সুযোগই পাবো না। এর অর্থ আমাদের মাথার ওপরের ছাদ, আয়, অর্জিত সম্পদ, সঞ্চয় দ্বারা ক্রয়কৃত বাড়ি করার জন্য জমি― কিছুই থাকবে না। একসময় কিথ বলল, “অবশ্যই আমরা তোমার সঙ্গে যাবো। তুমি অবশ্যই সবকিছু লিখবে”।

তারা সবাই আমার দিকে তাকালো, সম্ভবত প্রথমবারের মতো আমার চোখে গভীর একাকীত্ব তারা দেখতে পেল। আমরা একসঙ্গে কেঁদে উঠলাম, পরস্পরকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরলাম। এটা ছিল সামনের ভয়াবহ দিনগুলোর ও পরবর্তী মাসগুলোতে লন্ডনে নতুন জীবন শুরু করার পারস্পরিক আশ্বাস। আমাদের গোপন সিদ্ধান্তের কথা অন্য কেউ জানতো না। আমরা আমাদের আত্মীয় বা বন্ধুবান্ধব কাউকেই এর মধ্যে জড়াতে চাইনি, বলা যায়, এভাবে বিপদকে এড়াতেই চেয়েছি। আমি লন্ডনে যাবার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম এটা দেখতে যে সানডে টাইমস সংবাদটি ছাপে কি না। অভিজ্ঞ সাংবাদিক হিসেবে আমার বিশ্বাস ছিল যে, একজন পৃথিবীর সেরা সংবাদকাহিনী নিয়ে ফ্লিট-স্ট্রিটের ভবনগুলোতে ঘুরে বেড়াচ্ছে কিন্তু ছাপানোর জন্য কাউকে খুঁজে পাচ্ছে না, তা হতে পারে না। এরপর আমি পত্রিকার জন্য লেখা শুরু করলাম।

সানডে টাইমসের আমার কথা শুনল, সবকিছু গ্রহণ করল এবং আমি থমসন হাউসে প্রবেশ করার চল্লিশ মিনিটের মধ্যেই আমি পাকিস্তানে গিয়ে স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে আসার জন্য প্রস্তুত হলাম। সংবাদকাহিনীটি খুব অল্প সময়ের মধ্যেই গৃহীত হয় এবং সেখানে সাংবাদিকসুলভ সেই প্রবৃত্তি ও সততার পরিচয় পেয়ে এখন পর্যন্ত মুগ্ধ হয়ে রয়েছি।

পাকিস্তান থেকে বের হয়ে আসাটাই তখন বড়ো সমস্যা হয়ে দাঁড়াল। বহিরাগমণের অনুমতি নিতে হবে। যত নিরবে পারলাম, গুছিয়ে নিলাম। কারণ গোপনীয়তা রক্ষা করতেই হবে। সৌভাগ্যক্রমে আমি লন্ডন থেকে হোটেলের কিছু কাগজপত্র নিয়ে এসেছিলাম। আমি সেটা ব্যবহার করে তার ওপরে মিলান-প্রবাসী আমার স্ত্রীর একমাত্র ভাইয়ের (যিনি একজন বিখ্যাত ফ্যাশনডিজাইনার) পক্ষ থেকে তার বিয়েতে সপরিবারে যাবার আমন্ত্রণপত্র লিখলাম, তাতে তার ভাইয়ের সইও দিলাম। পুরো পরিবারের জন্য প্রয়োজনীয় ভ্রমণবিষয়ক কাগজপত্র সেই চিঠির মাধ্যমে পাওয়া গেল। বাইরে থেকে এইমাত্র ঘুরে আসার কারণে আমি সেই ‘বিবাহঅনুষ্ঠান’-এ যেতে অস্বীকৃতি জানালাম।

এরপর আমি সানডে টাইমসে একটি টেলিগ্রাম পাঠালাম: “রফতানির প্রক্রিয়া সমাপ্ত। সোমবারে শিপমেন্ট শুরু হচ্ছে”। সেমতে ৭ জুন, সোমবারে আমি আমার পরিবারকে রোমগামী প্যান-আমেরিকান ফ্লাইটে তুলে দিলাম এবং নিজে লাহোর ও রাওয়ালাপিন্ডিগামী অভ্যন্তরীণ ফ্লাইটে রওয়ানা দিলাম। আমি সেখান থেকে আফগানিস্তানের পেশওয়ার বা কাবুলগামী বিমান ধরার জন্য এই রুটের আশ্রয় নিলাম কারণ উভয় দেশের ঐ দু’টি করে স্থানে পাকিস্তানি ও আফগানদের জন্য যাওয়া-আসা উম্মুক্ত ছিল। এটা একটা দুঃস্বপ্নের যাত্রা ছিল। বিমানে তথ্য মন্ত্রণালয়ের দু’জন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ছিলেন যারা আমাকে ভালোভাবে চিনতেন। তারা যদি সামন্যতম সন্দেহও করতেন তবে আমি গ্রেফতার হতাম। আমি কোনোক্রমে তাদের সঙ্গে আলাপ করে গেলাম এবং প্রতিশ্র“তি দিলাম তাদের সঙ্গে পরের দিন লাঞ্চ করব। রাওয়ালাপিন্ডিতে গিয়ে দেখলাম পেশওয়ারের ফ্লাইট পুরোপুরি বুকড্ হয়ে গেছে। সে-পর্যায়ে আমি যদি ধরা পড়তাম তবে সব ভেস্তে যেত। ফিরে আসার কোনো উপায় ছিল না।

সুতরাং আমি ঠিক করেছিলাম আমাকে বলিষ্ঠভাবে চলাফেরা করতে হবে এবং সেখানে একজন আকর্ষণীয় পাঞ্জাবী তরুণী সাহায্য করেছিল। সে প্যাসেঞ্জার লাউঞ্জে বসে ছিল এবং আমাকে দেখছিল। একজন বিমান কর্মকর্তার হাতে একশ’ রুপির একটি নোট গুঁজে দিয়ে মেয়েটির দিকে ইশারা করে চোখ টিপে গোপনভঙ্গীতে বললাম, “আমার একটি সিট দরকার। আমি মেয়েটিকে সঙ্গে নিয়ে কিছু মজা করার জন্য কাবুলে যাচ্ছি।” এধরনের কাজ করা থেকে পৃথিবীর কেউই আমাকে আটকে রাখতে পারত না। আমি নিশ্চিত আর কোনো কায়দাই কাজে আসতো না। কর্মকর্তাটি আরেকজন লোককে চোরাচালানের সন্দেহে আটকে দিল এবং আমার জন্য একটি সিট যোগাড় করে দিল। আমার উষ্ণভাবে করমর্দন করলাম এবং পেশওয়ার ও কাবুল হয়ে সানডে টাইমসে আমার দেয়া সময় রক্ষা করতে রওয়ানা হলাম। যে-অচেনা মেয়েটি আমার জীবন রক্ষা করল তাকে ধন্যবাদ দেবার কোনো সুযোগ আমি পাই নি। সে আরেকজন মহিলার সঙ্গে সামনের দিকে বসেছিল। কিন্তু যখন আমরা আফগানিস্তানের উদ্দেশ্যে পাকিস্তানের সীমান্ত অতিক্রম করলাম তখন তার উদ্দেশ্যে মনে মনে শ্যাম্পেন দিয়ে উইশ করলাম।

গণহত্যা : এ্যান্থনি মাসকারেনহাস

Genocide_Mascarenhas

দি সানডে টাইমস, ১৩ জুন ১৯৭১

অনুবাদ: ফাহমিদুল হক

পাঁচ মিলিয়ন লোক বাস্তুভিটা ছেড়ে কেন পালিয়ে গেছে সে মর্মান্তিক কাহিনী নিয়ে পাকিস্তান থেকে এসেছেন সানডে টাইমসের রিপোর্টার।

মার্চের শেষ থেকে পাকাসেনারা পরিকল্পিতভাবে হাজার হাজার লোককে হত্যা করে চলেছে। মার্চের শেষ থেকে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের সংবাদ-ধামাচাপা-দেয়ার পেছনের মর্মান্তিক কাহিনী হলো এই। কলেরা আর দুর্ভিক্ষ নিয়েও ৫০ লক্ষ লোকের পূর্ব পাকিস্তান থেকে বেরিয়ে ভারতে চলে আসার এই হলো কারণ।

সানডে টাইমসের পাকিস্তান-প্রতিনিধি অ্যান্থনি ম্যাসকারেনহাস এই প্রথামবারের মতো নিরবতার পর্দা উন্মোচন করলেন। তিনি সেখানে পাকসেনাদের কীর্তিকলাপ দেখেছেন। তিনি পাকিস্তান ছেড়ে এসেছেন বিশ্ববাসীকে সেসব জানানোর জন্য। সেনাবাহিনী শুধু স্বাধীনতা-পূর্ব বাংলা বা বাংলাদেশ ধারণার সমর্থকদেরই হত্যা করছে না। স্বেচ্ছাকৃতভাবে খুন করা হচ্ছে হিন্দু ও বাঙালি মুসলমান সবাইকে। হিন্দুদের গুলি করে বা পিটিয়ে মারা হচ্ছে তারা কেবল হিন্দু বলেই। জ্বালিয়ে দেয়া হচ্ছে গ্রামের পর গ্রাম। অ্যান্থনি ম্যাসকারেনহাসের রিপোর্টের পেছনেও রয়েছে একটি দারুণ গল্প।

মার্চের শেষের দিকে পূর্ব পাকিস্তানে দুই ডিভিশন পাকসেনা গোপনে পাঠানো হয় বিদ্রোহীদের ‘খুঁজে বের করা’র জন্য। কিন্তু দু-সপ্তাহ পরে পাকিস্তান সরকার আটজন পাকিস্তানী সাংবাদিককে আমন্ত্রণ জানায় পূর্ব পাকিস্তানে উড়ে যাবার জন্য। সরকারি কর্মকর্তাদের মাধ্যমে সাংবাদিকদের প্রভাবিত করে পশ্চিম পাকিস্তানের জনগণকে এই ধারণা দেয়াই এর উদ্দেশ্য ছিল যে, দেশের পূর্বাংশে ‘সবকিছু স্বাভাবিক হয়ে এসেছে’। সাতজন সাংবাদিক তাদের কথামতো কাজ করেছেন। কিন্তু তা করেননি একজন — তিনি হলেন করাচির মর্নিং নিউজ পত্রিকার সহকারী সম্পাদক ও সানডে টাইমসের পাকিস্তান-প্রতিনিধি অ্যান্থনি ম্যাসকারেনহাস।

১৮ মে মঙ্গলবার তিনি অপ্রত্যাশিতভাবে এসে হাজির হন লন্ডস্থ দি সানডে টাইমসের কার্যালয়ে। আমাদের জানালেন, পূর্ব বাংলা ছেড়ে ৫০ লক্ষ লোককে কেন চলে যেতে হয়েছে তার পেছনের কাহিনী। তিনি সোজাসাপ্টভাবে জানালেন এই কাহিনী। এই কাহিনী লেখার পর তার পক্ষে আর করাচি ফিরে যাওয়া সম্ভব হবে না। তিনি জানালেন তিনি পাকিস্তানে আর ফিরে না-যাবার ব্যাপারে মনস্থির করেছেন; এজন্য তাকে তার বাড়ি, তার সম্পত্তি, এবং পাকিস্তানের সবচেয়ে সম্মানীয় একজন সাংবাদিকের মর্যাদার মায়া ত্যাগ করতে হবে। তার মাত্র একটি শর্ত ছিল: পাকিস্তানে গিয়ে তার স্ত্রী এবং পাঁচ সন্তানকে নিয়ে ফিরে না আসা পর্যন্ত আমরা যেন তার রিপোর্ট প্রকাশ না করি।

সানডে টাইমস রাজি হয় এবং তিনি পাকিস্তানে ফিরে যান। দশ দিন অপেক্ষা করার পর সানডে টাইমসের এক নির্বাহীর ব্যক্তিগত ঠিকানায় একটি বৈদেশিক তারবার্তা আসে। তাতে লেখা ছিল, ‘আসার প্রস্তুতি সম্পন্ন, সোমবার জাহাজ ছাড়বে।’ দেশত্যাগ করার ব্যাপারে স্ত্রী ও সন্তানদের অনুমতি পেতে ম্যাসকারেনহাস সফল হন। তার দেশত্যাগের ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা ছিল। তবে তিনি কোনোরকমে একটা রাস্তা পেয়ে যান। পাকিস্তানের ভেতরে যাত্রার শেষ পর্যায়ে তিনি প্লেনে একজন তথ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাকে দেখতে পান যাকে তিনি ভালোমতোই চিনতেন। এয়ারপোর্ট থেকে একটি ফোনকল তাকে গ্রেফতার করার জন্য যথেষ্ট ছিল। তবে কোনো ফোনকল হয়নি এবং তিনি মঙ্গলবার লন্ডনে এসে পৌঁছান।

পূর্ব পাকিস্তানে ম্যাসকারেনহাস বিশেষ কর্তৃত্ব ও নিরপেক্ষতা সহকারে যা দেখেছেন তা লিখেছেন। তিনি গোয়ার একজন ভদ্র খ্রিস্টান, তিনি হিন্দু বা মুসলমান কোনোটাই নন। জীবনের অধিকাংশ সময় কাটিয়েছেন পাকিস্তানে। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তানের উদ্ভবের পর থেকেই তিনি পাকিস্তানের পাসপোর্টধারী। তখন থেকে তিনি পাকিস্তানের অনেক নেতার আস্থা অর্জন করেছেন এবং এই রিপোর্ট লিখছেন সত্যিকারের ব্যক্তিগত দুঃখবোধ থেকে।

তিনি আমাদের কাছে বলেন, ‘তথ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা আমাদের জানান সেনাবাহিনী যে বিরাট দেশপ্রেমের কাজ করছে, ব্যাপারটা সেভাবে উপস্থাপন করতে।’ তিনি তার প্রতিবেদনের জন্য যা দেখেছেন এবং রিপোর্ট করেছেন সে-সম্পর্কে কোন সন্দেহই থাকতে পারে না । তাকে একটি রিপোর্ট লেখার অনুমতি দেয়া হয় যা সানডে টাইমসে ২ মে প্রকাশিত হয়। রিপোর্টটিতে কেবল মার্চ ২৫/২৬-এর ঘটনার বিবরণ ছিল, যখন বাঙালি সৈন্যরা বিদ্রোহ করে এবং অবাঙালিদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে। এমনকি দুর্ভিক্ষের ভয়াবহতার প্রসঙ্গ পর্যন্ত কর্তৃপক্ষ সেন্সর করেছিল। এ-ব্যাপারটিই তার নীতিবোধকে পীড়া দিচ্ছিল। কিছুদিন পরে, তার ভাষায়, তিনি স্থির করলেন যে, “হয় যা দেখেছি তার পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ লিখবো, নয়তো লেখাই বন্ধ করে দেবো; নইলে সততার সঙ্গে আর লেখা যাবে না।” তাই তিনি প্লেনে চেপেছেন এবং লন্ডন চলে এসেছেন।

পূর্ব বাংলা থেকে আসা শরণার্থী ও নিরপেক্ষ কূটনীতিবিদদের মধ্যে যাদের এসব ঘটনা সম্পর্কে বিস্তৃত ধারণা রয়েছে তাদের দ্বারা তার প্রতিবেদন আমরা বিস্তৃতভাবে যাচাই করতে সমর্থ হয়েছি।

শরণার্থীরা কেন পালিয়েছে: সেনাবাহিনী পূর্ব পাকিস্তানে যাবার পরের বিভীষিকার প্রথম প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনা

আবদুল বারী ভাগ্যের ভরসায় দৌড় দিয়েছিল। পূর্ব বাংলার আরো হাজার মানুষের মতো সেও একটা ভুল করে ফেলেছিলো — সাংঘাতিক ভুল –ও দৌড়াচ্ছিলো পাকসেনাদের একটি টহল-সেনাদলের দৃষ্টিসীমার মধ্যে। পাকসেনারা ঘিরে দাঁড়িয়েছে এই চব্বিশ বছরের সামান্য লোককে। নিশ্চিত গুলির মুখে সে থরথরিয়ে কাঁপে। “কেউ যখন দৌড়ে পালায় তাকে আমরা সাধারণত খুন করে ফেলি”, ৯ম ডিভিশনের জি-২ অপারেশনস-এর মেজর রাঠোর আমাকে মজা করে বলেন। কুমিল্লার বিশ মাইল দক্ষিণে মুজাফরগঞ্জ নামে ছোট্ট একটা গ্রামে আমরা দাঁড়িয়ে আছি। “ওকে আমরা চেক করছি কেবল আপনার খাতিরে। আপনি এখানে নতুন এসেছেন, এছাড়া আপনার পেটের পীড়া রয়েছে।”
“ওকে খুন করতে কেন?” উদ্বেগের সঙ্গে আমি ওকে জিজ্ঞেস করলাম।
“কারণ হয় ও হিন্দু, নয়তো বিদ্রোহী, মনে হয় ছাত্র কিংবা আওয়ামী লীগার । ওদের যে খুজছি তা ওরা ভালমতো জানে এবং দৌড়ের মাধ্যমে তারা বিশ্বাসঘাতকতা করে।”
“কিন্তু তুমি ওদের খুন করছো কেন? হিন্দুদেরই বা খুঁজছ কেন?” আমি আবার জিজ্ঞেস করলাম । রাঠোর তীব্র কন্ঠে বলেন: “আমি তোমাকে অবশ্যই মনে করিয়ে দিতে চাই, তারা পাকিস্তান ধ্বংস করার কী রকম চেষ্টা করেছে। এখন যুদ্ধের সুযোগে ওদের শেষ করে দেয়ার চমৎকার সুযোগ পেয়েছি।”
“অবশ্য,” তিনি তাড়াতাড়ি যোগ করেন, “আমরা শুধু হিন্দুদেরই মারছি। আমরা সৈনিক, বিদ্রোহীদের মতো কাপুরুষ নই। তারা আমাদের রমণী ও শিশুদের খুন করেছে।”

পূর্ব বাংলার শ্যামল ভূমির ওপর ছড়িয়ে দেয়া রক্তের কলঙ্কচিহ্নগুলি আমার চেখে একে একে ধরা পড়ছিল। প্রথমে ব্যাপারটা ছিল বাঙালিদের প্রতি বন্য আক্রোশের বহিঃপ্রকাশ হিসেবে অবাঙালিদের হত্যা। এখন এই গণহত্যা ঘটানো হচ্ছে পাকসেনাদের দ্বারা উদ্দেশ্যমূলকভাবে। এই সুসংগঠিত হত্যাকাণ্ডের শিকার হিন্দুরাই শুধু নয়, যারা সাড়ে ৭ কোটি জনসংখ্যার ১০ শতাংশ, বরং হাজার হাজার বাঙালি মুসলমানরাও। বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের ছাত্র, শিক্ষক, আওয়ামী লীগ ও বামপন্থী রাজনৈতিক দলগুলোর সদস্যসহ সবাই এর মধ্যে রয়েছে। এমন কি ১৭৬,০০০ জন বাঙালি সৈনিক ও পুলিশ যারা ২৬শে মার্চে অসময়োপযোগী ও দুর্বল-সূচনার একটা বিপ্লবের মাধ্যমে স্বাধীন বাংলাদেশ গঠন করতে চেয়েছিল, এর ভেতরে তারাও আছে।

এপ্রিলের শেষ দিকে পূর্ব বাংলায় দশদিনে চোখ আর কানে অবিশ্বাস্য যকিছু আমি দেখেছি ও শুনেছি তাতে এটা ভয়াবহভাবে পরিষ্কার যে এই হত্যাকাণ্ড সেনা কর্মকর্তাদের বিচ্ছিন্ন কোনো কার্যকলাপ নয়। পাক সেনাদের দ্বারা বাঙালিদের হত্যাকাণ্ডই অবশ্য একমাত্র সত্য নয়। ২৫ মার্চের রাতে পাকিস্তানী সৈন্যরাই একমাত্র হত্যাকারী ছিল না, পূর্ব পাকিস্তানের সৈন্য ও প্যারামিলিটিারির সদস্যদের বন্য আক্রোশের শিকার হয়েছে অবাঙালিরা। কর্তৃপক্ষের সেন্সর আমাকে এই তথ্য জানানোর সুযোগ দিয়েছে। হাজার হাজার অভাগা মুসলিম পরিবার, যাদের অধিকাংশই ১৯৪৭ সনের দেশ বিভাগের সময় বিহার থেকে শরণার্থী হিশেবে পাকিস্তানে এসেছিল, প্রায় নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। রমণীরা ধর্ষিত হয়েছে, বিশেষ ধরনের ছুরি দিয়ে কেটে নেয়া হয়েছে তাদের স্তন। এই ভয়াবহতা থেকে শিশুরাও রক্ষা পায়নি। ভাগ্যবানরা বাবা-মার সঙ্গেই মারা গেছে; কিন্তু চোখ উপড়ে ফেলা ও অঙ্গপ্রত্যঙ্গ নিষ্ঠুরভাবে ছিঁড়ে নেয়া হাজার হাজার শিশুর সামনে ভবিষ্যত এখন অনিশ্চিত। চট্টগ্রাম, খুলনা ও যশোরের মতো শহরগুলো থেকে ২০,০০০-এরও বেশি অবাঙালির মৃতদেহ পাওয়া গেছে। নিহতদের সত্যিকারের পরিমাণ, পূর্ব বাংলার সর্বত্র আমি শুনেছি ১০০,০০০-এর মতো হতে পারে; কারণ হাজার হাজার মৃতদেহের কোনো চিহ্নই খুঁজে পাওয়া যায়নি।

পাক-সরকার ওই প্রথম ভয়াবহতা সম্পর্কে পৃথিবীকে জানতে দিয়েছে। কিন্তু যা প্রকাশ করতে দেয়া হয়নি তা হলো, তাদের নিজেদের সেনাবহিনী যে-হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে তা ছিল দ্বিতীয় এবং ভয়াবহতম হত্যাকাণ্ড। পাক-কর্মকর্তারা উভয় পক্ষ মিলিয়ে নিহতদের সংখ্যা ২৫০,০০০-এর মতো বলে গণনা করেছে — এর মধ্যে দুর্ভিক্ষ এবং মহামারিতে মৃতদের ধরা হয়নি। দেশের অর্ধেকেরও বেশি জনসংখ্যা অধ্যুষিত প্রদেশে সফল ধ্বংসকাণ্ড চালানোর মাধ্যমে জেনারেল ইয়াহিয়া খানের সামরিক সরকার পূর্ব পাকিস্তান-সমস্যাকে তার নিজস্ব ‘চরম সমাধানের’ দিকে ঠেলে দিচ্ছেন।

“আমরা পূর্ব পাকিস্তানকে একেবারে সংশোধন করতে চাই এবং বিচ্ছিন্ন হওয়ার সব হুমকিকে রদ করার জন্য আমরা দৃঢ়প্রতিজ্ঞ, এর অর্থ যদি হয় ২০ লক্ষ লোককে হত্যা করা এবং প্রদেশটিকে ৩০ বছর ধরে কলোনি বানিয়ে রাখা, তবুও,” আমাকে বারবার এ-কথা শুনিয়েছেন ঢাকা ও কুমিল্লার ঊধ্বর্তন সামরিক ও সরকারী কর্মকর্তাবৃন্দ। পূর্ব বাংলায় পাকসেনারা ব্যাপকভাবে ও ভয়াবহভাবে ঠিক এই কাজটিই করে চলেছে।

চাঁদপুর ভ্রমণ শেষে অস্তায়মান সূর্যের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে আমরা ছুটে চলেছি (কারণ, বুদ্ধিমান পাক সেনারা পূর্ব বংলায় ভবনের ভেতরে রাত্রি যাপন করে)। টয়োটা ল্যান্ড ক্রুজারের পেছন থেকে হঠাৎ এক জওয়ান চেঁচিয়ে উঠল, “একটা লোক দৌড়িয়ে যাচ্ছে, সাহেব।” মেজর রাঠোর মুহূর্তেই গাড়ি থামিয়ে দিলেন, একই সঙ্গে চীনা এলএমজি তাক করলেন দরজার বিপরীতে। দুশো গজেরও কম দূরে হাঁটু-সমান উঁচু ধানক্ষেতের মধ্যে একটা লোককে ছুটে পালাতে দেখা গেল।

“আল্লাহর দোহাই, ওকে গুলি কর না,” আমি চেঁচিয়ে উঠলাম, “ও নিরস্ত্র। ও একজন গ্রামবাসী মাত্র।”
আমার দিকে বাজেভাবে তাকিয়ে রাঠোর একটা সতর্কতামূলক গুলি করলেন। সবুজ ধানের গালিচায় লোকটা কুঁকড়ে ঢুকে যেতেই দু’জন জওয়ান এগিয়ে গেল তাকে টেনে-হিঁচড়ে আনতে।
বন্দুকের বাট দিয়ে আঘাতের পর জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হল।
“তুমি কে?”
“মাফ করে দিন সাহেব, আমার নাম আব্দুল বারী। ঢাকায় নিউ মার্কেটে দর্জির কাজ করি।”
“মিথ্যে বলবে না। তুমি হিন্দু। না হলে দৌড়াচ্ছিলে কেন?”
“কারফিউয়ের সময় প্রায় হইয়া আসছে, সাহেব, আমি আমার গ্রামে যাইতেছিলাম।”
“সত্য কথা বল। দৌড়াচ্ছিলে কেন?”
প্রশ্নের উত্তর দেবার পূর্বেই তাকে একজন জওয়ান দেহ-তল্লাসী শুরু করল এবং আরেকজন দ্রুত তার লুঙ্গি টেনে খুলল। হাড়জিরজিরে নগ্ন শরীরে সুস্পষ্ট খৎনার চিহ্ন দেখা গেল, যা মুসলমানদের অবশ্যই করতে হয়।

ট্রাকভর্তি মানুষগুলোকে হত্যা করা হয়

অন্তঃতপক্ষে এটা নিশ্চিতভাবে প্রমাণ হল যে বারী হিন্দু নয়। তারপরও জিজ্ঞাসাবাদ চলছিল।
“বল তুমি দৌড় দিয়েছিলে কেন?”
এতক্ষণে ওর চোখ বুনো হয়ে উঠল। ওর শরীরও কাঁপছিল প্রচণ্ডভাবে। সে উত্তর দিতে পরছিল না, সে হাঁটু চেপে ধরল।
“স্যার, মনে হচ্ছে ও ফৌজি।” বারী পা খামচে ধরায় এক জওয়ান মন্তব্য করে। (ফৌজি সৈনিকের উর্দু শব্দ, বাঙালি বিপ্লবীদের পাকসেনারা এই নামে চিহ্নিত করে থাকে।)
“হতে পারে।” আমি শুনলাম রাঠোর হিংস্রভাবে বিড়বিড় করল।
রাইফেলের বাট দিয়ে প্রচণ্ডভাবে পিটিয়ে আব্দুল বারীকে ভীষণ জোরে ছুঁড়ে দেয়া হল একটি দেয়ালের দিকে। তার আর্তনাদের পর কাছের কুঁড়েঘরের আড়াল থেকে এক তরুণকে উঁকি দিতে দেখা গেল। বাংলায় কী যেন চেঁচিয়ে বলল বারী। মাথাটি সঙ্গে সঙ্গে অন্তর্হিত হল। কিছুক্ষণ পরেই খোঁড়াতে খোঁড়াতে কুঁড়েঘর থেকে বেরিয়ে এল এক বুড়ো মানুষ। রাঠোর তাকে খামচে টেনে আনলো।
“এই লোকটাকে তুমি চেন?”
“হ্যাঁ সাহেব। ও আব্দুল বারী।”
“সে কি ফৌজি?”
“না সাহেব। হে ঢাকায় দর্জির কাম করে।”
“সত্যি কথা বল।”
“খোদার কসম, সাহেব, হে দর্জি।”
হঠাৎ নিরবতা নেমে এলো। রাঠোর অপ্রস্তুত হয়ে তাকালে আমি বললাম, “আল্লাহর দোহাই, ওকে যেতে দাও। ওর নির্দোষিতার আর কত প্রমাণ চাও?”
জওয়ানরা তবু সন্তুষ্ট হয় না, তারা বারীকে ঘিরে রাখে। আরো একবার বলার পর রাঠোর বারীকে ছেড়ে দেবার আদেশ দিলেন। ইতোমধ্যে সে ভয়ে জড়োসড়ো ও কুঞ্চিত হয়ে গেছে। তার জীবন বেঁচে গেল। অন্য সবার ভাগ্যে এমন সুযোগ আসে না।

৯ম ডিভিশনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আমি ছয়দিন কুমিল্লায় ঘুরেছি। আমি কাছ থেকে দেখেছি গ্রামের পর গ্রাম, বাড়ির পর বাড়ি “অস্ত্র অনুসন্ধান”-এর ছলে খৎনা করা হয়নি এমন লোকদের বেছে বেছে হত্যা করা হয়েছে। কুমিল্লার সার্কিট হাউসে (বেসামরিক প্রশাসনের হেড কোয়ার্টার) মানুষদের মৃত্যুযন্ত্রণার আর্তরব আমি শুনেছি। কারফিউর নামে আমি দেখেছি ট্রাক বোঝাই লোক নিয়ে যাওয়া হচ্ছে খুন করার জন্য। সেনাবহিনীর “হত্যা ও অগ্নিসংযোগ মিশন’-এর পাশবিকতার আমি প্রত্যক্ষদর্শী। দেখেছি বিপ্লবীদের খতম করার পর কীভাবে গ্রাম-শহরে ধ্বংসলীলা চালানো হয়েছে।

‘শাস্তিমূলক পদক্ষেপ” নিয়ে কীভাবে পুরো গ্রামকে ধ্বংস¯তূপে পরিণত করা হয়েছে তাও আমি দেখেছি। আর রাত্রিবেলা শুনেছি তাদের সারাদিনব্যাপী চালানো হত্যাকাণ্ডের অবিশ্বাসযোগ্য, বর্বর রোমন্থন। “তুমি কয়টা খতম করেছ?” তাদের উত্তর এখনও আমার স্মৃতিতে জ্বলন্ত।

যেকোনো পশ্চিম পাকিস্তানী অফিসার বলবে এর সবই করা হয়েছে ‘পাকিস্তানের আদর্শ, সংহতি ও অখণ্ডতা অক্ষুণ্ন রাখা’-র জন্য। কিন্তু অনেক দেরী হয়ে গেছে। ভারতের দ্বারা হাজার মাইল দূরত্বে অবস্থিত দুই অংশকে একত্রে রাখার জন্য এই তথাকথিত সামরিক কার্যক্রমই আদর্শের পতনকে প্রমাণ করেছে। পূর্ব বাংলাকে পাকিস্তানের সঙ্গে যুক্ত রাখা সম্ভব একমাত্র কঠোর সামরিক হস্তক্ষেপের মাধ্যমে। আর পাকসেনাদল পাঞ্জাবীদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত, যারা ঐতিহাসিকভাবেই বাঙালিদের অপছন্দ করে, ঘৃণা করে।

পরিস্থিতি এমন অবস্থায় এসেছে যে কিছু বাঙালিকেও পশ্চিম পাকিস্তানী দলের সঙ্গে দেখা গেছে স্বতঃস্ফুর্তভাবে। ঢাকায় এক পুরনো বন্ধুর সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার সময় এ-রকম আশ্চর্য অদ্ভুত অভিজ্ঞাতার মুখোমুখি হয়েছি আমি। “দুঃখিত”, সে আমাকে বলল, “ছক পাল্টে গেছে। আমি তুমি যে পাকিস্তানকে জানি, তা বিলুপ্ত হয়ে গেছে। তাকে পেছনেই থাকতে দাও।”

ঘণ্টাখানেক বাদে এক পাঞ্জাবী সেনা-কর্মকর্তা পাকসেনারা পদক্ষেপ নেয়ার আগের অবাঙালিদের ওপর চালানো হত্যাকাণ্ডের কথা বলা আরম্ভ করল। সে আমাকে বলল, “১৯৪৭-এর দেশবিভাগের সময়কার শিখদের চাইতে পাশবিক আচরণ করেছে তারা। কীভাবে আমরা তা ভুলতে বা মাফ করতে পারি?” সেনাবাহিনীর এই উম্মত ধ্বংসকার্যের দু’টো গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য রয়েছে। একটিকে কর্তৃপক্ষ ‘শুদ্ধি অভিযান’ নামে চিহ্নিত করতে পছন্দ করেন যা মূলত ধ্বংসলীলাকেই নরমভাবে উচ্চারণ করা। অপরটি হল ‘পুনর্বাসন-উদ্যোগ”। পূর্ব বাংলাকে পশ্চিম পাকিস্তানের বশীভূত উপনিবেশ বানানোর প্রচেষ্টাকে এভাবে বর্ণনা করা হয়। এই ঢালাও অভিব্যক্তি এবং ‘দুষ্কৃতিকারী’ ও ‘হামলাকারী’ হিসেবে বারংবার উল্লেখ বিশ্বকে সন্তুষ্ট রাখার প্রয়াস। কিন্তু প্রচারণার অন্তরালে হত্যা ও উপনিবেশীকরণই হলো বাস্তবতা।

হিন্দুদের হত্যালীলার যৌক্তিকতা বিষয়ে ১৮ এপ্রিল রেডিও পাকস্তিান থেকে প্রচারিত পূর্ব পাকিস্তানের মিলিটারি গভর্নর লেফটেন্যান্ট জেনারেল টিক্কা খানের বক্তব্য আমি শুনেছি। তিনি বললেন “পূর্ব পাকিস্তানের মুসলমানরা পাকিস্তানের অভ্যুদয়ের নেতৃস্থানীয় ভূমিকা পালন করেছিল, তারা পাকিস্তানকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য প্রতিজ্ঞ। কিন্তু হিংস্র ও আগ্রাসী সংখ্যালঘুরা জীবন ও ধনসম্পদ ধ্বংস করার হুমকি দিয়ে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠদের দমন করেছে, আওয়ামী লীগকে বাধ্য করেছে হিংসাত্মক নীতি গ্রহণ করতে।”

অন্যরা যৌক্তিকতা খোঁজার ব্যাপারে আরো বোধ-বুদ্ধিহীন। “টাকার জোরে হিন্দুরা মুসলমান জনগণকে একেবারে খাটো করে দেখেছে,” কুমিল্লার অফিসার্স মেসে ৯ম ডিভিশনের কর্নেল নাঈম আমাকে জানান। “শুষে পুরো শহরকে ওরা রক্তশূন্য করে ফেলেছে। টাকা অর্থ পণ্য সব ভারতে চলে যায় সীমান্ত পার হয়ে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে স্কুল-কলেজে অর্ধেকরও বেশি নিজেদের লোক ঢুকিয়ে আপন ছেলেদের পড়াশোনার জন্য পাঠিয়ে দেয় কলকাতায়। অবস্থা এমন পর্যায়ে এসেছে যে বাঙালি সংস্কৃতি আসলে হিন্দু সংস্কৃতি এবং পূর্ব পাকিস্তান প্রকৃতপক্ষে পরিচালনা করছে কলকাতার মাড়োয়াড়ি ব্যবসায়ীরা। জনগণের কাছে তাদের দেশকে ফিরিয়ে দিতে হলে এবং বিশ্বাসের কাছে জনগণকে ফিরিয়ে আনতে হলে আমাদের তাদের খুঁজে বের করতে হবে।”

অথবা মেজর বশিরের কথাই ধরা যাক। তিনি নিচুপদ পার হয়ে এ পর্যায়ে এসেছেন। কুমিল্লার ৯ম ডিভিশনের এই এসএসও-র নিজস্ব হত্যার খতিয়ান ২৮ বলে দম্ভও আছে। পরিস্থিতি সম্পর্কে তার আছে একটা নিজস্ব ব্যাখ্যা। “এটা হল শুদ্ধ আর অশুদ্ধর মধ্যে যুদ্ধ”, এক কাপ সবুজ চা খেতে খেতে তিনি আমাকে কথাটা বলেন। “এখানকার লোকদের নাম হয়তো মুসলমানের, পরিচয়ও দেয় হয়তো মুসলমান বলে, কিন্তু মানসিকতায় এরা হিন্দু। আপনার বিশ্বাস হবে না, শুক্রবার এখানকার ক্যান্টনমেন্ট-মসজিদের মৌলবি ফতোয়া দিচ্ছিল যে পশ্চিম পাকিস্তানীদের খুন করলে বেহেশতে যাওয়া যাবে। ওই জারজটাকে আমরা খুঁজে বের করেছি, বাদবাকিদেরও খুঁজছি। যারা ওতে অংশ নেয়নি তারা হল খাঁটি মুসলমান। আমরা এমন কি ওদের উর্দু শেখাবো।”

আমি প্রত্যেক জায়গার কর্মকর্তাদের দেখেছি তাদের হত্যালীলার পেছনে কল্পনামিশ্রিত যথেষ্ট যুক্তিও বানিয়ে নেন। কৃতকার্যের বৈধতা নিরূপণের জন্য অনেক কিছুই বলা যেতে পারে, নিজেদের মানসিক সন্তুষ্টির জন্যও সেটা প্রয়োজন, কিন্তু এই মর্মান্তিক ‘সমাধান’-এর মূল কারণটা রাজনৈতিক; বাঙালিরা নির্বাচনে জয়লাভ করে ক্ষমতায় আসতে চেয়েছে। কিন্তু ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর থেকে পাঞ্জাবীদের আকাক্সক্ষা এবং স্বার্থ সরকারি নীতি-নির্ধারণে প্রাধান্য স্থাপন করেছে — ক্ষমতা হারানোর ব্যাপারটা তাদের কিছুতেই সহ্য হবে না। আর সামরিক বাহিনী এতে ইন্ধন যুগিয়েছে। কর্মকর্তারা ব্যক্তিগতভাবে এই বলে সাফাই গেয়েছে যে, সামরিক বাহিনী হত্যাকাণ্ড শুরুর পূর্বে অবাঙালিদের যেভাবে হত্যা করা হয়েছে তার পাল্টা জবাব হিসেবে এখনকার পদক্ষেপগুলো নেয়া হচ্ছে। কিন্তু ঘটনাবলী এমনটা বলে না যে চলমান এই গণহত্যা তাৎক্ষণিক ও বিশৃঙ্খল প্রতিক্রিয়া হিসেবে এসেছে। এটা ছিল পূর্বপরিকল্পিত।

ভদ্র ও আত্মবিশ্বাসী অ্যাডমিরাল আহসানের কাছ থেকে পূর্ব বাংলার গভর্নরপদ এবং পণ্ডিতম্মন্য সাহেবজাদা খানের কাছ থেকে সামরিক ক্ষমতা লেফটেন্যান্ট জেনারেল টিক্কা খান গ্রহণ করার পরই ‘অনুসন্ধান’-এর পরিকল্পনা শুরু হয়, এটা পরিষ্কার। এটা মার্চের শুরুর দিককার কথা, বাঙালিদের বিরাট প্রত্যাশা এসেম্বলি-সভা স্থগিত হবার পর যখন শেখ মুজিবুর রহমানের অসহযোগ-আন্দোলনে পূর্ব পাকিস্তান উত্তাল হয়ে উঠেছে। বলা হয়ে থাকে যে, প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান পূর্ব পাকিস্তানে নিয়োজিত পশ্চিম পাকিস্তানী সৈন্যদের দমন-পীড়নের পক্ষের লোক হিসেবে শীর্ষে অবস্থান করেছেন। কেন্দ্রীয় সরকারের নীতিমালাকে নিয়ন্ত্রণ করে চলছিল ঢাকাস্থ পাঞ্জাবী ইস্টার্ন কমান্ড। [এটা অত্যন্ত বাজে ব্যখ্যা যে খানরা এর সঙ্গে জড়িত নয়; খান পাকিস্তানীদের নামের একটি পদবী]

যখন ২৫ মার্চের রাতে পাকসেনারা ঢাকার পথে নামে, পরের দিন সকালে শহর এমনিতেই জনশূন্য ছিল, তাদের সঙ্গে ছিল যাদের শেষ করে দিতে হবে তাদের নামের তালিকা। এতে ছিল হিন্দু আর প্রচুর সংখ্যক মুসলমানের নাম — ছাত্র, আওয়ামী লীগ সমর্থক, অধ্যাপক, সাংবাদিক এবং মুজিবের সহায়তাকারী। মানুষকে বর্তমানে জানানো হচ্ছে যে সৈন্যদের আক্রমণের নির্দেশ দেয়া হয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয়ের হিন্দু ছাত্রদের আবাসিক ভবন জগন্নাথ হল, রমনা রেসকোর্স মন্দিরের কাছাকাছি অবস্থিত দু’টি হিন্দু কলোনি এবং তৃতীয়ত পুরনো ঢাকার বুকের ওপর শাখারিপট্টিতে। কিন্তু মার্চের ২৬ ও ২৭ তারিখের দিবারাত্রিব্যাপী কারফিউয়ের সময়ে ঢাকা ও নিকটস্থ নারায়নগঞ্জ শিল্প এলাকার হিন্দুদের কেন হত্যা করা হলো তার কোনো ব্যাখ্যা দেওয়া হয়নি। কারফিউর সময়ে রাস্তায় চলাচলকারী মুসলিমদেরও কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি। এই লোকগুলোকে খতম করা হয়েছে পরিকল্পিত অভিযানের মাধ্যমে; হিন্দু দমনের বানোয়াট অভিযোগের ফল এলো আরো বিস্তৃতভাবে, অন্যরকমভাবে।

একটি পেন্সিলের খোঁচা, একটি লোকের ‘নিকাশ’

১৫ই এপ্রিল ঢাকায় ঘোরার সময় ইকবাল হলের ছাদে আমি চারটি ছাত্রের গলিত মাথা পড়ে থাকতে দেখেছি। তত্ত্বাবধায়ক জানান যে, তাদের হত্যা করা হয়েছে ২৫শে মার্চের রাত্রে। দুটো সিঁড়ি এবং চারটি ঘরে প্রচুর রক্তপাতের চিহ্নও আমি দেখেছি। ইকবাল হলের পেছনে একটি বিশাল আবাসিক ভবন সেনাবাহিনীর বিশেষ মনোযোগ পেয়েছিল বলে মনে হল। বিশাল দেয়ালগুলো গুলিতে ঝাঁঝরা এবং সিঁড়িতে বাজে গন্ধের রেশ রয়ে গেছে, যদিও এখানে প্রচুর ডিডিটির গুঁড়ো ছড়ানো হয়েছে। প্রতিবেশীরা জানান ২৩ জন নারী ও শিশুর মৃতুদেহ মাত্র ঘন্টাখানেক আগে সরিয়ে নেয়া হয়েছে গাড়িতে করে। ২৫ তারিখ থেকেই ছাদের ওপর লাশগুলো পচছিল। অনেক প্রশ্নের পর জানা গেল হতভাগ্যরা ছিল কাছের হিন্দু-বাড়ির। এই ভবনে তারা আশ্রয় নিয়েছিল।

এই গণহত্যা সাধন করা হয়েছে নিতান্ত নির্বিকারভাবে। ১৯শে এপ্রিল সকালে কুমিল্লার সামরিক আইন প্রশাসক মেজর আগার অফিসে বসে থাকার সময়ে আমি দেখেছি এ-সমস্ত নির্দেশ কী নির্মমতার সঙ্গে দেয়া হয়। এক বিহারী সাব-ইন্সপেক্টর বন্দিদের একটি তালিকা নিয়ে এল। ওটার দিকে তাকিয়ে নির্বিকারভাবে চারটি নামের পাশে পেন্সিলের খোঁচা দিয়ে আগা বললেন, “সন্ধ্যার সময় এই চারজনকে নিকাশের জন্যে নিয়ে এসো।” তালিকার দিকে তাকিয়ে আবার তিনি পেন্সিলের দাগ বসালেন, “এই চোরটাকেও নিয়ে এসো ওদের সঙ্গে।”

মৃত্যুর ঐ আদেশ দেয়া হলো নারকেলের দুধ খেতে খেতে। আমাকে জানানো হল যে বন্দিদের দুজন হিন্দু, তৃতীয়জন ‘ছাত্র’ এবং চতুর্থজন এক আওয়ামী লীগ নেতা। ‘চোরটি,’ জানা গেলো, নিজ বাড়ীতে তার বন্ধুকে থাকতে দিয়েছিল। পরে সন্ধ্যার দিকে দেখলাম একটি দড়ি দিয়ে হাত-পায়ে শিথিলভাবে বেঁধে সার্কিট হাউজগামী রাস্তা দিয়ে ওদের নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। কারফিউর কিছু পরে সন্ধ্যা ছয়টার সময় পাখিদের একটি দল কাছে কোথাও কিচিরিমিচির করছিল, হঠাৎ গুলির তীব্র শব্দে তাদের খেলায় ছেদ পড়ল।

বেলুচ রেজিমেন্টের ক্যাপ্টেন আজমতকে নিয়ে প্রায়ই মেসে দুটো ব্যাপার আলোচনা করা হতো। একটি হলো ৯ম ডিভিশনের কমান্ডিং অফিসার মেজর জেনারেল শওকত রাজার এডিসি হিসেবে ওর চাকরি। অপরটি নিয়ে ওর সহকর্মীরা ওকে পেয়ে বসতো। জানা গেল আজমত দলের একমাত্র অফিসার যে কোনো ‘খুন’ করেনি। মেজর বশির তাকে নির্মমভাবে খোঁচাতো। “এই যে আজমত,” এক রাতে বশির তাকে বললেন, “কাল আমরা তোমাকে মানুষ করতে যাচ্ছি। কাল দেখব তুমি তাদের কেমন ধাওয়া দিতে পারো। ব্যাপারটা খুবই সোজা।” এই অসামর্থ্যরে জন্যে বশির তার সঙ্গে লেগেই থাকতেন। এসএসও-র চাকরি ছাড়াও বশির হেডকোয়ার্টারে ‘শিক্ষা কর্মকর্তা’ ছিলেন। তাকেই একমাত্র পাঞ্জাবী অফিসার দেখেছি, যে অনর্গল বাংলা বলতে পারতো।

শুনলাম বশিরের কাছে এক দাড়িঅলা একদিন সকালে তার ভাইয়ের খোঁজ নিতে এসেছিল। তার ভাই ছিল কুমিল্লার বিশিষ্ট আওয়ামী লীগ নেতা। কিছুদিন আগে পাকসেনারা তাকে বন্দি করেছিলো। বশির তাকে জানালেন, “দৌড় গ্যায়া, পালিয়ে গেছে।” বুড়ো লোকটা কিছুতেই বিশ্বাস করতে পারছিল না কীভাবে ভাঙা পা নিয়ে পালিয়ে যেতে পারে। আমিও না। এ-ঘটনা বলে লম্বা হাসি দিয়ে মেজর বশির আমার দিকে তাকিয়ে চোখ টিপলেন। পরে জেনেছি ওদের নিজস্ব ভাষায় ‘দৌড় গ্যায়া’ মানে হলো, “পালানোর সময় গুলি করে খুন।”

আমি জানতে পারিনি ক্যাপ্টেন আজমত কাউকে খুন করতে পেরেছিলেন কি না। চট্টগ্রামের সত্তর মাইল উত্তরে ফেনীর কাছে কুমিল্লা সড়কে বাঙালি-বিদ্রোহীরা পরিখা খনন করেছিল, সে-এলাকার সব ব্রিজ ও কালভার্ট ধ্বংস করে ৯ম ডিভিশনের চলাচলকে সীমিত করে রেখেছিল। ঢাকায় ইস্টার্ন কমান্ড থেকে একের পর এক বাজে খবর পেয়ে জেনারেল রাজা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন। বিদ্রোহীদের পালিয়ে যাওয়া রদ করার জন্যে জরুরি হয়ে দাঁড়ায় দক্ষিণ-পূর্ব সীমান্ত-অঞ্চল বন্ধ করে দেয়া। অথচ চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরে এসে পৌঁছানো অতি প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্যে বর্তমানে একমাত্র পথ হিশেবে উন্মুক্ত রাখাও দরকার হয়ে পড়ে। তাই জেনারেল রাজা সহজেই উত্তেজিত হয়ে যান। সেখানে তিনি উড়ে যেতেন প্রায় প্রত্যেক দিনই। ফেনীর ভেঙে পড়া ব্রিজ নিয়ে বকবক করতেন দীর্ঘসময় ধরে। ক্যাপ্টেন আজমত সবসময়ের মতো তখনো জেনারেলের ছায়া। আমি তাকে আর দেখতে পাইনি। পরবর্তী তিন সপ্তাহর জন্যে খোঁচা থেকে আজমত মোটামুটি রক্ষা পেয়েছিল। ফেনী ও সংলগ্ন অঞ্চল ৮ই মে ৯ম ডিভিশন আয়ত্তে আনতে পারলো। বাঙালি বিদ্রোহীরা বোমা ও অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে এতোদিন সেখানে অবরোধ দিয়ে রেখেছিলো। শেষমেষ তারা সীমান্ত টপকে প্রতিবেশী দেশ ভারতে চলে যায়।

৯ম ডিভিশন হেডকোয়ার্টারের জি-১ লেফটেন্যান্ট কর্নেল আসলাম বেগ ভারি অস্ত্রসহ বাঙালি বিদ্রোহীদের পালিয়ে যাওয়ার খবরে চিন্তিত হয়ে পড়েন। তিনি বললেন, “ভারতীয়রা তাদের ওখানে একদমই থাকতে দেবে না। ব্যাপারটা তাদের জন্য খুবই বিপজ্জনক হবে। সীমান্ত-অঞ্চলে তারা যত হামলা করবে আমরা তত ভোগান্তির শিকার হব।” পাক-ভারত যুদ্ধের সময় চীন থেকে অস্ত্র সংগ্রহের ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় লেফটেন্যান্ট কর্নেল বেগ ছিলেন অত্যন্ত জনপ্রিয় আর্টিলারি অফিসার। তিনি ছিলেন একজন গর্বিত পরিবারের সদস্য। তিনি ফুলও পছন্দ করতেন। আমাকে গর্বের সঙ্গে বলেছিলেন, কুমিল্লায় এর আগের পোস্টিং-এর সময় চীন থেকে আনিয়ে হেড কোয়ার্টারের উল্টোদিকের পুকুরে তিনি টকটকে লাল রঙের বিশাল জলপদ্ম রোপন করেছিলেন। মেজর বশির তাকে খুব শ্রদ্ধা করতেন। বশির আমাকে জানালেন, একবার এক বিদ্রোহী কর্মকর্তাকে ধরা হলো। সবাই চিন্তিত হয়ে পড়ল, তাকে নিয়ে কী করা যায়। অন্যরা যখন নির্দেশ পাবার জন্য টেলিফোনে খোঁজখবর করছেন তিনি সব সমাধান করে ফেললেন, দৌড় গ্যায়া। শুধু ওর পাটুকুই গর্তের বাইরে বের হয়ে ছিল।

পরিব্যাপ্ত শ্যামল সৌন্দর্যের মধ্যে কী পাশবিকতা চলছে, তা কল্পনা করাও অসম্ভব। এপ্রিলের শেষ দিকে আমি যখন সেখানে যাই, তখন কুমিল্লা ধ্বংস¯তূপ। পথের দু’পাশের সবুজ ধানক্ষেত দিগন্তে রক্তিম আভার আকাশে গিয়ে মিশেছে। গুলমোহর, ‘অরণ্যের বহ্নিশিখা’ ফোটার সময় এসে গেছে। গ্রামের আম আর নারকেল গাছগুলো ফলের ভারে নুয়ে পড়েছে। এমন কি রাস্তার পাশে ছাগলের দৌড়ঝাঁপও প্রমাণ করছিলো প্রকৃতিক বাংলার পূর্ণতা। “পুরুষ আর স্ত্রীগুলোকে আলাদা করার একমাত্র উপায় হলো,” আমাকে ওরা বললো, “মেয়ে ছাগলগুলো গর্ভবতী।”

হত্যা আর অগ্নিকাণ্ড: তাদের শাস্তির নমুনা

পৃথিবীর অন্যতম জনবহুল অঞ্চল কুমিল্লার জনসংখ্যার ঘনত্ব হলো প্রতি বর্গমাইল ১,৯০০ জন। অথচ কোথাও কোনো মানুষ দেখা গেলো না। ”বাঙালিরা কোথায়?” কিছুদিন আগে ঢাকার রাস্তাঘাট একেবারে নির্জন দেখে সেনাদলের লোকদের আমি জিজ্ঞেস করেছিলাম। ওদের তৈরী করা উত্তর ছিলো, “সবাই গ্রামে গেছে।” অথচ গ্রামেও কোনো বাঙালি দেখা যাচ্ছিল না। ঢাকার মতো কুমিল্লাও একেবারে জনশূন্য। লাকসাম দিয়ে আসার সময় দশ মাইল পথে হাতে গোনা কয়েকজন কৃষককে দেখলাম। অবশ্য খাকি-পোশাক-পরা পাকসেনারা গম্ভীর মুখে অটোমেটিক রাইফেল হাতে রাস্তায় অবস্থান করছিল। আদেশমাফিক রাইফেল হাতছাড়া করেনি কেউ। ট্রিগার-সুখী কঠিন লোকজন সবসময় রাস্তা পাহারা দিচ্ছে। যেখানে পাকসেনা, সেখানে কোনো বাঙালিকে পাওয়া যাবে না।

রেডিও এবং খবরের কাগজে সামরিক আইন ঘোষণা করা হচ্ছে মুহূর্মুহু — চোরাগোপ্তা হামলার জন্য ধরা পড়লে শাস্তি মৃত্যুদণ্ড। রাস্তা বা ব্রিজ ধ্বংস বা খোঁড়ার চেষ্টা করলে ক্ষতিগ্রস্থ অঞ্চলের একশ গজের ভেতর সমস্ত বাড়িকে এর জন্য দায়ী করা হবে এবং সেগুলোর ধ্বংসসাধন করা হবে। কার্যক্ষেত্রে ঘোষণাগুলোর চাইতে ভয়াবহ সব পদক্ষেপে নেয়া হয়েছে। ‘শাস্তিমূলক ব্যবস্থা’ এমন একটি বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে যে বাঙালিরা বেপরোয়া ও সহিংস হতে বাধ্য হয়েছে।

এর যে কী ভয়াবহ অর্থ তা দেখেছি ১৭ এপ্রিল চাঁদপুর যাওয়ার পথে হাজীগঞ্জে। বিদ্রোহীরা, যারা এখনো এ-অঞ্চলে তৎপর, গত রাতে ১৫ ফুট দীর্ঘ একটা ব্রিজ ভেঙে ফেলেছে। মেজর রাঠোরের (জি-২ অপারেশনস্) মাধ্যমে জানা গেলো, তৎক্ষণাৎ এই এলাকায় একদল সেনাদল পাঠিয়ে দেয়া হলো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য। ব্রিজের সিকি মাইলব্যাপী অঞ্চলে পেঁচিয়ে ওঠা ঘন ধোঁয়া দেখা যাচ্ছিল তখনও। সাময়িকভাবে কাঠের তক্তা দিয়ে সারানো ব্রিজটি সাবধানে পার হওয়ার সময় দেখলাম ডানদিকের গ্রাম্য বাড়িগুলোতেও আগুন লকলকিয়ে উঠছে।

গ্রামের পেছন দিকে কিছু জওয়ান আগুন ছড়ানোর চেষ্টা করছিল নারকেলের ছোবড়া দিয়ে। এগুলো কাজও দিচ্ছিল ভালো। কারণ সাধারণত রান্নার কাজে এগুলো ব্যবহার করা হয়। পথের অন্যদিকে ধানক্ষেতের ওপারের গ্রামেও আগুনের চিহ্ন দেখা গেল। বাঁশঝাড় আর কুঁড়েঘরগুলো তখনও পুড়ছিল। শত শত গ্রামবাসী পাকসেনা আসার আগের রাতেই পালিয়ে গেছে। যাওয়ার সময় মেজর রাঠোর বললেন, ”এই দুর্দশাকে তারা নিজেরাই ডেকে এনেছে।” আমি বললাম, “সামান্য কিছু বিদ্রোহীর জন্য নিরপরাধ লোকদের ওপর এটা বড় বেশি নির্মমতা হয়ে গেছে।” তিনি কোনো উত্তর দিলেন না।

কয়েকঘণ্টা পরেই চাঁদপুর থেকে ফেরার সময় আমরা আবার হাজীগঞ্জ দিয়ে আসছিলাম। ‘হত্যা আর অগ্নিকাণ্ড অভিযান’-এর বর্বরতা আমি স্বচক্ষে দেখলাম তখন। দুপুরবেলা সে-এলাকার ওপর দিয়ে বেশ কড়া ঝড় বয়ে গেছে। এখন শহরের ওপর পড়েছে মসজিদের মিনারের ভৌতিক ছায়া। পেছনের খোলা জিপে ক্যাপ্টেন আজহার আর চারজন জওয়ানের ইউনিফর্ম গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিতে চুপসানো। বাঁক নিতেই মসজিদের বাইরে আমরা ট্রাকের একটা বহর থেমে থাকতে দেখলাম। গুনে দেখলাম জওয়ান-ভর্তি সাতটা ট্রাক। বহরটির সামনে ছিল একটা জিপ। দু’জন লোক তৃতীয় একজনের নেতৃত্বে পথের পাশে একশোরও বেশি দোকানের বন্ধ দরজা ভাঙার চেষ্টা করছে। দু’টো কুঠার দিয়ে এই ভাঙার চেষ্টা চলছিল, মেজর রাঠোর তার টয়োটা সেখানে থামালেন।

“তোমরা এখানে কী করছ?”
তিনজনের মধ্যে লম্বা লোকটা, যে ভাংচুরের তত্ত্বাবধান করছিল, আমাদের দিকে চেঁচিয়ে উঠল, “মোটু, আমরা কী করছি বলে তোমার মনে হয়?” কণ্ঠস্বর চিনতে পেরে, মেজর রাঠোর মিষ্টি একটা হাসি দিলেন। আমাকে জানালেন তিনি হলেন তার পুরনো দোস্ত ইফতি — টুয়েলভথ ফ্রন্ট্রিয়ার্স ফোর্স রাইফেলের মেজর ইফতিখার।
রাঠোর বললেন, “আমি ভেবেছিলাম কেউ লুট করছে।”
“লুট? না না।” জবাব দিল ইফতিখার, “আমরা শুধু খুন করছি আর আগুন জ্বালাচ্ছি।”
হাত নাড়িয়ে তিনি বোঝালেন যে এসব তিনি ধ্বংস করবেন।
“ক’জনকে ধরতে পেরেছ?” রাঠোর জিজ্ঞেস করলেন।
ইফতিখার ভ্রূঁ নাচিয়ে হাসলেন।
“বল।” রাঠোর আবার জিজ্ঞেস করলেন। “ক’জনকে ধরেছ?”
“মাত্র বারোজন।” তিনি জবাব দিলেন, “আল্লাহর রহমতে আমরা ওদের পেয়েছি। লোকদের ধাওয়া করার জন্য না পাঠালে তো ওরা পালিয়েই যেত।”
মেজর রাঠোরের উৎসাহে ইফতিখার তার ঘটনার বর্ণনা শুরু করলেন বিস্তৃতভাবে। কীভাবে হাজীগঞ্জে ব্যাপক অন্বেষণের পর একটা বাড়িতে লুকিয়ে থাকা বারোজন হিন্দুকে তিনি খুঁজে পেয়েছেন তা রসিয়ে বললেন। তাদের সবাইকে ‘নিকাশ করে দেয়া হয়েছে।’ এখন মেজর ইফতেখার এখন ব্যস্ত তার দ্বিতীয় অভিযানে, অগ্নিকাণ্ডে।

ইতোমধ্যে একটি দোকানের দরজা ভেঙে ফেলা হয়েছে। বাংলায় দোকানটিতে লেখা আছে ‘মেডিকেল এন্ড স্টোরস’। বাংলা লেখার নিচে সেই সাইনবোর্ডে ইংরেজিতে লেখা আছে ‘অশোক মেডিকেল এন্ড স্টোরস’। তার নিচে লেখা ছিল ‘প্রোপাইটর এ এম বোস”। তালা মেরে অন্যান্যদের মতো জনাব বোসও হাজীগঞ্জ থেকে পালিয়েছেন। দোকানের সামনে ছিল একটা প্রদর্শন কক্ষ। ওষুধ, কফ সিরাপ, ম্যাঙ্গো স্কোয়াসের বোতল, ইমিটেশনের অলঙ্কার, রঙিন পোশাকের প্যাকেট ইত্যাদি অনেক কিছু ওতে সাজানো ছিল। ইফতিখার লাথি মেরে সব ভাঙ্গতে লাগলেন। তিনি কিছু চটের ব্যাগ নিলেন। অন্য একটি তাক থেকে নিল কিছু প্লাস্টিকের খেলনা আর রুমালের বাণ্ডিল। তারপর মেঝেতে সব জড়ো করে টয়োটায় বসা এক জওয়ানের কাছ থেকে দেশলাই নিয়ে এলেন। ওই জওয়ানের মাথায় বুদ্ধিসুদ্ধি ভালোই ছিল। সে গাড়ি থেকে লাফ দিয়ে নেমে দৌড় দিয়ে দোকানে ঢুকে একটা ছাতা বের করে আনল। ইফতিখার তাকে বেরিয়ে যাওয়ার আদেশ করলেন।

লুট করা, তিনি মনে করিয়ে দিলেন, নিয়মবিরুদ্ধ। এরপর দ্রুত আগুন ধরিয়ে দিলেন ইফতিখার। চটের জ্বলন্ত স্তূপ তিনি ছুঁড়ে দিলেন দোকানের এক কোণে, অন্য কোণে কাপড়ের বাণ্ডিল। মুহূর্তেই দোকানটি দাউদাউ করে জ্বলে উঠল। মিনিটখানেকর মধ্যেই একটি দোকান পরে তেলের দোকানে আগুন পৌঁছলে বন্ধ শাটারের পেছনে আগুনের আওয়াজ শোনা গেল। এ-সময়ে ঘনায়মান অন্ধকার দেখে রাঠোর উদ্বিগ্ন হয়ে উঠলেন। আবার আমাদের যাত্রা শুরু হল। পরদিন দেখা হতেই মেজর ইফতিখার আমাকে বললেন, “আমি মাত্র ষাটটা ঘর জ্বালিয়েছি। বৃষ্টি না এলে সবগুলোই শেষ করে করে ফেলতাম।”

মুজাফফরগঞ্জের কয়েক মাইল দূরে এক গ্রামে আমাদের থামানো হলো। দেখা গেল একজন মাটির দেয়ালের সঙ্গে কুঁকড়ে রয়েছে। এক জওয়ান সর্তক করে দিল যে সে ফৌজি হতে পারে। কিন্ত কিছুক্ষণ সর্তক নিরীক্ষণের পর বোঝা গেলো, সে একটি মিষ্টি হিন্দু মেয়ে। আর খোদাই জানে কার জন্য মেয়েটি নিরবে অপেক্ষা করছিল। এক জওয়ান দশ বছর ইস্ট পাকিস্তান রাইফেলে কাজ করার সুবাদে কিছু বাজারী বাংলা রপ্ত করেছিলো। সে মেয়েটিকে গ্রামে চলে যাওয়ার নির্দেশ দিলো। ওখানে বসে থেকেই মেয়েটি কী যেন বিড়বিড় করল। তখন তাকে দ্বিতীয়বার নির্দেশ দেয়া হল। তবু চলে আসার পরও সে ওখানেই বসে রইল। আমাকে জানানো হল, “মেয়েটির যাওয়ার জায়গা নেই — না আছে পরিবার না আছে ঘর।”

হত্যা ও অগ্নিকাণ্ড অভিযানের অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে মেজর ইফতিখারও একজন। বিদ্রোহীদের খুঁজে বের করার নামে হিন্দু ও ‘দুষ্কৃতিকারীদের’ (বিপ্লবীদের অফিসিয়াল পরিভাষা) অবাধে খুন করার এবং আশপাশের সবকিছু জ্বালিয়ে দেবার অনুমতি তারা পেয়েছে। এই টিঙটিঙে পাঞ্জাবী অফিসারটি নিজের কাজ নিয়ে কথা বলতে পছন্দ করেন। কুমিল্লার সার্কিট হাউজে ইফতিখারের সঙ্গে যাবার সময় তিনি তার সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ডের ফিরিস্তি দিলেন।

“আমি এক বুড়োকে পেয়েছিলাম”, তিনি বললেন। “হারামজাদার দাড়ি ছিলো, আর ভান করছিলো পাক্কা মুসলমানের মতো। এমনকি নিজের নাম বলল আব্দুল মান্নান। কিন্তু মেডিক্যাল ইন্সপেকশনে পাঠাতেই ওর খেল খতম হয়ে গেল।” ইফতিখার বলে যাচ্ছিলেন, “আমি তাকে তক্ষুণি সেখানে শেষ করে ফেলতে চেয়েছিলাম। কিন্তু আমার লোকেরা বললো — এরকম জারজের জন্যে তিনটা গুলি দরকার। তাই আমি তাকে একটা গুলি করলাম গোপনাঙ্গে, একটা পেটে। তারপর মাথায় গুলি করে তাকে খতম করে দিলাম।”

আমি যখন চলে আসি তখন তাকে নেতৃত্ব-ক্ষমতা প্রদান করে উত্তর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পাঠানো হয়েছে। আবারো তার অভিযান হত্যা আর অগ্নিকাণ্ড।

আতঙ্কে মুহ্যমান হয়ে বাঙালিদের দুটো প্রতিক্রিয়া হয়। যারা পালাতে পারে তারা সঙ্গে সঙ্গে অন্তর্হিত হয়। পাকসেনার উপস্থিতিতে যারা পালাতে পারে না তারা বশ্য ক্রীতদাসের মতো আচরণ করে — যা তাদের কপালে দুর্ভোগ ছাড়া অন্য কিছুই বয়ে আনে না। চাঁদপুর ছিল প্রথমটির উদাহরণ।

মেঘনা নদীবন্দর সংলগ্ন এই অঞ্চল আগে ব্যবসা-কেন্দ্র হিসেবে খুবই বিখ্যাত ছিল। রাত্রিবেলা নদীর পাড়ে ভেড়ানো হাজারো নৌকা আলোয় আলোয় এক রূপকথার রাজ্য বানিয়ে ফেলে। চাঁদপুর জনমানবহীন হয়ে পড়ে ১৮ই এপ্রিলে। না ছিল মানুষ, না কোনো নৌকা। বড়জোর এক শতাংশ মানুষ সেখানে ছিল। বাদবাকিরা, বিশেষ করে মোট জনসংখ্যার প্রায় অর্ধাংশ হিন্দুরা, পালিয়ে গিয়েছিল। ওরা পালিয়ে গেলেও বাড়িতে, দোকানে, ছাদে হাজার হাজার পাকিস্তানী পাতাকা উড়ছিল। মনে হচ্ছিল জনমানুষ ছাড়াই জাতীয় দিবস উদযাপিত হচ্ছে। হিংস্র দৃষ্টি থেকে বাঁচবার জন্যেই ছিল এই ব্যবস্থা। এই পতাকা ছিল তাদের আত্মরক্ষার উপায়।

কীভাবে যেন তারা জেনেছে পাকিস্তানী পতাকা ওড়ালে পাকসেনাদের হিংস্র ও নির্মম ধংসাত্মক তৎপরতা থেকে রক্ষা পওয়া যাবে। পতাকা কীভাবে বানানো হচ্ছে সেদিকে কোনো খেয়াল রাখা হয়নি, কোনো রকমে একটা চাঁদতারা থাকলেই যথেষ্ট। ওগুলোর রঙ, কাঠামো গড়ন তাই হয়েছে বিচিত্র। সবুজের জায়গায় কোনোটার জমি নীল। তারা যে বাংলাদেশী পতাকার মালমশলা দিয়ে এই পতাকা বানিয়েছে এটা নিশ্চিত। সবুজের জায়গায় সর্বত্র দেখা গেছে নীল পতাকা। চাঁদপুরের মতো একই দৃশ্যের পুনরাবৃত্তি ঘটেছে হাজীগঞ্জ, মুজাফফরগঞ্জ, কসবা আর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। কিন্তু পতাকা উড়েছে — ভৌতিক পতাকা।

একটি ‘কুচকাওয়াজ’ ও একটি চেনা ইশারা

আরেক ক্রীতদাসসুলভ বশ্যতা দেখা গেছে লাকসামে। পরদিন সকালে যখন আমি শহরে ঢুকি তখন বিপ্লবীমুক্ত হয়ে গেছে। দেখতে পেলাম শুধু পাকসেনা এবং আক্ষরিক অর্থে হাজার হাজার পাকিস্তানী পতাকা। সেখানকার মেজর ইন-চার্জ পুলিশ-স্টেশনে ঘাঁটি গেড়েছিলেন, মেজর রাঠোর সেখানে আমাদের নিয়ে গেলেন। আমার সহকর্মী পাক-টিভির একজন ক্যামেরাম্যান একটা প্রচারণা-ফিল্মের কাজে লাকসামে এসেছেন, ‘স্বাভাবিকতা ফিরে আসছে’ নামের নিয়মিত এই সিরিজ প্রতিদিন স্বাগত- কুচকাওয়াজ আর ‘শান্তিসভার’ খবর প্রচার করতো।

সে কীভাবে এটা করে ভেবে আমি বিস্মিত হয়েছিলাম, কিন্তু মেজর জানালেন জিনিসটা মোটেও সুমধুর নয়। “হারামজাদারা এর চেয়ে বেশি মাত্রায় এসে ব্যাপারটাকে দর্শনীয় করে তুলতে পারে। আমাকে বিশ মিনিট সময় দাও।” ৩৯তম বেলুচ ল্যাফটেন্যান্ট জাবেদের ওপর ভার পড়েছিল জনতাকে একত্রিত করার। তিনি দাড়িওয়ালা বুড়ো একজন লোককে ডাকলেন। তাকে আনা হয়েছে বানানো সাক্ষাৎকার দেয়ার জন্যে। লোকটি, পরে জানিয়েছিলেন তার নাম মৌলানা সৈয়দ মোহাম্মদ সাইদুল হক, বললেন তিনি একজন “খাঁটি মুসলিম লীগার; আওয়ামী লীগের লোক নন”। (১৯৪৭ সনে স্বাধীন পাকিস্তান আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছিলো মুসলিম লীগ।) খুশি করার জন্যে তিনি আগ্রহের সাঙ্গে আরো জানালেন, “বিশ মিনিটের মধ্যে আমি আপনাদের অবশ্যই অন্তঃতপক্ষে ষাটজন লোক জোগাড় করে দেব।” জাবেদকে তিনি বললেন, “দু’ঘন্টা সময় দিলে দুশো জন লোক জোগাড় করতে পারব।”

মৌলানা সাইদুল হকের সাচ্চা জবান। মেজরের দেয়া চমৎকার নারকেলের দুধে যেই চুমুক দিয়েছি, অমনি দূর থেকে আওয়াজ ভেসে এলো — “পাকিস্তান জিন্দাবাদ!” “পাকসেনা জিন্দাবাদ!” “মুসলিম লীগ জিন্দাবাদ!” ( জিন্দাবাদ হলো ‘চিরজীবী হোক’-এর উর্দু শব্দ।) কিছুক্ষণ পরেই তাদের কুচকাওয়াজ করে আসতে দেখা গেল। ওদের মধ্যে বুড়ো অসুস্থ লোক আর হাঁটুসমান ছেলেপিলে মিলিয়ে পঞ্চাশজন মানুষ ছিল। সবাই পাকিস্তানী পতাকা উঁচিয়ে গলা ফাটিয়ে চেঁচাচ্ছিল। লেফটেন্যান্ট জাভেদ আমাকে একটি চেনা ইশারা দিলেন। মিনিটখানেকর মধ্যে কুচকাওয়াজটি একটি জনসভায় পরিণত হল, একটি মাইক জোগাড় হয়ে গেল, বক্তৃতা করতে আগ্রহীর সংখ্যা বাড়তে থাকল।

সৈনিকদের উদ্দেশ্যে স্বাগত ভাষণ দেয়ার জন্যে সামনে ঠেলে দেয়া হল মাহবুব-উর রহমানকে। ‘এন এফ কলেজের ইংরেজি ও আরবির অধ্যাপক এবং মুসলিম লীগের আজীবন সদস্য’ হিসেবে তিনি নিজের পরিচয় দিলেন। পরিচয় দেয়ার পরে তিনি নিজস্ব কায়দায় বলা শুরু করলেন, “পাঞ্জাবী ও বাঙালিরা পাকিস্তানের জন্যে একত্র হয়েছে। আমাদের রয়েছে নিজস্ব ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি। কিন্তু হিন্দু ও আওয়ামী লীগারদের কারণে আমরা সন্ত্রাসের কবলে পড়েছি এবং আমরা এগিয়ে যাচ্ছিলাম ধ্বংসের দিকে। ঈশ্বরকে ধন্যবাদ যে পাঞ্জাবী সৈনিকেরা আমাদের রক্ষা করেছে। তারা বিশ্বের সেরা সৈনিকদল এবং মানবতার নায়ক। আমরা হৃদয়ের অতল গভীর থেকে তাদের শ্রদ্ধা করি ও ভালোবাসি।” এবং এভাবেই সে বেশ কিছুক্ষণ চালিয়ে গেল।

‘সভা’শেষে মেজরকে জিগ্যেস করলাম ভাষণ সম্পর্কে তিনি কী ভাবছেন। ”উদ্দেশ্য সফল হয়েছে” তিনি বললেন, “কিন্তু এই হারামজাদাকে আমি মোটেই বিশ্বাস করি না। তার নামও আমার তালিকায় রাখব।”

পূর্ব বাংলার যন্ত্রণা এখনও শেষ হয়নি। সবচেয়ে খারাপ সময় এখনও আসেনি। ‘বিশুদ্ধি অভিযান’ শেষ না-হওয়া পর্যন্ত পাকসেনারা ফিরে না-আসার ব্যাপারে দৃঢপ্রতিজ্ঞ। আর এই কাজের অর্ধেক মাত্র এখন পর্যন্ত সম্পন্ন হয়েছে। ৯ম ও ১৬শ, এই দুই ডিভিশন পাক সেনাকে বাঙালি বিদ্রোহী ও হিন্দুদের খুঁজে বের করার জন্যে পশ্চিম পাকিস্তান থেকে পাঠানো হয়েছে। পাকিস্তানের মতো দেশের জন্য এই পরিমাণ যথেষ্ট কার্যকরী। পশ্চিম থেকে পূর্ব পাকিস্তানে পাঠানো হয়েছে ২৫০০০-এরও বেশি লোক। ২৮শে মার্চ দুই ডিভিশন সৈন্যকে ৪৮ ঘন্টার নোটিশ দেয়া হয়েছিল রওয়ানা হবার জন্য। খরিযান ও মুলতান থেকে করাচিতে তাদের আনা হয়েছিলো ট্রেনে করে। হালকা বেড রোল ও সামরিক র‌্যাকসাকসহ জাতীয় এয়ারলাইন পিআইএ-র বিমানে তাদের নিয়ে আসা হয়েছে ঢাকায় (তাদের অস্ত্রশস্ত্র সমুদ্রপথে পাঠানো হয়েছিল)। পিআইয়ের সাতটি বোয়িং বিমান আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট বাতিল করে সিলোন দিয়ে দীর্ঘ ১৪ দিন ধরে তাদের পূর্ব পাকিস্তানে নিয়ে এসেছে। এয়ার-ফোর্সের কিছু ট্রান্সপোর্ট-এয়ারক্র্যাফট এব্যাপারে সাহায্য করেছে।

পাকসেনারা তৎক্ষণাৎই পূর্ব-কমাণ্ডের ১৪শ ডিভিশনের অস্ত্রপাতি নিয়ে তৎপরতায় নেমে গেছে। কুমিল্লা থেকে নিয়ন্ত্রিত ৯ম ডিভিশনকে নির্দেশ দেয়া হয়েছিলো পূর্ব-সীমান্ত বন্ধ করে দিতে― যাতে বিপ্লবীরা তাদের চলাফেরা ও সরঞ্জাম-সরবরাহ না-করতে পারে। যশোর হেডকোয়ার্টারের সঙ্গে মিলে ১৬শ ডিভিশনও প্রদেশের পশ্চিম সীমান্তে একই ধরনের কাজে ন্যস্ত ছিলো। মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহের ভেতরে তারা এই কাজ সম্পন্ন করে ফেলে। যেসব বিপ্লবী ভারতে পালাতে পারেনি―ইস্পাত আর আগুনের বৃত্তে তারা বন্দি হয়ে পড়ে―দুই সেনা ডিভিশন তাদের জন্যে ব্যাপক চিরুনি-অপারেশন কর্মসূচী গ্রহণ করে। কাজেই নিঃসন্দেহে আশংকা করা যায়, সীমান্তের সহিংসতা এখন মধ্যাঞ্চালে শুরু হবে। এটি হবে আরো বেদনাদায়ক। মানুষদের পালানোর আর কোনো পথ থাকবে না।

৯ম ডিভিশনের জি-১-এর পুষ্পপ্রেমিক লেফটেন্যান্ট জেনারেল বেগ ২০শে এপ্রিল ধারণা পোষণ করেছিলেন যে এই অনুসন্ধান কর্মসূচী দু’মাস অর্থাৎ জুনের মাঝামাঝি পর্যন্ত সময় নেবে। কিন্তুু এই পরিকল্পনা বিফলে গেছে বলে মনে হচ্ছে। গেরিলা কায়দা গ্রহণকারী এই বিপ্লবীদের সামরিক কর্মকর্তারা যত সহজে দমন করবেন বলে আশা করেছিলেন, বাস্তবে তা ঘটেনি। বিচ্ছিন্ন ও আপাত অসংগঠিত গেরিলারা পরিকল্পিতভাবে রাস্তা ও রেলপথের ধ্বংসসাধন করে পাক সেনাদের কাবু করে ফেলছে। কারণ এর ফলে তাদের যাতায়াত-ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। ৯ম ডিভিশনের কাজও অনাকাক্সিক্ষতভাবে পিছিয়ে গেছে এজন্যে। এদিকে তিন মাসব্যাপী ঝড়বাদলের মৌসুম চলে আসায় সামরিক কার্যক্রম বন্ধ হবার যোগাড় হয়েছে।

বর্ষাকালের জন্যে পাক সরকার মে-র দ্বিতীয় সপ্তাহে চীনের কাছ থেকে নয়টি বৃষ্টিরোধক গানবোট নিয়ে এসেছে। বাদবাকিগুলোও আসার পথে। আশি টনী, ব্যাপক গোলাবর্ষণ-ক্ষমতাধারী এই গানবোটগুলো বিমান বাহিনী ও আর্টিলারীর সৈনিকদের এখন পর্যন্ত ব্যবহারের জন্যে দেয়া হয়েছে। কিন্তু বৃষ্টি এলে এগুলো কাজ করবে না। এই বোটগুলোবে সহায়তা করবে কয়েকশ দেশীয় পরিবহণ যা সেনাবাহিনীর ব্যবহারের জন্য ইস্যু ও পরিবর্তিত করা হয়েছে। সেনাবাহিনী বিদ্রোহীদের খোঁজে জলপথেও বেরুতে চায়।

পূর্ব বাংলার উপনিবেশীকরণ

বণ্টন-ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ায় দুর্ভিক্ষের সম্ভাবনা প্রকট হয়ে উঠেছে। পূর্ব পাকিস্তানের সতেরোটির মধ্যে তেরোটি জেলাতেই খাদ্যের অভাব আছেÑযা পূরণ করা হয় চাল ও গমের পর্যাপ্ত আমদানির মাধ্যমে। গৃহযুদ্ধের জন্যে এবছর আর তা সম্ভব হচ্ছে না। ছয়টি বড়ো ও সহস্রাধিক ছোটোখাটো ব্রিজ বিধ্বস্ত হয়ে গেছে, অনেক রাস্তাঘাটও অতিক্রমের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। রেল-যোগাযোগও একই ভাবে ধ্বংস করা হয়েছে, যদিও সরকার বলছে যে সবকিছু “প্রায় স্বাভাবিক’’। ৭ই মে পর্যস্ত তৎপরতা চালিয়ে বিপ্লবীরা চট্রগ্রাম সমুদ্র-বন্দর থেকে উত্তর পর্যন্ত সড়ক ও রেল যোগাযোগ, বিশেষ করে ফেনীর মতো বিশিষ্ট সড়ক, জংশন ধ্বংস করে দিয়েছে। খাদ্যদ্রব্য সরবরাহ করা যাচ্ছে না এই ধ্বংসকাণ্ডের জন্যে। স্বাভাবিক সময়ে চট্রগ্রাম থেকে অন্যান্য এলাকায় নৌপথে ১৫ শতাংশ খাদ্য সরবরাহ করা হয়। বাকি ৮৫ ভাগ সরবরাহ করা হয় সড়ক ও রেলপথে। এমনকি নৌপথের পূর্ণ যোগাযোগ ও তৎপরতা গ্রহণ করা গেলেও চট্টগ্রাম গুদামে জমা খাদ্য মজুতের ৭০ শতাংশ খাদ্য সরবরাহ সম্ভব হবে না।

অন্য দুটো কারণও এর সঙ্গে যোগ করা দরকার। প্রথমত দুর্ভিক্ষের মোকাবেলার জন্যে লোকজন খাদ্যশস্য নিজেদের কাছেই মজুত করে রেখেছে। এই অবস্থা আরো ভয়াবহ পরিস্থিতির জন্ম দিয়েছে। অপরটি হলো দুর্ভিক্ষ সম্পর্কে জনসাধারণকে ওয়াকিবহাল করার ব্যাপারে পাক সরকারের অস্বীকৃতি। পূর্ব বাংলার সামরিক গভর্নর লেফটেন্যান্ট জেনারেল টিক্কা খান ১৮ই এপ্রিল এক বেতারভাষণে বলেন যে খাদ্যশস্যের সরবরাহের ব্যাপরে তিনি ওয়াকিবহাল আছেন। তখন থেকে সরকারি সব কায়দা ব্যবহার করা হয়েছে খাদ্য-সংকটের তথ্য গোপন করার ব্যাপারে। এর কারণ হল, এসবের পূর্বে সাইক্লোনের কারণে সৃষ্ট দুর্ভিক্ষের মতো দুর্ভিক্ষে বিপুল বৈদেশিক সাহায্যের প্রবাহ তৈরি হবে এবং বণ্টন-ব্যবস্থা দেখতে পরিদর্শন-দল আসবে। তা হলে হত্যাকাণ্ডের খবর বিশ্ববাাসীর কাছে গোপন রাখা অসম্ভব হয়ে পড়বে। সেজন্যে বিশুদ্ধি অভিযান শেষ না হওয়া পর্যন্ত ক্ষুধার কারণে লোকের মৃত্যুকে স্বাভাবিকভাবেই গ্রহণ করা হয়েছে। কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের চেয়ারম্যান জনাব কারনির সঙ্গে কিছুদিন আগে এই সমস্যা নিয়ে কথা হয়েছিল। করাচীতে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত সুসজ্জিত অফিসে দুর্ভিক্ষ প্রসঙ্গে নির্দয়ের মতো তিনি বলেন, ‘এই দুর্ভিক্ষ তাদের স্যাবোটাজের ফল। কাজেই, তাদের মরতে দাও। মনে হয় এতে বাঙালিদের বোধোদয় হবে।’

সামরিক সরকারের পূর্ব বাংলা-নীতি আপাতভাবে এত স্ববিরোধী ও আত্মবিনাশী ছিলো যে শাসকরা নিজেরাই কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারছিল না। প্রথমদিকে বলপ্রয়োগের ভ্রান্ত নীতি গ্রহণ করে সরকার অযৌক্তিকভাবে ও বোকার মতো জল ঘোলা করে ফেলেছে। এর আপাত কিছু কারণ ছিলো। একদিকে, এটা সত্যি যে সন্ত্রাসের তীব্রতা হ্রাস হয়নি। কিন্তু দমননীতি পূর্ব বাংলার বিক্ষোভের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। একারণে প্রতিদিন সরকারের হাজার হাজার শত্র“ গড়ে উঠছে এবং পাকিস্তানকে ঠেলে দিচ্ছে বিচ্ছিন্নতার পথে।

অন্যদিকে, কোনো সরকারই সচেতন হতে পারে নি যে এই নীতিমালা ব্যর্থ হতে পারে (পূর্ব বাংলাকে অনির্দিষ্টভাবে আটকে রাখার জন্য যথেষ্ট পশ্চিম পাকিস্তানী নেই)। দৃঢ় প্রশাসনিক ও অর্থনৈতিক কারণে এবং বৈদেশিক উন্নয়ন সহযোগিতায় বিশেষত আমেরিকার কঠোর বিবেচনার কারণে, যত দ্রুত সম্ভব একটি রাজনৈতিক সমঝোতা প্রয়োজন। রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া খানের ২৫শে মে-র সংবাদ-সম্মেলন জানান দেন যে তিনি বিষয়গুলোর গুরুত্ব সম্পর্কে ওয়াকিবহাল। এবং তিনি বলেন যে মধ্য জুনে প্রতিনিধিত্বমূলক সরকারের ব্যাপারে তিনি তার পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করবেন।

এসবকিছু এটাই নির্দেশ করছে যে, পাকিস্তানের সামরিক সরকার স্ববিরোধী আচরণ করছে এবং দেশের ২৪ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে তীব্র সঙ্কটের সমাধানে উল্টোপথে হাঁটা শুরু করেছে। এটি হল বি¯তৃতভাবে ফুটে ওঠা চিত্র। কিন্তু এটা কি সত্য? আমার ব্যক্তিগত মত হল এসব সত্য নয়। পশ্চিম পাকিস্তানে নেতারা কী বলেন, আর পূর্বে কাজে কী করেন এই দুইটি চিত্রই আমার সরাসরি দেখার দুঃখজনক সুযোগ হয়েছে। আমি মনে করি সরকারের র্প্বূ বাংলার নীতিতে সত্যিকার অর্থে কোনো স্ববিরোধ নেই। পূর্ব বাংলায় উপনিবেশীকরণ প্রক্রিয়া চলেছে। এটা আমার কোনো স্বে^চ্ছাচারী মতামত নয়। বাস্তবতা নিজেই সে কথা বলছে।

পূর্ব বাংলা বিচ্ছিন্নতাবাদের সমস্ত চিহ্ন বিলোপ করাই পাক সামরিক বাহিনীর প্রথম বিবেচনা ছিল এবং এখনো আছে। ২৫শে মার্চ থেকে সরকার পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানে চলমান দমননীতির মাধ্যমে এবং যেকোনো উপায়ে এই সিদ্ধান্ত বজায় রেখে চলেছে। ঠাণ্ডা মাথায় এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে এবং ঠাণ্ডা মাথায় সেদিকে এগুচ্ছেও। পূর্ব বাংলায় ধ্বংসলীলা চলার সময় কোনো অর্থপূর্ণ ও বাস্তবায়নযোগ্য রাজনৈতিক সমাধান সম্ভব নয়। জটিল প্রশ্ন হল: হত্যাকাণ্ড কি আদৌ থামবে ? ৯ম ডিভিশনের কমান্ডিং অফিসার মেজর জেনারেল শওকত রাজা ১৬ এপ্রিল কুমিল্লায় আমাদের প্রথম সাক্ষাতে এর উত্তর দিয়েছিলেন।

‘‘তুমি নিশ্চিত থাকতে পারো’’, তিনি বললেন, ‘‘আমরা মানুষ আর অর্থ দুদিক থেকেই ব্যাপক আর ব্যয়বহুল অভিযান খামোখা গ্রহণ করিনি। আমরা এটাকে একটা দায়িত্ব হিসেবে নিয়েছি এবং তা শেষ করতে যাচ্ছি। আধাখেচরা করে শেষ করলে রাজনীতিবিদরা এটাকে আবার খুঁচিয়ে তুলবে। তিন চার বছর পর পরই এই সমস্যাটিকে উঠতে দিতে সামরিক বাহিনী নারাজ। সেনাবাহিনীর অন্য প্রয়োজনীয় কাজ আছে। আমি তোমাকে নিশ্চয়তা দিতে পারে, আমরা যে পরিকল্পনা নিয়েছি, তা পুরোপুরি সম্পন্ন করতে পারলে এরকম অভিযানের আর প্রয়োজন হবে না।” কর্মরত তিন ডিভিশনাল কমান্ডারের মধ্যে মেজর জেনারেল শওকত রাজা অন্যতম। অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পদে আছেন তিনি। তাকে নিশ্চয় অসংলগ্ন কথা বলার জন্য ঐ পদে রাখা হয়নি।

লক্ষ্যণীয় যে, পূর্ব বাংলায় আমার দশ দিনের সফরে প্রতিটি সামরিক কর্মকর্তার মুখে মেজর জেনারেল শওকত রাজার কথাই প্রতিধ্বনিত হয়েছে। আর রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া খান জানেন যে যুদ্ধক্ষেত্রে যারা সৈন্য পরিচালনা করছেন তারাই পাকিস্তানের নিয়তির নিয়ন্তা। সামরিক অভিযানই সেনা কর্মকর্তাদের মতৈক্যের প্রমাণ দেয়। যেকোনো মাত্রায়ই এটা একটা প্রধান কাজ। এটা এমন একটা বিষয় যার সুইচ বৃহত্তম ফলাফল ছাড়া অফ বা অন করা যাবে না।

সামরিক বাহিনী তাদের কাজ করে যাচ্ছে

সামরিক বাহিনী ইতোমধ্যে হত এবং আহতের বিরাট পাহাড় গড়েছে। ঢাকায় ব্যক্তিগতভাবে শুনেছি যে সাধারণ মানুষের চেয়ে অফিসারদের বেশি হত্যা করা হয়েছে এবং হতাহতের পরিমাণ ১৯৬৫ সনের সেপ্টেম্বরের পাক-ভারত যুদ্ধকে অতিক্রম করে গেছে। সেনাবাহিনী অবশ্যই এসব ‘জীবনোৎসর্গ’কে রাজনৈতিক সমাধানের খাতিরে, যার প্রচেষ্টা অতীতে বারবার ব্যর্থ প্রমাণিত হয়েছে, পাত্তা দেবে না। তারা যে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে এ অবস্থায় তা স্থগিত করলে তা আত্মবিনাশী হয়ে উঠবে। এর মানে এটাই দাঁড়াবে যে, বাঙালি বিপ্লবীদের সঙ্গে তাতে আরো সঙ্কট তৈরি হবে। প্রচণ্ড আক্রোশ এখন দু’পক্ষেই তীব্রভাবে ছড়িয়ে পড়েছে।

আলোচনা সাপেক্ষে সমঝোতাও এখন সম্ভব নয়। এখন সম্পূর্ণ জয় বা পরাজয়ই হল একমাত্র সমাধান। সময় এখন, বিচ্ছিন্ন অসংগঠিত আধুনিক অস্ত্রহীন বিপ্লবীদলের নয়, পাকসেনাদের পক্ষে। কিন্তু অন্যান্য শর্ত যেমন বৃহৎ শক্তিদের দ্বন্দ্ব, পরিস্থিতির চেহারা পুরো পাল্টে দিতে পারে। তবে বর্তমান অবস্থায় পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর দিক থেকে লক্ষ্যার্জনের ব্যাপারে তাদের কোনো সন্দেহ নেই। তাই বর্তমান ক্ষয়ক্ষতি তাদের কাছে সম্পূর্ণ গ্রহণযোগ্য বিষয় হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।

ইতোমধ্যেই প্রচুর অর্থ খরচ হয়ে গেছে পূর্ব বাংলায় অভিযান চালাতে গিয়ে, এবং এই ক্রমবর্ধমান ব্যয় ভারই পাক সরকারের প্রতিজ্ঞার পরীক্ষা করছে। তহবিলের ব্যাপক খরচাপাতি এটা স্পষ্ট করে যে সৈন্যদল ব্যবহারের ক্ষেত্রে হিসেব-নিকেশ করে কাজে নামা সেনাবাহিনীর সকল স্তরেই প্রয়োজনীয় অর্থনৈতিক বিনিয়োগের ব্যাপারে অনুমোদন ও সমর্থন রয়েছে। ২৫,০০০ পাকসেনাকে পূর্ব বাংলায় নিয়ে যাবার মতো সাহসী ও ব্যয়বহুল উদ্যোগ শুধু শুধু নেয়া হয়নি। ৯ম ও ১৬শ ডিভিশন দু’টো পশ্চিম পাকিস্তানে সামরিক মজুত হিসেবে রাখা হয়েছিলো । বর্তমানে তাদের নবনিযুক্তি ঘটেছে প্রচণ্ড খরচের মাধ্যমে।

চীন কারাকোরাম মহাসড়ক দিয়ে বিপুল অস্ত্রসাহায্য পাঠিয়েছে। সম্প্রতি এই অস্ত্রবন্যা হ্রাস পেয়েছে বলে মনে হচ্ছে; পাকিস্তানের সামরিক সরকারের প্রতি প্রতিশ্র“তির ব্যাপারে তাদের হয়তো দ্বিতীয় কোনো ভাবনার উদয় হয়েছে। কিন্তু এরপরও বৈদেশিক মুদ্রা সংগ্রহের তলানি থেকে এক মিলিয়ন ডলার মূল্যমানের অস্ত্র ইউরোপীয় অস্ত্র বিক্রেতাদের কাছ থেকে কিনতে পাক-সরকার বিন্দুমাত্র দ্বিধাগ্রস্ত হয়নি। ঢাকা, রাওয়ালপিন্ডি ও করাচিতে সেনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করে আমি নিশ্চিত হয়েছি যে তারা সমস্যা সমাধানের উপায় দেখছে পূর্ব বাংলা অভিযান দ্রুত শেষ করে ফেলার মধ্যে ও ভয়ংকর আক্রমণের মাধ্যমে। এই উদ্দেশ্য সফলের জন্য প্রয়োজনীয় টাকার পরিমাণ সরকারি অন্যান্য সব খরচের ওপরে অবস্থান করছে। উন্নয়ন সত্যিকার অর্থে থেমে গেছে। একবাক্যে বলা যায়, রাজনৈতিক কোনো সমাধান সরকার যদি আন্তরিকভাবে চাইতো তা হলে পূর্ব বাংলার অপারেশন পরিত্যাগ করতো, কিন্তু সরকার তা থেকে সামরিকভাবে প্রতিশ্র“তবদ্ধ হয়ে অনেক দূরে অবস্থান করছে। রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া এখন বসে আছেন বাঘের পিঠে। তবে তার পিঠে ওঠার আগে অনেক হিসাব-নিকাশও করেছেন।

কাজেই সামরিক সেনাদের সহজে প্রত্যাহার করা হচ্ছে না। ঢাকার ইস্টার্ন কমান্ড হেডকোয়ার্টারে সরকারের পূর্ব বাংলা নীতি সম্পর্কে আমি জানলাম । এর তিনটি সূত্র আছে:

(১) বাঙালিরা নিজেদের ‘অবিশ্বস্ত’ হিসেবে প্রমাণিত করেছে এবং তারা অবশ্যই পশ্চিম পাকিস্তানের দ্বারা শাসিত হবে।
(২) ইসলামী পদ্ধতিতে বাঙালিদের পুনরায় শিক্ষা দিতে হবে। বিচ্ছিন্নতাবাদের প্রবণতা দূর করতে ‘জনগণের ইসলামিকরণ’ (অফিসিয়াল পরিভাষায় এরকমই বলা হয়ে থাকে) করতে হবে এবং পশ্চিম পাকিস্তানের সঙ্গে শক্তিশালী ধর্মীয় বন্ধন তৈরী করতে হবে।
(৩) হত্যা ও দেশত্যাগের মাধ্যমে যখন হিন্দুরা নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে তখন তাদের সম্পত্তি সুযোগবঞ্চিত বাঙালি মুসলমানদের মন জয় করতে সোনালি পুরস্কার হিসেবে ব্যবহৃত হবে। এটা ভবিষ্যতের প্রশাসনিক ও রাজনৈতিক কাঠামোর ভিত্তি স্থাপন করবে।

এই নীতিমালা অত্যন্ত গুরুত্বসহকারে সুপারিশ করা হয়েছে। প্রকাশ্য বিদ্রোহের অপরাধে সরকারি আদেশবলে প্রতিরক্ষাবাহিনীতে আর কোনো বাঙালির নিয়োগ নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বিমানবাহিনী ও নৌবাহিনীর যেসব সিনিয়র অফিসার জড়িত ছিলেন না ‘আগাম-সতর্কতা হিসেবে’ তাদের গুরুত্বহীন জায়গায় বদলি করা হয়েছে। বাঙালি ফাইটার-পাইলট, যাদের মধ্যে কারো কারো পাঁচ বা ততোধিক শত্রু-বিমান ধ্বংসের অভিজ্ঞতা রয়েছে, তাদের গ্রাউন্ডে পাঠানো এবং বিমান-পরিচালনাবহির্ভূত কাজকর্মে নিযুক্তির মাধ্যমে মর্যাদা ক্ষুণ্ন করা হয়েছে। এমনকি দেশের দু’অংশের মধ্যে যাত্রী-পরিবহনে পরিচালিত পিআইয়ের বিমানক্রুদেরকেও বাঙালিমুক্ত করা হয়েছে।

পূর্ব পাকিস্তান রাইফেলস হলো কেবল বাঙালিদের নিয়ে আধাসামরিক বাহিনী; বিদ্রোহ সমাপ্তি না আসা পর্যন্ত তাদের বাতিল করে দেয়া হয়েছে। বিহারী ও পশ্চিম পাকিস্তানের স্বেচ্ছকর্মীদের নিয়ে সিভিল ডিফেন্স ফোর্স নামে নতুন বাহিনী গঠন হয়েছে। পুলিশে নিযুক্তির ব্যাপারেও বাঙালির জায়গায় বিহারীদের নেয়া হচ্ছে। এগুলো তত্ত্বাবধান করছেন পশ্চিম পাকিস্তান থেকে পাঠানো ও সেনাবাহিনী কর্তৃক অনুমোদিত কর্মকর্তাগণ। চাঁদপুরের এপ্রিল মাসের শেষদিকে পুলিশ সুপারিন্টেন্ডেন্ট ছিলেন একজন মিলিটারি-পুলিশ-মেজর। শত শত পশ্চিম পাকিস্তানী সরকারি কর্মচারী ডাক্তার এবং রেডিও, টিভি, টেলিগ্রাফ ও টেলিফোন কলাকৌশলীদের পূর্ব পাকিস্তানে পাঠানো হয়েছে। এদর সবাইকেই দেয়া হয়েছে এক বা দুই ধাপ প্রমোশনের লোভ। অবশ্য এই বদলী করা হয়েছে বাধ্যতামূলকভাবে। সরকারি কর্মকর্তাদের দেশের যে কোনো স্থানে ইচ্ছেমত বদলী করার ব্যাপারে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া সাম্প্রতিককালে একটি নির্দেশনামা জারি করেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘অনুসন্ধান’

আমাকে বলা হয়েছে যে ভবিষ্যতে ডেপুটি কমিশনার বা পূর্ব বাংলার কমিশনারদের নেয়া হবে হয় বিহারী নয়তো পূর্ব পাকিস্তানী সরকারী কর্মকর্তাদের মধ্য থেকে। জানা গেছে যে, জেলা ডেপুটি কমিশনাররা আওয়ামী লীগের বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে যুক্ত। কোনো কোনো ক্ষেত্রে, যেমন কুমিল্লায়, এসব ডেপুটি কমিশনারদের ধরা হয়েছে এবং গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। কুমিল্লার সেই বিশেষ কর্মকর্তাটি ‘শেখ মুজিবের লিখিত নির্দেশ ছাড়া’ পেট্রল ও খাদ্য সরবরাহ করতে অস্বীকৃতি জানানোয় পাকসেনাদের রোষে নিপতিত হন ২০ মার্চ।

সরকার পূর্ব বাংলার কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ওপরও হিংস্র হয়ে উঠেছে। ষড়যন্ত্রের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত বলে ঘোষণা করে সেগুলোতে ‘অনুসন্ধান’ করার আদেশ দেয়া হয়। অনেক অধ্যাপক পালিয়ে গেছেন; গুলিতে মারা গেছেন কেউ কেউ। তাদের স্থানে পশ্চিম পাকিস্তান থেকে নতুন নিযুক্তির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বাঙালি কর্মকর্তাদের স্থানান্তরিত করা হয়েছে প্রশাসনিক ও পররাষ্ট্রীয় সংবেদনশীল পদ থেকে। সবকিছু এই সময়ে চরম সীমায় এসে ঠেকেছে। তবে প্রশাসন যেমন চায়, এই উপনিবেশীকরণ প্রক্রিয়া স্পষ্টত তার অর্ধেকও কাজে দেয়নি। কুমিল্লার সামরিক আইন প্রশাসক মেজর আগা আমাকে এর বহু প্রমাণ আমাকে দেখিয়েছেন। বিপ্লবীদের দ্বারা বিধ্বস্ত ব্রিজ ও রাস্তা মেরামতে তিনি স্থানীয় বাঙালি নির্বাহী প্রকৌশলীদের কাছ থেকে বাধাগ্রস্ত হচ্ছিলেন। কাজগুলো লাল ফিতায় বন্দি হয়ে আছে এবং ব্রিজগুলো তেমনই পড়ে আছে। “আপনি আশা করতে পারেন না যে ওরা কাজ করবে।” তিনি আমাকে বলেন, “কারণ ওদেরই আমরা হত্যা করেছি, ধ্বংস করেছি ওদেরই দেশ। তাদের দিক থেকে চিন্তা করলে তাই দাঁড়ায়, এবং আমরা এর দাম দিচ্ছি।”

বেলুচ রেজিমেন্টের ক্যাপ্টেন দুররানি ছিলেন কুমিল্লা-বিমানবন্দরে পাহারারত কোম্পানির দায়িত্বে। এসব সমস্যা মোকাবেলায় তার ছিল নিজস্ব কায়দা। কন্ট্রোল টাওয়ারে কর্মরত বাঙালিদের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “ওদের বলে দিয়েছি সন্দেহজনক কিছূ করছে এরকম মনে হলেও তাদের গুলি করে মারা হবে।” দুররানি তার কথা ও কাজে এক। কিছুদিন আগে রাতে বিমান-বন্দরের আশে-পাশে ঘোরাফেরা করছিল এমন এক বাঙালিকে তিনি গুলি করে মেরে ফেলেছেন। “সে একজন বিপ্লবী হতে পারতো” আমাকে তিনি বললেন। দুররানির আরকটি বিষয়ে খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। বিমানবন্দরের আশেপাশের গ্রামে অভিযান চালানোর সময় তিনি নিজেই ‘৬০ জনেরও বেশি মানুষকে’ খতম করেছিলেন।

পূর্ব বাংলার উপনিবেশীকরণের রূঢ় বাস্তবতাকে নির্লজ্জ ছদ্ম-পোশাক দিয়ে ঢেকে ফেলা হয়েছে। ইয়াহিয়া খান ও লেফটেন্যান্ট জেনারেল টিক্কা খান কয়েক সপ্তাহ ধরে পূর্ব পাকিস্তানে তাদের কার্যকলাপের জন্য রাজনৈতিক সমর্থন আদায়ের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ফলাফল অবশ্য আদৌ সন্তোষজনক নয়। সমর্থন পাওয়া যাচ্ছে ঢাকার বাঙালি আইনজ্ঞ মৌলভী ফরিদ আহমেদ এবং জামাতে ইসলামের গোলাম আজম ও ফজলুল কাদের চৌধুরীর মতো লোকদের যাদের প্রত্যেকে গত সাধারণ নির্বাচনে প্রচণ্ড মার খেয়েছিলেন। একমাত্র উল্লেখযোগ্য ব্যক্তি নূরুল আমিনের সমর্থনই ধর্তব্য। গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বাইরে থেকে নির্বাচিত দু’জনের মধ্যে তিনি একজন। এছাড়াও বয়ষ্ক এই মুসলিম লীগার পূর্ব বাংলার প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী। তার বয়স এখন সত্তর। কিন্তু নূরুল আমিনও সতর্কভাবে তার মতামত দিচ্ছেন। তিনি আজ পর্যন্ত শুধু দুটো বিবৃতি দিয়েছেন যার বিষয়বস্তু হল ‘ভারতের হস্তক্ষেপ’।

এসব ‘দালাল’ বাঙালিদের রোষানলে পড়েছেন। ফরিদ আহমেদ ও ফজলুল কাদের চৌধুরী এসব থেকে সতর্ক হয়ে চলেছেন। ফরিদ আহমেদ তার বাড়ির দরজা-জানালা সবসময় বন্ধ করে রাখেন। দরজার ফাঁক দিয়ে যাদের সনাক্ত করতে পারেন, তারাই কেবল ভেতরে ঢোকার অনুমতি পাচ্ছেন।

একটি বিশেষ অকার্যকর পদ্ধতির মাধ্যমে সরকার জাতীয় ও প্রাদেশিক সংসদের জন্য নির্বাচিত ৩১ জন আওয়ামী লীগ নেতার ক্ষুব্ধ মৌনতা আদায় করেছে। পরিবার ছাড়া আর সকলের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন করে তাদের আটকে রাখা হয়েছে আসন্ন ‘প্রতিনিধিত্বশীল সরকারের’ অভিষেকের জন্য। যদিও তারা এখন নিজেদের ছাড়া আর কারও প্রতিনিধিত্ব করছেন না।

বেঁচে যাওয়া ভাগ্যবান দর্জি আব্দুল বারীর বয়স ২৪ বছর। পাকিস্তানের বয়সও আব্দুল বারীর সমান। বলপ্রয়োগ করে সামরিক বাহিনী দেশটিকে একত্রিত রাখতে পারবে। কিন্তু পূর্ব পাকিস্তানে যা করা হয়েছে তার অর্থ দাঁড়ায় একটাই; তা হল, ১৯৪৭ সালে দু’টি সমান অংশের মুসলিম জাতির সমন্বয়ে একটি দেশ গড়ে তোলার স্বপ্ন মানুষের ছিল, সেটা এখন মৃত। পশ্চিম পাকিস্তানের পাঞ্জাবিরা আর পূর্ব বাংলার বাঙালিরা একই জাতির অভিন্ন জাতি হিসেবে নিজেদের ভাবার সম্ভাবনা এখন সুদূরপরাহত। বাঙালিদের এখন একটাই ঝাপসা ভবিষ্যৎ আছে: উপনিবেশের অসুখী অবদমন থেকে বিজয়ী হিসেবে নিজেদের উত্তরণ।

An Army Insider’s Honest Expose of Atrocities in East Pakistan Debacle

(A review from a book written by an insider close to power in 1971)

KARACHI, March 25: The East Pakistan tragedy was not just a failure of the military establishment of the day but also the abysmal collapse of civil society in West Pakistan. Launched at midnight, 25 March 1971, the military action went on for nine long months without eliciting any concerted protest from the West Pakistani public and political leadership.

The few low voices raised against the military action were too feeble to make the army change the suicidal course it had set itself, leading to an ignominious military defeat and the breakup of the country.

Brigadier Abdul Rehman Siddiqi, who headed the Inter Services Public Relations (ISPR) and was Press Advisor to Army Chief General Yahya Khan, was clearly in the thick of things. Therefore, his book ‘East Pakistan: The Endgame — An Onlooker’s Journal 1969-1971’ will be of interest to those wishing to penetrate the historical veil that has subsequently been draped over the more unsavory events of that era.

The author had the unique advantage of observing the tragedy as it unfolded. As the ISPR chief, he interacted with the national press and a cross-section of public and political leadership in both wings. In his description and appraisal of the various dramatis personae, he acts as an impartial observer.

Apart from the fresh light the book sheds on the traumatic episode, the simplicity and candor of the narrative adds much to its readability. Thus, the book may well contribute towards the much-needed bridge building between Pakistan and Bangladesh.

“In 1971, Pakistan was torn into two, its eastern half declaring itself the independent nation of Bangladesh. While the broader details of this debacle have since become comprehensible, historians are still trying to glean a few remaining facts from the myths and half-truths that continue to linger some 33 years later.

From the start, the author makes it clear that the book is based on his diaries and other sources that he had personal access to as the ISPR chief. He also admits to have “scrupulously avoided” relying on any subsequent books or other published material that relates to the events. As a result, the reader is presented with a first-hand account of those fateful days.

The narrative begins in February 1969 when President Ayub Khan, besieged by street agitation, sought to negotiate his way out by calling for a Round Table Conference (RTC). However, as Siddiqi explains, Yahya had already started plotting against his boss. Unknown to most people at the time, the army chief secretly met the East Pakistani leader Mujibur Rehman and asked him not to relent on his demands. In fact, as Siddiqi points out, Yahya went as far as to tell Mujib that “he could go ahead with his anti-Ayub campaign without any let or hindrance from the army.”

Siddiqi also reveals that a week before the RTC, he was ordered by General Ghulam Umar to secretly prepare an advance draft for Yahya’s address to the nation as the Chief Martial Law Administrator. Two days later, Yahya flatly refused Ayub’s direct request for the army to come to the aid of the civil government.

According to Siddiqi, Yahya made it abundantly clear to his superior that it was either complete martial law under his own control or nothing. And Ayub knew then that his days were numbered. Following his refusal to help Ayub quell the violent civic unrest, Siddiqi discloses how Yahya cunningly enlisted the support of his old drinking buddy interior minister Admiral AR Khan, who persisted in presenting highly pessimistic daily briefs to further undermine the president.

When Siddiqi confronted General Pirzada with these peculiar goings-on, he was politely told to hush up. The dice had been cast and within a month Ayub departed from the scene after handing over power to Yahya.

Following the takeover, Siddiqi claims that Yahya was quick to reveal his true intentions and confided to some of his senior officers: “Gentlemen, we must be prepared to rule this unfortunate country for the next 14 years or so.”

Soon, Yahya announced general elections after being convinced by the intelligence agencies that they would result in a split vote and a fractious National Assembly, making it impossible for the new government to fulfil the stipulation of an approved constitution within 120 days. This failure, the thinking went, would then lead to fresh elections while power would indefinitely remain in the army’s firm grip.

However, the election results could not have been farther from Yahya’s calculations. Badly let down by the intelligence agencies, Yahya decided to pursue a new course of action. His famous reference to Mujib as the future prime minister was in reality no more than “a calculated maneuver aimed at, first to set the military against Mujib, and second, to provoke the Pakistan Peoples Party.”

The worried generals then recruited Zulfikar Ali Bhutto to ensure that any chance of a compromise with Mujib would be non-existent. In fact, as Siddiqi informs us, General Umar even met many West Pakistani minority party leaders to actively dissuade them from attending the first National Assembly session at Dhaka. Not surprisingly, East Pakistan soon went on the boil in the face of such intransigence. And the army-controlled West Pakistani media retaliated by accusing East Pakistanis of treason.

We all know what followed. The army’s subjugation of East Pakistan resulted in untold misery for millions of innocent Pakistanis, the death of many thousands as well as the breakup of Jinnah’s original Pakistan. And as Siddiqi’s narrative makes apparent, all this happened so that the generals could maintain their hold on power. Since then, it has suited successive army generals to place the blame on Bhutto. But the pertinent question is: how many tanks, guns and soldiers did Bhutto have at his disposal? The answer, of course, is none.

Another fact the author emphasizes is the sheer profusion of war crimes inflicted on hapless Pakistani citizens by its own army. The reader comes across a devastated Major General Ansari telling Siddiqi that rape and brutality were widespread. The general also confesses to a complete breakdown in the “discipline of his junior officers [and that] there was little he could do to check their “atrocities.” If junior officers had run amok, one shudders to think what the less-educated jawans got up to.

Siddiqi also exposes the infamous General Niazi who shamelessly defended the rapists by declaring that: “You cannot expect a man to live, fight and die in East Pakistan and go to Jhelum for sex, would you?” Even 30-plus years later, the fact that most, if not all, of these perpetrators got away scot-free, can provoke tears of rage and shame.

Ultimately, ‘The End Game’ is a brave and honest book and Siddiqi should be commended for writing it, even if it took him all these years to muster the resolve. A must-read for anyone interested in Pakistan’s past.” – Courtesy Herald.

Credit: AK Zaman

NBC News (2/20/1972): Rape Victims

Genocidal rapes of Bangladeshi women and girls during the Bangladesh Liberation War. The report interviews pregnant girls held at Pakistani army barracks and repeatedly raped. Some of the girls are as young as 13.

Length: 3:50 Minutes